আবুবকর

(৩০/৫/২০১১ দুপুরে এডিট করা) মুহম্মদ ও আবুবকর বাল্যকাল থেকেই বন্ধু ছিলেন। এ দুই প্রাণের বন্ধু একটি বিষয়ে সহমত ছিলেন। কাকে ঈশ্বর সাব্যস্ত করা যায় এ বিষয়ে দুজনই খুব খুঁতখুঁতে ছিলেন। যেগুলোকে পছন্দ হতো না, সেগুলোর ধারই ধারতেন না। আমরা আবুবকরকে দেখেছি তাঁর বন্ধুর চল্লিশ বছর বয়সের সময়ে তাঁর বলা সবচে নাজুক কথাটি শুনেও তাঁকে ছেড়ে… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ধর্ম বিষয়ক

লাদেনপুত্র ওসামার ধর্মতত্ত্ব

আমরা ইতোমধ্যে আলোচনা করেছি সুবর্ণ বিধির নানা রূপ নিয়ে—ধর্মতত্ত্ব ও শাস্ত্রের সাথে তার সম্পর্ক ও মেরুকরণ নিয়ে। নবী মুহম্মদ তাঁর সাক্ষাৎ ও ঘনিষ্ঠ সহচরদের মধ্যে এ নীতি অনুসরণের সক্ষমতা তৈরির উদ্দেশ্যে তাদের মধ্যে সচেতনতা ও প্রজ্ঞার উন্মেষ ঘটাতে চেয়েছিলেন। এর সফলতার পরিধির মাপ আমরা পাই তাঁর মৃত্যুর পরের ত্রিশ বছরের ইতিহাসে। ওমর ওমর যদি আল্লাহকে… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ধর্ম বিষয়ক

সুবর্ণ বিধি, ধর্মতত্ত্ব, শাস্ত্র ও মেরুকরণ

১। সুবর্ণ বিধি ১.১। আগেই বলেছি, সুবর্ণ বিধি প্রতিটি ধর্মেরই মূল সূত্র; এমনকি একথাও বলা যায় যে, এটিই মূলতঃ ধর্ম। এটিই নুহ থেকে ইব্রাহিম পর্যন্ত, মুসা থেকে মুহম্মদ পর্যন্ত সকল নবীর জীবন-সূত্র। ধর্ম এ সূত্রটি ধর্ম প্রয়োগ করেছে তার অন্যান্য বিধি-বিধানগুলো প্রণয়নের ক্ষেত্রে। একারণে অতীতে একথা অনেকেই বলে গেছেন যে, সুবর্ণ বিধিই ধর্মের মর্মবাণী এবং… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ধর্ম বিষয়ক

সুবর্ণ বিধির পূর্ব-শর্তাবলী

১। সুবর্ণ বিধির নানারূপকে সংক্ষেপে নিচে লেখা গেল: ১.১.১। অন্যকে হিংসা করো না, যেহেতু তুমি অন্যের নিকট থেকে হিংসা প্রত্যাশা কর না। ১.১.২। অত্যাচার করো না, যেন অন্যে তোমার উপর অত্যাচার করতে না পারে। ১.২.১। অন্যের সাথে এমন আচরণ কর, যেমন আচরণ তুমি অন্যের নিকট থেকে প্রত্যাশা কর। ১.২.২। অন্যের সাথে অধিকতর ভাল আচরণ কর,… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ধর্ম বিষয়ক

সুবর্ণ বিধির তৃতীয় রূপ – শেষ অংশ

প্লাটিনাম রূপের নেতিবাচক রূপ: অত্যাচার করবে না, যেন কেউ তোমার উপর অত্যাচার করতে না পারে। (১৮) এটি নবী তাঁর বিদায় হজ্জের ভাষণে বলেছিলেন। এবার আমরা এই বচনটি পরীক্ষা করে দেখি। ১. এখানে প্রথমে এসেছে নিঃশর্ত আদেশটি, তারপর এসেছে যুক্তি/কারণ এবং প্রয়োগ একসাথে, একটি কথার মধ্য দিয়ে। এ আদেশটি এমন কোনোভাবেই ব্যাখ্যা করা সম্ভব নয়, যাতে… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ধর্ম বিষয়ক ১২

সুবর্ণ বিধির তৃতীয় রূপ – অংশ ৪

আগেই বলেছি যে, সুবর্ণ বিধির প্লাটিনাম রূপের নিজেরই আবার দুটি রূপ রয়েছে। একটি ইতিবাচক—যা স্বনির্ভর ও স্বাধীন মানুষের জন্য প্রয়োগযোগ্য প্রেম বা মমতার কথা বলে, এবং অন্যটি নেতিবাচক—যা প্রতিরক্ষার কথা বলে। এখন দেখা যাক এ রূপ দুটি কিভাবে প্রকাশিত হয়েছে। প্লাটিনাম রূপের ইতিবাচক রূপ “হে বিশ্বাসীগণ! তোমরা যা অর্জন কর বা আমরা পৃথিবী থেকে তোমাদের… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ধর্ম বিষয়ক

সুবর্ণ বিধির তৃতীয় রূপ – অংশ ৩

মানসিক অবস্থা সুবর্ণ ও রুপালি রূপে পথের দিশাটি পেতে হচ্ছে আমার মনের প্রত্যাশার বিষয় থেকে, তাও আবার অপরের নিকট থেকে প্রত্যাশা, যা কিনা স্বাবলম্বীর জন্য দারিদ্র্যের নির্দেশক। এ প্রত্যাশা হলো অন্যের নিকট থেকে দুঃখ, যন্ত্রণা, ক্ষতি থেকে মুক্তি; এবং অন্যের নিকট থেকে নিজের জন্য শান্তি, সুখ, আনন্দের প্রত্যাশা। এর প্রয়োগ জনিত ফলা হলো আমার পক্ষ… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ধর্ম বিষয়ক ১৪

সুবর্ণ বিধির তৃতীয় রূপ – অংশ ২

রুপালী রূপের পরিণতি সন্ন্যাস জীবনে সুবর্ণ বিধির রুপালি রূপটি অনুসৃত হয়। তবে এটিকে নিয়ে যৌক্তিকভাবে এগোলে কোথায় গিয়ে পৌঁছতে হয় তা পরীক্ষা করে দেখা যাক। এ বিধিটি যেহেতু নেতিবাচক তাই এখানে আমি মনের অবস্থা দেখাতে ‘হিংসা’ ও তার প্রয়োগ দেখাতে ‘ক্ষতি’ পদ দুটো ব্যবহার করছি। মনে হিংসা বলতে আমি এখানে হিংসা বোধকে বুঝচ্ছি, আঘাত করাকে… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ধর্ম বিষয়ক

সুবর্ণ বিধির তৃতীয় রূপ – অংশ ১

আদি কাল থেকেই মানুষ মহৎ জীবনের নানা চিত্রকল্প তৈরি করে চলেছে, এবং প্রতিটি আদর্শ জীবনের জন্য নীতিও নির্ধারণ করা হচ্ছে। একটি মডেল হল সন্ন্যাস। সন্ন্যাসী বিচ্ছিন্ন দ্বীপের মত ও সামাজিক পরিমণ্ডলে অনেকটাই নিষ্ক্রিয়। তিনি কারও দুঃখ বা যন্ত্রণার কারণ হন না, আবার সকলের সাথে শক্ত বন্ধনে আবদ্ধ হন না। তিনি দুঃখের জগতে আরও দুঃখের উৎস… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ধর্ম বিষয়ক ১২

পিরামিড থেকে তাজমহল এবং তারপর

মৃতরা নিজের সমাধি গড়ে অনন্তকাল বেঁচে থাকতে চায়; আর সমাধি ও মৃতদেহের ভার বইতে হয় জীবন্ত মানুষকে নিজ জীবনের রিক্ততা ও বঞ্চনার মধ্য দিয়ে। অনন্ত জীবনের প্রত্যাশায় গড়ে ওঠে পিরামিড আর তাজমহল। পিরামিড ও তাজমহল অহংকারী আকাঙ্ক্ষার চূড়ান্ত প্রকাশ। দুঃখপীড়িত যন্ত্রণাক্লিষ্ট মূর্ত অস্তিত্বশীল মানুষের জীবনের চেয়ে নিজের সুখ তো অবশ্যই, এমনকি মৃতদেহটির মূল্যও এখানে অনেক… Read more »

ক্যাটাগরীঃ মুক্তমঞ্চ