ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) বাংলাদেশের প্রথম ইলেক্ট্রিক ভোটিং সিস্টেম যা জনমনে বিভিন্ন শংকার সৃস্টি করে আর বিরোধীদলতো আছেই বরাবরের মতো এই ইলেক্ট্রিক ভোটিং সিস্টেম এর সরাসরি বিরোধী। আমাদের দেশে কবে হবে কোন ভাল কাজকে বিরোধীদল ভাল কাজ বলে সুনাম করবে?

ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)প্রথমবারের ব্যবহার করেন চট্রগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের কয়েকটি কেন্দ্রে যা সফল ভাবে শেষ করেন। এতে ভোটাররা যতেষ্ট সাড়া দেয়। ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের ফলে ঐ সকল কেন্দ্রের ফলাফল খুব দ্রুত দিতে সফল হয় নির্বাচন কর্মকর্তা। এতে প্রথমবারের ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)ব্যবহারে সফল হন বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন।

পরবর্তীতে ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করেন নারায়নগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের কয়েকটি কেন্দ্রে যা সফল ভাবে শেষ করেন। এতেও ভোটাররা যতেষ্ট সাড়া দেয়। নারায়নগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের পর ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)ভোটারদের কাছে যতেষ্ট গ্রহনযোগ্যতা পায়।

সর্বশেষ ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করেন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। এই নির্বাচনের সকল কেন্দ্রে ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করেন এবং সফল ভাবে শেষ করেন। এতেও ভোটাররা যতেষ্ট সাড়া দেয় এবং উৎসবের সাতে ভোট প্রদান করেন। ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের ফলে নির্বাচনের সকল কেন্দ্রের ফলাফল খুব দ্রুত দিতে সফল হয় নির্বাচন কর্মকর্তা। বর্তমান বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সর্বশেষ নির্বাচন হিসেবে যতেষ্ট সফল হয়।

এতে কি বোঝা যায়না বাংলাদেশের জনগন ইলেক্ট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর প্রতি যতেষ্ট আস্তা চলে এসেছে? আমাদের দেশের রাজনৈতিক দলগুলো কবে ভাল কাজে একাত্য হবে এবং জনগনের সেবার প্রতি একটু সুদৃষ্টি দেবে? আমরা কি বিরোধীদলের প্রতি একটু সুদৃষ্টি আশা করতে পারিনা? আশা করি দেশের সকল রাজনৈতিক দলগুলো একাত্য হবে এবং জনগনের কথা চিন্তা করে তত্তাবধায়ক সরকার ইস্যু এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ জাতীয় নির্বাচনের আগে সমাধান করবে।