ক্যাটেগরিঃ ফটো

 

যারা কোয়ান্টামতত্ত্ব বা যোগ ব্যায়াম নিয়ে চিন্তা ভাবনা করেন তারা উপরের ডায়লগটি সর্ম্পকে বেশ ভাল ভাবেই অবগত আছেন। ঢাকা শহরের যানজট নিয়ে আমার রাগ সব সময় ব্যারোমিটারের উপর দিকেই থাকে। আগারগাঁও বা মিরপুর থেকে কোন কাজে মতিঝিলের উদ্দ্যেশে বের হলে কাজটি কখনোই সময় মতো করতে পারি না শুধু মাত্র যানজটের কারনে। “সময় নিয়ন্ত্রিত” লেখা সম্বলিত একটি ননষ্টপ বাস সার্ভিসে তাড়াতাড়ি মতিঝিল যাওয়ার জন্য চড়ে বসলাম। গাড়ীতে ঢুকে গাড়ীর চেহারা মোটেই পছন্দ হলো না। বেশ লক্কর ঝক্কর এবং পুরানো, স্টীয়ারিং হুইল ও এক্সট্রা লাগনো স্পীড মিটার ও চাবির ঘর ছাড়া গাড়ীর সামনের কোন পার্টস নেই বললেই চলে। এই গাড়ী মিনিমাম ত্রিশ বৎসরের পুরানো হবে, কিন্তু বিআরটিএ রাস্তায় চালানোর অনুমতি কিভাবে দিল জানি না। আর সত্যিই ফাঁকা রাস্তা পেলে গাড়ীর ড্রাইভার কি রকম একজন অনিয়ন্ত্রিত চালক তা অনেক্ষণ আগেই বুঝে গিয়েছি। বার বার মনে হতে লাগলো কোন সময় যে গাড়ীটি রোড ডিভাইডারের উপর তুলে দিবে এই আশংকায় ছিলাম। তারপর যথারীতি ফার্মগেইট থেকে জ্যাম ঠেলে ঠেলে কারওয়ান বাজার পর্যন্ত পৌছানো। ঠিক সামনের গাড়ীটির পিছনের অংশে লেখা “রেগে গেলেন তো হেরে গেলেন” লেখাটি পড়ে পড়ে নিজেকে শান্ত রাখা চেষ্টা করে যাচ্ছি। এই হচ্ছে আমাদের প্রিয় ঢাকা শহরের প্রতিদিন কার রাস্তার অবস্থা যানজটের চালচিত্র। জানি না এই ভোগান্তি থেকে আমরা নগরবাসী কবে মুক্তি পাবো।

ছবির লোকেশান: কারওয়ান বাজার সিগন্যাল, ঢাকা। তারিখ:- ১৬/০২/২০১২ইং সময়: সকাল ১১:৫১ মিনিট।