প্রতিবাদের সময়ও কেউ খুন হতে পারে, পাশের জন হয়তো তখন প্রতিবাদ করবে

  টিএসএসসির রাজু ভাস্কর্যের ঠিক একশ গজ দূরে, সরোয়ার্দীর গেট থেকে দু-পা শাহবাগের দিকে হাঁটলেই অভিজিৎ রায়ের খুনের জায়গাটি। দুশ মাইল দূরে কোনো ব্লগার লেখক খুন হলেও রাজু ভাস্কর্যে প্রতিবাদী সভা হয়, আর ঠিক রাজু ভাস্কর্যের নাকের ডগায় খুন হলেও রাজু ভাস্কর্যে প্রতিবাদ সভা হয়। আশা করা যায় সামনে রাজু ভাস্কর্যের বেদীতে কেউ খুন হলেও… Read more »

অভিজিৎ বেঁচে রয় মাথা উঁচু করে আর হত্যাকারীর ধর্ম লুটায় পায়ে!

  ব্লগার অভিজিৎ রায়, যিনি আজকে মৌলবাদীদের হাতে প্রাণ হারালেন, দেশে এসেছেন জানতাম না। যেখানে অনেকেই দেশ থেকে চলে যাবার চেষ্টা করছে এবং গিয়েছে অলরেডি সেখানে একই রকম হুমকি নিয়ে একজন নিরাপদ জায়গা ছেড়ে এখানে আসবে আমি ভাবিনি। যুক্তির জবাব যারা দেয় হত্যা করে তাদেরকে ভয় করে চলি আমি। বেশীরভাগ মানুষই এমন ডরপোক। কিন্তু কেউ… Read more »

৩২ নম্বরের নিকটস্থ শিশুপার্কটি খুলবে কবে? নাকি মাদকের আখড়া হিসাবেই থাকবে?

  ৩২ নম্বর বঙ্গবন্ধুর বাড়ির কাছে, কলাবাগান লাজফার্মার অপজিটে, একটা পার্ক হয়েছে বাচ্চাদের জন্য। হয়েছে না বলে হয়েছিলো বলা ভালো। প্রায় এক বছর আগে কাজ কমপ্লিট করে খুলেও দিয়েছিলো কয়েক দিনের জন্য। ভীষণ আনন্দিত হয়েছিলাম। বাচ্চাদের খেলার জন্য এমন একটা পার্ক এত কাছে পাওয়া খুবই সৌভাগ্যের বিষয়। যে শহরে পার্ক বন্ধ করে মার্কেট করে বেড়ায়… Read more »

ক্যাটাগরীঃ প্রশাসনিক

মহানগরীতে আলোক দূষণ…বিকৃত আলোয় ঢাকা

কালকে রাতে রিকশায় উঠতে গিয়ে সিটের পেছনের টিনে লেগে ডান হাতের কনে আঙুলের উপরের গিটের আরো একটু উপরে কেটে গেলো। অল্পটুকু। কিন্তু সেখান থেকে রক্ত বের হলো। নিয়ন আলোয় রক্তের রঙ পাল্টে কালো হয়ে গেছে। আর সেই কালো রক্ত দেখে আমি ভয় পেয়ে গেলাম। আমার শরীরের সব রক্ত কিভাবে এমন ঘোরতর কালো হয়ে গেলো! রক্ত… Read more »

ক্যাটাগরীঃ মুক্তমঞ্চ

পুড়ে হাসপাতালে গেলে কেউ আমার বিকৃত মুখের শৈল্পিক ছবি তুলবে

প্রতিদিন পত্রিকায় পেট্রোল বোমা মারার এবং মানুষ দগ্ধ হবার সংবাদ দেখছি। প্রথম দিকে মনোযোগ দিয়ে দেখতাম এখন তেমন গুরুত্ব দেই না। চোখে পড়লে চোখ সরিয়ে নেই। মানুষ পোড়ার ঘটনা এত সংবাদে দেখছি যে দেখতে দেখতে ভয়ের অরুচি ধরে গেছে। কেউ দগ্ধ হলে এখন আর স্পর্শ করে না আমাকে, কষ্ট পাই না। আমিও একদিন দগ্ধ হবো… Read more »

ক্যাটাগরীঃ মুক্তমঞ্চ

জনগণ মেরে সরকার গঠন বা সরকার হটানোর আন্দোলন

পাবলিক অবরোধ ও হরতালকে পশ্চাতদেশ দেখিয়ে চলতে শুরু করেছিলো বিগত কয়েক বছর যাবত। কারণ রাজনৈতিক দল অবরোধ ও হরতালের মত যে কর্মসূচী দিচ্ছিলো তার সাথে জনগণ কোনো নিজেদের স্বার্থ খুঁজে পায় নি। যুদ্ধাপরাধীদের সুযোগ করে দেয়া, নির্বাচিত সরকার অস্থিতিশীল করা, নেতাদের পারিবারিক স্বার্থ রক্ষা, ইত্যাদি নানাবিধ দাবী-দাওয়া নিয়ে হরতাল ও অবরোধের মত কর্মসূচী জনগণের পছন্দ… Read more »

ক্যাটাগরীঃ রাজনীতি