ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

আমাদের বর্তমান সমাজে কিছু লোক আছে যারা নিজেদের সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী এবং সবজান্তা বলে মনে করে। অবশ্য আমাদের গণতান্ত্রিক (পড়ুন পরিবারতন্ত্র বা এক নায়কতন্ত্র) পদ্ধতিতে আরও কয়েক ধরনের মানুষ আছে যারা রাজনীতিকে আঁকড়ে ধরে রাজনীতিকে কলুষিত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত থাকে ।

আর এ ধরনের রাজনীতিবিদরাই রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে পরম প্রিয় । রাজনীতির আড়ালে বিভিন্ন কৌশলে আখের ঘর ঘোচানোরই রাজনীতিতে বেশি সাধুবাদ পাচ্ছে । আর এ কাজে বলা যায় প্রায় সবাই ই সমান পারদর্শী । চলমান সংসদে যে সব রাজনীতিবিদ সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তারা আজ সরকারের কর্তাবাবু । যাদের আবার রাজনৈতিক কোন ব্যাকগ্রাউন্ড ও নেই । তাদের জ্ঞানের গরিমা এতই বেড়ে গিয়েছে (স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীর আশকারাই ) যে আলোকিত মানুষ গড়ার কারিগর , বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের জন্মদাতা স্যার আব্দুল্লাহ আবু সায়িদ এর মত বরেণ্য মানুষ ও রেহাই পাচ্ছে না ।

যিনি সমাজকে আলোকিত করে যাচ্ছেন (আজ অবধি) বইয়ের আলো দিয়ে । সারা জীবন উৎসর্গ করে যাচ্ছেন শুভ্রতার পেছনে । যিনি নিজ জীবনে খুভ ই সাদামাটা । থাকেন চিলেকোঠায় কিন্তু কাজ করে যাচ্ছেন উন্নত ও সু-শিক্ষিত জাতি গঠনে । যিনি তথাকতিত আধুনিকতার জোয়ারে গা ভাসান নাই , নেই সুউচ্চ কোন ভবন , নেই কোন চোখ ধাঁধানো লাল নীল গাড়ী , নেই ব্যাংকে অলস টাকা ।

কয়েক দিন ধরে মৌচাকে ঢিল পড়ার মত (প্রায়) সব সংসদ সদস্যরা উনাকে আক্রমন করে যাচ্ছেন দূর্বার গতিতে । এগিয়ে আসছেন উনার চরিত্র হনন করার জন্য । সংসদের ভেতরে বাইরে উনাকে তলাধুনা করার কাজে লিপ্ত মহাজোটের জ্ঞানপাপীরা ঃ শুধু মাত্র নীতির প্রশ্ন তোলায় ? তর্কের খাতিরে যদি মেনেও নিই উনি কথাটি বলেছেন তাহলে কি ভুল বলেছেন ? যেখানে মোট সাংসদ এর প্রায় ৫৫% বাবসায়ি ( ক্ষেত্র বিশেষে ক্লাস ফোর পাস ) তাদের আবার নীতি ? শুধু মাত্র ফায়দা লোটা ছাড়া । আর এ সব ক্ষমতাধররা কোটি কোটি টাকা লোপাট করলেও সরকারের উপরি মহল চুপ থাকে কারন এরাই আবার ইজারা নেওয়ার সময় প্রয়োজনীয় অর্থের যোগানদাতা ।

এই ভঙ্গুর রাজনীতিই এখন বাংলার জন্য বিষফোঁড়া । মহান আত্মত্যাগের মাধ্যমে অর্জিত স্বাধীন ভুমিতে আজ মার্কিন নৌ –বহর, সাম্রাজ্যবাদীদের সামরিক ঘাঁটি, খনিজ সম্পদের উপর লোলুপ দৃষ্টি সহ বিভিন্ন আর্থসামাজিক ক্ষেত্রেই এরাই পালের গোদার ভুমিকা পালন করছে । এরাই প্রভুদের অভয় দিয়ে থাকে । এখানে আসল দেশদরদীদের কথা গ্রাহ্য করা হয় না । তাদের আদেশ উপদেশ বা দেশের সমৃদ্ধ সাধনে চিন্তা-চেতনাকে অসাড় মনে করে প্রায় রাজনীতিবিদরা । তাই আলোকিত মানুষ গড়ার কারিগর আবু সায়িদ স্যার এর মতন সাদা মনের মানুষদের সমালোচনায় হবে এটাই তো স্বাভাবিক ! প্রবাদ আছে – রতনে রতন চেনে , কোন জ্ঞানী মানুষের মূল্যায়ন কখনো কোন জ্ঞানপাপী দ্বারা হতে পারে না ।

আমার অনেক ব্লগার সহকর্মী এবং ফেসবুক বন্ধুদের সাথে তাল মিলিয়েই বলছি – স্যার আমাদের ক্ষমা করবেন, এই সব আমারাই নির্বাচিত করে মহান সংসদে পাঠিয়েছি ।

আপনার কাছে হাত জোড় করে মিনতি – অনুগ্রহ করে সমৃদ্ধ জাতি গঠনে আপনার উৎকর্ষতার পানে চলা সগৌরবে চলমান থাকুক । দেশ নিয়ে, দেশের সমৃদ্ধ সাধনে, আলোকিত জাতি গড়া নিয়ে আপনি প্রকাশ করতে থাকুন আপনার মহা মূল্যবান মতামত । দেশে এখন পরিবর্তনকারীদের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে । মুক্তির মিছিল দীর্ঘ হচ্ছেই , সে মিছিলের চালিকা শক্তিই হবে আপনার মত্ন জ্ঞানীরা, দেশদরদি ।

যারা স্বপ্ন দেখেন আলোকিত বাংলাদেশের ।