ক্যাটেগরিঃ কৃষি

বরবটি বাংলাদেশের একটি পুষ্টিকর সবজি। এতে প্রচুর পরিমাণে শর্করা রয়েছে। তাছাড়া বরবটিতে যথেষ্ট পরিমাণে প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, লৌহ ও বিভিন্ন প্রকার ভিটামিন থাকে। দেহের পুষ্টি সাধনে এসব পুষ্টি উপাদানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।

বরবটি গাছ দেখতে অনেকটা শিম গাছের মতো লতানো ও ঝোপাকৃতি। গাছের বর্ণ সবুজ থেকে বেগুনি। পাতা ত্রিপত্রকী এবং ফুল সাদা। পত্রকড়্গে নাতিদীর্ঘ দণ্ডের আগায় ২-৩টি শুঁটি বা ফল ধারণ করে। বরবটির শুঁটির ফল সরম্ন ও লম্বা (১০-১০০ সেমি. ) এবং রঙ সবুজ বা বেগুনি, আবার কখনো কখনো সাদাটে হয়। ফল পাকলে বীজের মধ্যবর্তী অংশ সঙ্কুচিত হয়ে আসে এবং বীজের অবস্থান সুস্পষ্ট হয়ে ওঠে।

মানবদেহের ক্ষয়পূরণ ও বৃদ্ধি সাধনের জন্য প্রোটিন একান্ত প্রয়োজন। এর অভাবে শিশু ও কিশোর-কিশোরীর দৈহিক বৃদ্ধি ও মানসিক বিকাশ ব্যাহত হয় এবং পূর্ণবয়স্ক লোকের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস পায়। প্রোটিনজনিত অপুষ্টির দরুন মানুষ কৃশকায়, দুর্বল এবং বুদ্ধি বৃত্তির দিক দিয়ে অপটু হয়। বাংলাদেশের মানুষের খাদ্যে প্রোটিনের ঘাটতি প্রকট। তাই প্রোটিনের চাহিদা পূরণে আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় বরবটি, শিম, মটরশুঁটি এসব প্রোটিন জাতীয় সবজি খাওয়ার প্রতি অধিক গুরুত্ব দিতে হবে। তবে ভাতের সাথে পর্যাপ্ত পরিমাণে বরবটি মিশিয়ে একত্রে আহার করলে ভাতের প্রোটিনের পুষ্টিমূল্য বেড়ে যায়। ভাতের সাথে যতবেশি পরিমাণ বরবটি ও অন্যান্য প্রোটিন জাতীয় শাকসবজি খাওয়া যায়, দেহ তত কার্যকরীভাবে ভাতের প্রোটিন পরিপক্ব করতে পারে। তাই গর্ভবতী ও প্রসূতি মা এবং বাড়নত্ম বয়সের শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের সুস্বাস্থ্যের জন্য বরবটি অত্যনত্ম উপকারী সবজি। আহার উপযোগী প্রতি ১০০ গ্রাম বরবটিতে রয়েছে ৯.০ গ্রাম শর্করা, ৩.০ গ্রাম প্রোটিন, ০.১৪ মিলিগ্রাম ভিটামিন-বি-১, ০.০৩ মিলিগ্রাম ভিটামিন-২,৩৩ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ৫.৯ মিলিগ্রাম লৌহ ও ৫০ কিলোক্যালরি খাদ্যশক্তি। দেশী শিম ও মটরশুঁটির তুলনায় বরবটিতে অধিক পরিমাণে ভিটামিন বি-১ (থায়ামিন) রয়েছে। শর্করা জাতীয় খাদ্যের বিপাকের জন্য ভিটামিন বি-১ প্রয়োজন। তাছাড়া ভিটামিন বি-১ স্নায়ুতন্ত্রকে সবল ও স্বাভাবিক রাখে এবং দেহের স্বাভাবিক বৃদ্ধিসাধনে সাহায্য করে। ভিটামিন বি-১ এর মারাত্মক অভাব হলে বেরিবেরি রোগ হয়। এ রোগে স্নায়ুবিক দুর্বলতা দেখা দেয়। ফলে ধীরে ধীরে মানসিক অবসাদ ও হজমশক্তি লোপ পায় এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দেয়। তাই খাদ্য তালিকায় যথেষ্ট পরিমাণে বরবটি, দেশী শিম ও মটরশুঁটিসহ অন্যান্য ভিটামিন বি-১ সমৃদ্ধ খাদ্য অনত্মর্ভুক্ত করতে পারলে এ রোগের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

মটরশুঁটির চেয়ে বরবটিতে বেশি পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে। যেখানে প্রতি ১০০ গ্রাম মটরশুঁটিতে আছে ২৬ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম সেখানে বরবটিতে থাকে ৩৩ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম। বাড়নত্ম শিশুর দেহের হাড় ও দাঁত গঠনের জন্য প্রচুর ক্যালসিয়াম দরকার। এ ছাড়া সনত্মানকে বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় প্রসূতি মায়ের খাবারে যথেষ্ট পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকা প্রয়োজন। আবার বরবটিতে দেশী শিম ও মটরশুঁটির তুলনায় অনেক বেশি পরিমাণে লৌহ পাওয়া যায়। দেহের পুষ্টির জন্য লৌহ অতি প্রয়োজনীয় একটি পুষ্টি উপাদান। লৌহের অভাব হলে শরীরে অপুষ্টিজনিত রক্তশূন্যতা রোগ দেখা দেয়। ছোট ছেলে-মেয়েরা এবং গর্ভবতী ও প্রসূতি মায়েরা অতিসহজেই এ রোগের শিকার হয়। কাজেই শিশু, কিশোর-কিশোরী এবং গর্ভবতী ও প্রসূতি মায়ের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় পর্যাপ্ত পরিমাণে বরবটি থাকা অপরিহার্য।

অপুষ্টি বাংলাদেশে একটি মারাত্মক জাতীয় সমস্যা। এ দেশের অধিকাংশ মানুষই অপুষ্টির শিকার। তবে শিশু, কিশোর-কিশোরী ও মহিলারাই বেশি অপুষ্টিতে ভুগছে। বাংলাদেশে ভিটামিন ‘এ’র অভাবে অনেক শিশু (৬ বছরের নিচে) অন্ধ হয়ে যায়। তাছাড়া এদের প্রায় অর্ধেক প্রোটিনের অভাবে প্রথম বছরেই মারা যায়। অথচ শিশুকে নিয়মিত পর্যাপ্ত পরিমাণে সস্তা দামের গাঢ় সবুজ ও হলুদ রঙের শাকসবজি খাওয়ালে অপুষ্টির হাত থেকে তাদের সহজে রড়্গা করা সম্ভব। তাই দেহের পুষ্টিহীনতা দূর করে সুস্থ-সবল জীবনের জন্য শিশু ও পূর্ণ বয়স্ক লোকের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় বেশি করে বরবটি এবং অন্যান্য পুষ্টিসমৃদ্ধ শাকসবজি থাকা একান্ত আবশ্যক।

তথ্যসূত্র: মো. আবদুর রহমান, উপ-সহকারী কৃষি অফিসার, উপ-পরিচালকের কার্যালয়, কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর, খুলনা

মন্তব্য ৬ পঠিত