ক্যাটেগরিঃ নাগরিক সমস্যা

 

বাংলাদেশের মূল ভূখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ সন্দ্বীপের যোগাযোগ ব্যবস্থার মধ্যে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা বড়ই করুন অবস্থা ধারন করেছে । উপজেলার সবচেয়ে অবহেলিত ইউনিয়ন দক্ষিন সন্দ্বীপের সারিকাইত ইউনিয়নের গ্রামীণ জনপদ গুলোর অবস্থা এই বর্ষায় জনসাধারণের চলাচলের একদম অনুপযোগী হয়ে পড়েছে । সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে এই ইউনিয়নের বেশির ভাগ রাস্তা গুলো ভরে আছে খাদা খন্দক আর বিশাল বিশাল কাদা মাটির গর্তে । উক্ত ইউনিয়নের ব্যস্ততম সড়ক তথা দক্ষিন সন্দ্বীপের বন্দর খ্যাত সারিকাইত বাংলাবাজার থেকে কাজী পাড়া তেমাথা পর্যন্ত রাস্তাটির বেহাল অবস্থার কারনে দীর্ঘ দিন যাবৎ এই এলাকার বিশ হাজার মানুষ চরম ভোগান্তিতে ভুগছে । এলাকার ব্যাবসা বাণিজ্যের আমদানি রপ্তানির অন্যতম এই সড়কটি দীর্ঘদিন যাবৎ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে উন্নয়নের বিষয় হলেও এই পর্যন্ত কোনো কাজই করতে পারেনি কোনো জনপ্রতিনিধি । দক্ষিণ সন্দ্বীপের ব্যবসা-বানিজ্য, কৃষি পণ্য, মৎস্য সামগ্রী আনা নেওয়ার এক মাত্র মাধ্যম এই সড়কটি সন্দ্বীপের ব্যবসা-বানিজ্য সম্প্রসারণে এক গুরত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখছে। ১৯৯৬ সালে স্থানীয় এম পি দ্বীপ বন্ধু মুস্তাফিজুর রহমানের আমলে সামান্য কিছু রাস্তা পাকাকরণ হলেও এর পরে আর কোনো কাজই হয়নি এই রাস্তাটির ।এই ইউনিয়নের এক, দুই ও পাঁচ নং ওয়ার্ডের সড়ক গুলোর চিত্র যেন অজপাড়া কোন দ্বীপাঞ্চল। নেই কোন উপযুক্ত সড়ক, নেই কোন কালভার্ট বৃষ্টি হলেই রাস্তায় হাঁটু কাদা পানি। এই ব্যপারে স্থানীয় নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আবদুল মালেক লেদুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অবশ্যই তার সাধ্য মতো উপজেলা থেকে উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে তিনি এই রাস্তাটির উন্নয়নের কাজ করবেন । এই বিষয়ে সন্দ্বীপ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল হাই আল মাহমুদ এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাগর ভাঙ্গণ কবলিত ইউনিয়ন সারিকাইত সন্দ্বীপের অন্যান্য ইউনিয়ন থেকে উন্নয়নে পিছিয়ে, আগামীতে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানের মাধ্যমে অত্র এলাকার উন্নয়নের যথেষ্ঠ উদ্যেগ নেওয়া হবে। দুঃখ দুর্দশাগ্রস্ত এই এলাকার মানুষের দাবি অবিলম্বে যেন এই রাস্তাটির উন্নয়নের জন্য জনপ্রতিনিধিরা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করে ।