ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

গত ১ জুন নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের সংগঠন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন দক্ষতা পরীক্ষা ছাড়াই ২৪ হাজার ৩৮০টি লাইসেন্স দেওয়ার জন্য আবেদন করেছে। ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলীর সঙ্গে আবেদনে প্রতিস্বাক্ষর করেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান।

যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আবেদনটি আমার কাছে আছে। ন্যূনতম পরীক্ষা নিয়ে কীভাবে লাইসেন্স দেওয়া যায়, সে বিবেচনা করছি।’ ২০০৮ সালের নভেম্বর মাসে শ্রমিক সংগঠনের তালিকা ধরে পেশাদার লাইসেন্স দেওয়া বন্ধ করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার। কিন্তু বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর এই আদেশ অমান্য করে পরীক্ষা ছাড়া আবার লাইসেন্স দেওয়া শুরু হয়।

তা হলে বোঝা যাচ্ছে তত্ত্বাবধায়ক সরকার অসাংগঠনিক কাজ করেছিলেন আর নির্বাচিত সরকার তা শুধরিয়ে সাংগঠনিক কাজ করছেন, আর তার নায়ক শাজাহান খানের মত নায়কেরা। উপরের প্রতিবেদন থেকে এটা স্পষ্ট , এই অনিয়ম যোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের সবার জানা। তার মানে অনিয়মকেই তারা প্রশ্রয় দিয়ে লালন পালন করছেন ? আমাদের সরকারের বিজ্ঞ/দক্ষ/ নীতিবান কর্মকতারা কি এই অনিয়ম রোধের ব্যাপারে কর্মক্ষমতা প্রদর্শন করার সাহস রাখেন না ????? জি হুজুর বলেই, মাথা নত করেই জীবন পার করবেন ???????? হায়রে প্রশাসন !!!!!!!!!!!