ক্যাটেগরিঃ প্রবাস কথন

minister

 

এডমন্টনে ঘৃণাত্মক আক্রমনের শিকার আনামুর মিয়াকে নিয়ে বাংলাদেশ প্রেসক্লাব সেন্টার অব আলবার্টা এর সভাপতি, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, কানাডা ইউনিট কমান্ডের নির্বাহী সদস্য দেলোয়ার জাহিদ আলবার্টা পার্লাম্যান্ট ভবনে শিক্ষামন্ত্রী ইগান এর সাথে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করেন।

শিক্ষামন্ত্রী ইগান আলোচনার শুরুতে আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করেন এবং এ ধরনের সহিংসতার নিন্দা করেন।

প্রেসক্লাব সভাপতি দেলোয়ার জাহিদ এডমন্টনে ক্রমাগত সংহিংসতা বৃদ্ধির ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি কানাডায় কোন ধরনের আক্রমনের শিকার মানুষ কীভাবে বর্ণবৈষম্যের মুখোমুখি হন তা তুলে ধরে বাংলাদেশী অ্যালবার্টনদের অধিকাংশই শান্তিপ্রিয় ও পরিশ্রমী লোক বলে দাবি করেন। তিনি একটি সমৃদ্ধ সমাজ গড়ে তোলার জন্য সরকারের সক্রিয় সহযোগিতা কামনা করেন।

দেলোয়ার জাহিদ এক বিবৃতিতে এ ধরনের সংহিংসতার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে কমিউনিটির সকলকে সতর্কভাবে চলাফেরার পরামর্শ দিয়েছেন। এডমন্টন (উত্তর) সিটি পুলিশ সুপারের সাথেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনার উদ্যোগ নিয়েছেন।

আনামুর মূল ঘটনার আদিঅন্ত শিক্ষামন্ত্রী ইগানকে অবহিত করেন এবং একটি লিখিত স্মারক হস্তান্তর করেন। এডমন্টন সিটির ডাউন টাউন এলাকায় তিনজন শ্বেতাঙ্গ যুবক স্থানীয় একটি ক্লাব থেকে বের হয়ে অকারনে আনামুরের উপর আক্রমণ চালিয়ে তাকে রক্তাক্ত জখম করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আনামুরকে হাসপাতালে প্রেরণ করে। চোখের পার্শ্বে কেটে যাওয়ায় সেখানে ৬টি সেলাই দেয়া হয়েছে। এডমন্টন পুলিশ মামলাটি নথিভুক্ত করে বিষয়টির উপর জোর তদন্ত চালাচ্ছে।

আলোচনান্তে শিক্ষামন্ত্রী তার বর্ণবৈষম্য বিরোধী প্রকল্প কাজে সহযোগিতার আহ্বান জানান। এডমন্টনে ঘৃনাত্মক আক্রমণের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশ প্রবাসীরা খুবই উদ্বিগ্ন।