ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 

৭ই মার্চের পর পশ্চিম পাকিস্তানিরা বাঙালিদের শাসন রাষ্ট্র ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়ার নামে আলোচনা করে কালক্ষেপণ করে তারা ২৫ মার্চ রাত্রে হানাদার বাহিনী লেলিয়ে দিল।
=>
প্রথম যারা রুখে দাঁড়ালো তারা হলো রাজারবাগের পুলিশ, প্রানপন এক অসম যুদ্ধ চালিয়ে তাঁরা এক সময় হেরে গেলেন। সারা দেশ জুড়ে শুরু হলো ২১ শতকের হত্যাযজ্ঞ।
=>
বিভিন্ন শহরে মানুষ প্রাগৈতিহাসিক অস্ত্র নিয়ে রুখে দাঁড়ালো, কিন্তু আধুনিক অস্ত্রের সামনে তা কতদিন চলতে পারে?
=>
বাঙালি জাতি তাই বলে হার মেনে নিলো না বরং গোপনে সঙ্ঘবদ্ধ হতে লাগলো, তাঁদের সমর বিদ্যা শেখালেন পুলিশ, ই পি আর আর সেনাবাহিনী। শুরু হলো চড়া গুপ্ত হামলা, যা ২ মাসের ভেতর সসস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে রূপ নেয়। দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধের পর বাঙালি জাতি ছিনিয়ে স্বাধীনতার লাল সূর্য।
=>
৯৫০০০ হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয় ১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে। শুরু হলো নতুন জাতির পথ চলা ।
=>
কিন্তু যুদ্ধ বিধস্ত দেশে এটা কোনো সহজ কাজ ছিলনা, কিন্তু সরকার যার যার অবস্থানে থেকে কাজ করে যাচ্ছিলেন সংকট থেকে উত্তরণের; কিন্তু ভাগ্য যেন বিরূপ দেশে শুরু হলো নতুন এক অপসংস্কৃতি “ছিনতাই” মানুষ বলত Hijaking.
=>
১৯৭২-১৯৭৩ আমাদের জন্য লজ্জাজনক এই পরিস্থিতি, তার ওপর গোদের ওপর বিষ ফোড়ার মত খাদ্য সমসসা, সরকার হিমসিম খাচ্ছেন। খাদ্যের জন্য চুক্তি হলো পি এল ৪৮০ কিন্তু সে খাদ্য এলো না সময় মত কারণ ভারতবিরোধী আমেরিকা চায়নি তাই। মানুষ অনাহারে মারা যাচ্ছে, ভাতের ফ্যান কিনে খাচ্ছে মানুষ, কাজ নেই ।
=>
এর ওপর শুরু হলো বাংক ডাকাতি, প্রতিদিনই প্রায় এটা চলছে, কত দিক সামলাবে সরকার।
=>
পথভ্রষ্ট যুব সমাজকে আলো দেখানোর কেউ নেই এরই মাঝে ডাকসু নির্বাচনের সুত্র ধরে মহসিন হল গেটে ৭ ছাত্র নেতা কে হত্যা করা হলো, সেটাই শুরু যেটা আজোবধি চলে আসছে। রাজনৈতিক তাত্ত্বিক সিরাজুল আলম খানের মতবাদ প্রতিষ্ঠার লক্ষে জন্ম নিল জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল। বঙ্গবন্ধুর তোষামোদকারীরা তাঁকে রাজি করলেন এলিট বাহিনী “রক্ষী বাহিনী” যার প্রধান ছিলেন জনাব তোফায়েল আহমেদ। আইন রক্ষার পাশাপাশি তারা শুরু করলেন নির্যাতন যার শিকার কম্যুনিস্ট পার্টি এবং জাসদ ।
=>
অনেক কিছুর মাঝে আমার ১৯৭৫ এ এলাম। দেশের সব পত্রিকা বাতিল করা হলো কেবল দৈনিক বাংলা, পূর্বদেশ সহ মোট ৪ টা পত্রিকা রইলো।
=>
সকল রাজনৈতিক কর্মকান্ড নিষিদ্ধ হয়ে গেল সবই হলো “বাকশাল” প্রতিষ্ঠার জন্য। মানুষ সদ্য প্রাপ্ত স্বাধীনতার অধিকার হারালো। দলের প্রবীন নেতারাই বলতে পারবেন কাদের প্ররোচনায় বঙ্গবন্ধু এমনটি করলেন।
=>
দলের প্রবীন নেতারাই বলতে পারবেন কাদের প্ররোচনায় বঙ্গবন্ধু এমনটি করলেন, তবে এটা নিশ্চিত ভাবে বলা যাই বঙ্গবন্ধুর পাশের সবাই সৎ ছিলনা তারা বঙ্গবন্ধুকে দিয়ে এমন কাজটি করিয়ে নিলেন যা বঙ্গবন্ধু বোধকরি কখনই চিনত করেননি।
=>
এই অস্থিরতার মাঝে মার্কিন রাষ্ট্র দূত জন বুস্টার ঢাকায় যিনি যেখানে গেছেন সেখানেই অবৈধ ভাবে সরকারকে ক্ষমতাচুত্ব করার রেকর্ড রয়ে গেছে। ফলশ্রুতিতে যা হবার তাই হলো, কিছু অসৎ নেতা বিক্রি হয়ে গেল, এলো ১৫ই আগস্ট ১৯৭৫ সাল সবচাইতে কালো রাত, কু পাল্টা কু আবার পাল্টা কু চলতে থাকলো।
=>
এই প্রক্রিয়াই আমরা হারালাম বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবার, অথচ এলিট রক্ষী বাহিনী বঙ্গবন্ধুর জন্য কিছু করলেন না এবং তারা সাভারে আত্ম সমর্পণ করলেন।

প্রকৃত উৎস:: কাজী তাজীম নামের এক প্রবীন ব্যক্তির ব্যক্তিগত ডাইরি থেকে সংকলিত।