ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 

দিগন্ত টিভির সত্য ও সুন্দরের শ্লোগানকে হালাল করতে মহাজোট সরকারের মন্ত্রীরা আদাজল খেয়ে নেমেছেন । তা না হলে এদের চতুর্থ বর্ষ পূর্তিতে কোন যুক্তিতে সরকারের রথী মহা রথীরা দল বেঁধে শুভেচ্ছা জানাবেন । এক দিকে চলছে মানবতা বিরোধী অপরাধের বিচার কিন্তু অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে সরকারের ভেতরে ঘাপটি মেরে থাকা একটি মহল তাদের বিচার কাজ কে পুজি করে ধান্ধায় লিপ্ত আছে ।

আসলে সেলুকাস আমাদের রাজনীতি । ইতিহাসের অন্যতম ঘৃণ্য অপরাধের বিচার চলছে দেশে আর অন্য দিকে তাদের ই মালিকানাধীন চ্যানেলে শুভেচ্ছা বানীর বিনিময়ে টিভি তে মুখ দেখাতে বাস্ত আছেন ক্ষমতাসীন সরকারের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী । তাদের মধ্যে আবার দেখি আইন মন্ত্রী শফিক আহমেদ ও আছেন ! দিলিপ বড়ুয়া না হয় বানী দিতে পারেন । কারন আবার কার উছিলায় এমন সাজানো ক্ষমতায় আসতে পারেন তার কোন ইয়ত্তা নেই কিন্তু হাসান মাহমুদ , সংস্থাপন মন্ত্রনালয়ের সচিব এরা কেন ? না কি সবাই কাশেম এর কেনা গোলামে পরিনত হয়েছে ? ফারুক খান কে নিয়ে প্রশ্ন তুলছি না , তুলছি না আ ফ ম রুহুল হক কে নিয়েও ।

যেখানে গোলাম আজম, নিজামি , সাইদির সাথে সাথে জামায়াতেরও বিচারের দাবি উঠছে ঠিক সেই মুহূর্তে ধরনের কার্যকলাপ আমাদের কে ভাবিয়ে তুলে , আসলে সরকার কি চাই ? বিচার শেষ করবে না কি আবার ভোটের ইশতেহার বানানো হবে ? নির্বাচনী রঙ্গে এটা কিন্তু ভালই কাজ দিবে । আবার লীগের জামায়াত কানেকশন ও মনে আছে । মনে আছে গুণধর হানিফের আহ্বান – নতুন জামায়াতে ইসলামি গঠন করার , যাতে পাক পবিত্র হয়ে লীগের সাথে জোট বাঁধতে পারে ।