ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

শেষ মুহূর্তে বি এন পি নাসিক নির্বাচন বর্জন করাতে অনেকের মত আমিও বেশ অবাক হয়েছি । সবাই প্রশ্ন করছেন কেন বি এন পি এমন সিদ্ধান্ত নিল? আর এহেন সিদ্ধান্ত ভূল নাকি সঠিক এটা নিয়েও অনেক আলোচনা জমে উঠেছে। আমার কথা হল এটা ছাড়া বি এন পি’র আর কোনও অপশন কী ছিল ?

নাসিক নির্বাচনে মূল প্রতিযোগিতায় ছিলেন আইভি, তৈমুর এবং সন্ত্রাসের গড ফাদার শামীম। আইভি এবং শামীম উভয়েই আওয়ামি ঘরাণার রাজনীতি করেন তাই আওয়ামি ভোট দুই ভাগে ভাগ হয়ে যাবে এটা ছিল দিনের আলোর মত পরিষ্কার এবং দ্রুব তারার মত সত্য। এতে বি এন পি সমর্থিত প্রার্থী খন্ডিত আওয়ামি ভোট এর কারণে বিজয়ী হয়েও যেতে পারেন এমন অংক অনেকের মত তৈমুর নিজেও কষে থাকবেন।আওয়ামি ঘরণার দুই জন প্রতিযোগী থাকার ফলে এই ঘরণার ভোট বি এন পি’র পক্ষে যাবে এটা কোনও পাগল ও চিন্তা করবে না। কিন্তু শেষ মুহূর্তে তৈমুর নির্বাচন বয়কট করাতে বি এন পি ঘরণার ভোট যে আইভি’র পক্ষে গেছে এতে কোনও সন্দেহ নাই।

কথা হল নারায়ণগঞ্জে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বি এন পি’র কত ভোট আছে এবং সেই ভোট খন্ডিত আওয়ামি ভোট ব্যাংক কে হারাতে সক্ষম কী না ? আসলে এই প্রশ্নের কোন নির্ভরযোগ্য উত্তর বি এন পি হাই কমান্ড এর কাছে ছিল না। যদি বি এন পির ভোট ব্যাংক খন্ডিত আওয়ামি ব্যাংক কে হারাতে সক্ষম না হয়ে থাকে তাহলে বি এন পি এম্নিতেও হারতো বরং তাতে চূন কালি একটু বেশি পড়তো। কারন তখন এটা প্রমান হয়ে যেত যে, লং মার্চ এর নামে সারাদেশে বি এন পির পক্ষে যে গনজোয়ার এর কথা বলা হচ্ছে সেটা আদৌ ঠিক নয়।

একই সুত্র অনুযায়ী আওয়ামী সমর্থিত প্রার্থী জিতে গেলে সেটা যদি শামীম ওসমান হতেন তাহলে তিনি নারায়ণগঞ্জে বি এন পি’র অস্তিত্ত বিলুপ্ত করে দেবার প্রয়াসে লিপ্ত হতেন এতে কোন সন্দেহ নাই। আর যদি আইভী জিতে যেতেন সেক্ষেত্রে এখন যেটা হল সেটাই হত। সুতরাং, খণ্ডিত আওয়ামী ভোটের কাছে হারার লজ্জার চেয়ে নির্বাচন বয়কট এবং অবধারিত হার অনেক দিক দিয়েই বি এন পি’র জন্য সুবিধাজনক ছিল। বরং এর মাধ্যমে আইভি’র বিজয় নিশ্চিত করে শামীম ওসমান এর অবস্থান দুর্বল করে দেয়াটা বি এনপির ভবিষ্যৎ এর জন্য ভালই হল বলতে হবে।এতে তৈমুর ব্যাক্তিগত ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও বি এন পি’র কিছুটা লাভ হয়েছে। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীর আশীর্বাদ পুষ্ট শামীম ওসমান এর রোষানল বলে কথা। ভোটের যে ফলাফল তাতে মনে হয়, তৈমুর এম্নিতেও হারতেন আর শামীম এর সাথে আআইভি’র ব্যাবধান আরেকটু কম হত। যাই হোক সেইফ প্লে’র জন্য বি এন পি কে ধন্যবাদ।