ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

১৯৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে বেলাবো উপজেলার সররাবাদ গ্রামের ৩নং সেক্টরের অকুতভয় যোদ্ধা বাঘা মুহাম্দ আলী সরকারের পুত্র নুরুল হক ( নুরু) ও আতিকুর রহমান (আতিক) যারা বীরশ্রেষ্ঠ খেতাবধারী না হয়েও লাখো মানুষের মাঝে (ভৈরবে) বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত শ্রেষ্ঠবীর।

৭১ এর ৪ঠা জুলাই ভৈরব বাজারে এক আত্মঘাতি মিশনে নেতৃত্বদেন নূরু। কিশোরগন্জের স্বনামধন্য শিক্ষক মতিয়ুর রহমানের পুত্র, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী অনার্সের ছাত্র, নুরুর ভ্রাতুসপুত্র সহযোদ্ধা আতিক ঘটনাস্থলেই শহীদ হন। জীবন নিয়ে পালিয়ে যান সৈনিক মোহন। মারাত্মক আহত অবস্থায় ধৃত হন নূরু। পাক বাহিনী ও তাদের দোষরেরা ধরে নিয়ে যায় আহত নূরকে। আশুগন্জে মেঘনা পাড়ে নির্মমভাবে গুলি করে হত্যা করে নুরুকে, বেয়নেট খুছিয়ে খুছিয়ে নিশ্চিত করে তার মৃত্য।

ভৈরবে প্রকাশ্যদিবালোকে মমতাজ পাগলার আস্তানায় হানা দিয়ে নিজের জীবনের বিনিময়ে রক্ষা করে বহূ ভৈরববাসীর প্রাণ। জীবনের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের জন্য লড়ে যান নূরু, হাজী আসমত কলেজের ছাত্র, ছাত্রলীগের এ উদিয়মান নেতা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র আতিক. তাদের অসামান্য আত্মত্যাগের জন্য কোন উপাধিতে ভূষিত করা হয়নি। তারা শুধু বঙ্গবন্ধুর ঘোষনায় শ্রেষ্ঠবীর, প্রকৃত দেশপ্রেমিক। এতটুকু সান্তনা নিয়েই বেচে আছেন স্বজনেরা।

ভৈরবে নুরু-আতিক পৌর গ্রহন্থাগার ও কিশোরগন্জে আতিক স্মৃতি জাদুঘর রয়েছে বলে জনশ্রুতি আছে। তেমন উল্লেখযোগ্য কোন কর্মসূচি আজো আমাদের চোখে পড়েনি। ভৈরবে এই অসামান্য আত্মত্যাগের জন্য তাদের স্মরণে স্থানীয় উদ্যোগে কিছু কর্মসূচি থাকা উচিত বলে বোদ্ধামহল মনে করেন। নূরুর জেষ্ঠ্য ভ্রাতা সামরিক বাহিনীর অবসর প্রাপ্ত একজন চীফ রিক্রুটিং অফিসার কর্নেল এম আলাউদ্দিন জানান, নূরু-আতিক এর অবদান শুধুমাত্র রাজনৈতিক কারনে এতদিন অবহেলিত হয়েছে.

বঙ্গবন্ধুর হৃদয়স্পর্শকারি সহযোদ্ধা নূরু-আতিকের কৃতিত্বের কথা স্মৃতিচারণ করা ছাড়া প্রবাস থেকে কি বা করার আছে। বঙ্গবন্ধুকে ইতিহাসের একক ও অবিসংবাদিত নেতা আর নুরু-আতিক তারই হৃদয়স্পর্শকারি দুজন যোদ্ধা, নাইবা থাকলো তাদের কোন খেতাব!

লেখকঃ সভাপতি, বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব আলবার্টা ও বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, কানাডা ইউনিট কমান্ডের নির্বাহী সদস্য, এডমোনটন সিটি নিবাসী। ফোনঃ ১ (৭৮০) ২০০-৩৫৯২ এবং (৭৮০) ৭০৫-০১১৭…

slide