ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

গুটি গুটি পায়ে চলে গেল আরো একটি শীত। প্রকৃতিতে পাতা ঝরার মিছিল শেষে শুরু হতে যাচ্ছে নতুনের উৎসব। দিকে দিকে আজ নতুনের পদধ্বনি । কিন্তু নেই কাঙ্খিত শ্লোগান। নেই বিজয়ের উত্থান। সামাজিক পরিবর্তন প্রতিনিয়ত হয়ে চলেছে। কিন্তু তার সেই নিজস্ব গতিশীলতা কোথায়! সবই যেন এক প্রলয়কারী মানুষ সৃষ্ট পরিবর্তন। যার প্রভাব ব্যক্তি থেকে সমাজ, সমাজ থেকে রাষ্ট্র, রাষ্ট্র থেকে ভূগোল সব ক্ষেত্রে বিরজমান। দিকে দিকে আজ সভ্যতার গল্প। গল্প উন্নয়ন, প্রবৃদ্ধি আর অগ্রগতির। তারই মাঝ অভুক্ত শত কোটি মানুষ। প্রচলিত সমাজের চোখে হয়তো এরা মানুষ নয়। যারা নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে পারে না তারা আবার কিসের মানুষ। যারা তার প্রয়োজন মেটাতে পারে না তারাতো প্রকৃত মানুষ নয়। আবার যারা কারো ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত করে তারা তাহলে কী? অবশ্য মানুষ্যশৃষ্ট সমাজে তারা মানুষই বলে পরিচিত। তাদের আছে আধিপত্ব, আছে অর্থ (লুণ্ঠিত অর্থ), আছে সম্মান। তাহলে তারাই তো বর্তমান সমাজে প্রকৃত মানুষ। এসব গোলমালে বিষয় মগজে ঢোকানোর পর আমাদের জানা প্রয়োজন- মানুষ কে? মানুষের কাজ কী? তার সরুপ কেমন? তারপরই জানা যাবে বতর্মান সমাজ ব্যবস্থায় সৃষ্টির সেরা জীব `মানুষ’ আমার কর্তব্য কী? কিন্তু সেই জানার আকাঙ্খা কই! আমরা সবাই আজ স্বাধীন। যা ইচ্ছা তাই করতে পারি। লিখতে পারি। তার থেকেও বড় কথা আমরা সবাই এখন রাজনীতিবীদ হয়েছি। সবাই আজ সমাজের প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়ে কাজ করতে চাই। কিন্তু আমার কর্তব্য কী সেটাই আমার জানা নেই! তাই তো ঝরার মিছিলের পরে নতুনের আগমনি বাত্ত্বা আসলেও সাথী আমার এলো না।