ক্যাটেগরিঃ ফিচার পোস্ট আর্কাইভ, স্বাধিকার চেতনা

সবার সহযোগীতায় স্বাধীনতার ৪০ বৎসর পর ঢাকার আগারগাঁও-এ নির্মিত হতে যাচ্ছে পূর্ণাঙ্গ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর। যে জাদুঘর আমাদের স্বাধীনতার গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসকে সঠিক ও সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করবে বর্তমান ও আগামী প্রজন্মের কাছে। এর মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে পারবে আমাদের আগামী প্রজন্ম। গত ৪ঠা মে-২০১১ইং নতুন এই মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন বাংলাদেশ সরকারের মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পর থেকে খুব দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে নতুন এই মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের নির্মাণকাজ। আসুন আমরাও এই মহৎ কাজে নিজেদের অংশগ্রহণটা নিশ্চিত করি। আমরা ব্লগাররা মিলে কিনে নিই ১টি বা ২টি প্রতীকী স্বারক ইট। প্রতিটি প্রতীকী স্মারক ইটের মূল্য দশ হাজার টাকা। ১০০, ২০০, ৫০০ বা ১০০০ টাকা দিয়ে আমরা সবাই মিলে ব্লগের প্ল্যাটফরম থেকে এই কাজটি করতে পারি খুব সহজেই। আসুন আমরা বিডিনিউজ২৪ডটকম.ব্লগের ব্লগাররা “ব্লগার উদ্যোগ-বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম.ব্লগ” নামে ১টি বা ২টি ১০,০০০/- টাকা মূল্যমানের প্রতীকী ইট কিনে আমাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করি । যেহেতু এই উদ্যোগটি যৌথভাবে বিডিনিউজ২৪ডটকম.ব্লগের ব্লগাররাই করবে তাই এই নামেই ইটটি কেনা যুক্তিযুক্ত, কী বলেন আপনারা?

আমার প্রস্তাব থাকবে আইরিন সুলতানা টাকা সংগ্রহের কাজটি করবেন। যারা মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের প্রতীকী ইট কেনায় অংশ নিতে চান তারা নীচের মাধ্যমগুলো ব্যবহার করে অর্থ প্রেরণ করতে পারেন:-

আইরিন সুলতানা
ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন, ব্র্যাক ব্যাংক, উত্তরা শাখা / সুন্দরবন কুরিয়ার, উত্তরা শাখা
ফোন নং-

>>> অনুগ্রহ করে অর্থ প্রেরণ করার পর পর বিস্তারিত জানিয়ে এই ব্লগে একটি মন্তব্য করুন, একই সাথে ব্যক্তিগতভাবে অর্থ সংগ্রহকারীকে একটি মোবাইল বার্তা পাঠিয়ে দিন। অর্থ সংগ্রহকারীও এই পোস্টে মন্তব্য করে অর্থ সংগ্রহ নিশ্চিত করবেন। ফলে সর্বমোট সংগৃহিত অর্থের আপডেট রাখা সম্ভব হবে।

বিশাল পরিমাণ অর্থ সংগ্রহের ব্রত নয়, তাই অর্থ সংগ্রহের জন্য দীর্ঘ সময় রাখা হচ্ছে না। এটি একটি প্রতীকী উদ্যোগ, যেন অপরাপর ব্যক্তিরাও উৎসাহিত হয়ে এগিয়ে আসেন। তাই একক ব্যক্তির (ব্লগারের) নিকট হতে বড়/মোটা অংকের অর্থের চেয়ে, অধিক সংখ্যক ব্লগারের সমষ্টিগত সংগ্রহই উদ্দেশ্য থাকবে। যেমন, একজন ১০ হাজার টাকা প্রদান না করে ১০ জন ১ হাজার টাকা প্রদান করুক, এই সম্মিলিত অবস্থানই প্রত্যাশিত। সংগৃহিত অর্থের পরিমাণ ১০/২০/৩০ হাজার হলে অর্থ্যাৎ ১/২/৩টি প্রতীকী ইট কেনার সামর্থ হলেই আমরা ব্লগাররা মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে অর্থ জমা করে আসব, স্মারক ইট ক্রয়ে।

সব কিছু ঠিক থাকলে আমরা আগামী ১লা ডিসেম্বর-২০১২ইং সরাসরি সেগুনবাগিচাস্থ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে গিয়ে সংগৃহিত টাকা জমা দিয়ে “ব্লগার উদ্যোগ-বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম.ব্লগ” নামে প্রতীকী ইট কেনার আশা রাখি। আপনারা সবাই সাথে থাকুন।


ছবি ::নির্মিয়মান মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের বর্তমান অবস্থা এটি::
==================================================

এছাড়া যারা নিজ নামে বা নিজ প্রতিষ্ঠানের নামে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের সাথে সংশ্লিষ্ট হতে বড় ধরনের অনুদান বা অর্থ-সাহায্যে দিতে চান তারা নির্ধারিত ফরম পূরন সাপেক্ষে নিন্মে উল্লেখিত যে কোন অংকের টাকা জমা দিতে পারেন ব্যাংকের মাধ্যমে অথবা সরাসরি সেগুনবাগিচাস্থ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের সংশ্লিষ্ট অফিসে।

➡ পৃষ্ঠপোষক সদস্য : ৫০ লাখ বা তার বেশির ক্ষেত্রে।
➡ স্থাপনা সদস্য : ১৫ লাখ টাকা।
➡ উদ্যোক্তা সদস্য : ৩ লাখ টাকা।
➡ আজীবন সদস্য : ১ লাখ টাকা।
➡ একটি প্রতীকী ইট ক্রয়: ১০ হাজার টাকা।
➡ সাধারণ সদস্য : ২ হাজার টাকা।

এছাড়া ১০ টাকা থেকে শুরু করে ৫০,১০০,৫০০, ১০০০ যে কোন অংকের টাকা নিম্নোক্ত হিসাবে জমা দেয়া যাবে।

➡ ব্যক্তিগতভাবে অনুদান বা অর্থ-সাহায্য জনতা ও ব্র্যাক ব্যাংকের নিম্নোক্ত হিসাবে জমা দেয়া যাবে:-

১. মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর নির্মাণ

এসটিডি হিসাব নং-৩৬০০০৪০৮
জনতা ব্যাংক লিমিটেড, তোফখানা রোড শাখা, ঢাকা।
(এছাড়া বাংলাদেশ ও বিদেশস্থ জনতা ব্যাংকের সকল শাখায় অর্থ জমা দেয়া যাবে)

২. মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর নির্মাণ

এসটিডি হিসাব নং-১৫০১১০১৬৫৮৬৩৭০০১
ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, গুলশান-১ শাখা, ঢাকা।
(এছাড়া ব্র্যাক ব্যাংকের সকল শাখায় অর্থ জমা দেয়া যাবে)

আপনি সরাসরি বর্তমান মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, ৫ নং সেগুন বাগিচায় নগদ বা চেকের মাধ্যমে অর্থ-সাহায্য জমা দিতে পারেন অথবা বসুন্ধরা সিটির ৭ম তলায় “দেশীদশ” ফ্লোরের যে কোন দোকানে আপনার সাহায্য নির্ধারিত ফরম পূরণ করে জমা দিতে পারবেন।

জাদুঘর ম্যানেজারের সাথে সরাসরি যোগযোগের নাম্বার:
Mahbubul Alam, General Manager (ph. no. 01731-814353)

জাদুঘরের ঠিকানা ও নাম্বার:-
Liberation War Museum
05, Segun Bagicha, Dhaka-1000, Bangladesh
Contact. no. 02-9559091 & 02-9559092
Email: mukti@citechco.net , mukti.jadughar@gmail.com

নতুন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর নির্মাণ সর্ম্পকে বিস্তারিত জানতে পূর্বে প্রকাশিত আরো কিছু লিংক:-
সবার সহযোগিতায় নির্মিত হবে নতুন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর- আপনিও এগিয়ে আসুন।
নতুন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন হলো
একটি ইট কিনুন:: আপনার প্রিয়জন অথবা প্রিয় প্রতিষ্ঠানের নামে::