ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 

মন্ত্রী এক খান। বাহাস করতে উস্তাদ। ছোটকালে পালা গানের চল ছিল কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় আজ তা বিলুপ্তির পথে। তাতে কি হয়েছে তার অভাব অনেকটাই পুরন করে যাচ্ছেন আবুল মাল সাহেব । প্রতি দিন সরকারের হ-য-ব-র-ল সিদ্ধান্ত এবং স্ববিরোধিতার বক্তব্যগুলো সুনিপুণ ভাবে সওয়াল জওয়াব করার মত উপস্থাপন করে যাচ্ছেন তিনি । পদ্মা সেতু নিয়ে কাদের সাহেব এক রকম বলেন আর উনি বলেন অন্য কথা ।

কাদের সাহেব বলেন মালয়েশিয়া সরকারের সাথে চুক্তি করলে বাংলাদেশ উপকৃত হবে কারন সুদ মুক্ত ঋণ দিতে রাজি হয়েছে তারা। তাছাড়া এটা নিয়ে উনি বেশ কয়েকবার বৈঠক করেছেন মালয়েশিয়া সরকারের সাথে । কিন্তু মুহিত সাহেব এখনো আশায় আছেন পদ্মা সেতুতে বিনিয়োগ করবে বিশ্ব ব্যাংক । কিন্তু যখন করার কথা তখন কেন করলেন না ? তখন দেখেছি কোমর বেঁধে আবুল কে রক্ষায় এক পায়ে খাড়া ছিলেন তিনি । গতকাল সংবাদে শুনলাম পদ্মা সেতুর জন্য প্রধানমন্ত্রী মুহিত করে সরব সেবা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন , যদিওবা সরকারের পক্ষ থেকে কিছুই বলা হয়নি । অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে পদ্মা সেতুর সমস্থ কৃতিত্ব উনি বগল দাবা করার মতলবে আছেন। এখানে কাদের সাহেব বলি আর আমেরিকায় বিশ্ব ব্যাংক এর আলাপরত মিশনে যারা আছেন তারাই বলি সকল কৃতিত্ব এক জনেরই।

সম্প্রতি ঘটে যাওয়া হলমার্ক গ্রুপের ঋণ কেলেঙ্কারি নিয়ে উনার অবস্থান বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে সম্পূর্ণ বিরোধী। বাংলাদেশ ব্যাংক পরিচালনা পরিষদ ভেঙ্গে দেওয়ার সুপারিশ করলেও উনি প্রশ্ন তুলেছেন এখতিয়ার নিয়ে । তাহলে ব্যাংকগুলোর নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা কারা ? বাংলাদেশ ব্যাংক না অর্থ মন্ত্রণালয়?

বর্তমান সরকারের ফ্লপ মারা মন্ত্রীর মধ্যে এখন দেখি আবুল,ফারুক, সাহারাকে ছাপিয়ে মাল।

আশা করি মালের এধরনের অসংলগ্ন কথা চলতেই থাকবে । সাথে নতুন পাঞ্জাবি বাধ্যতামূলক।