ক্যাটেগরিঃ ব্লগ

 

গতকাল তার ফোনআলাপন ফাস হবার পর সারা দেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।আমাদের টকশোর মিষ্ট ভাষীনি কুখ্যাত মান্না তার চরিত্র জনসম্মুখে ফাস হয়ে গেছে। নাগরিক ঐক্যর ব্যানারে রাজনীতি করা মান্না নাগরিক ঐক্যর নামে কোন এক বিষেশ মহলের আর্দশ্ বাস্তবায়ন করতে গিয়ে তিনি নিজেই ফেসে গেলেন।তিনি তার ফোনআলাপনে এক পর্যায় সাদেক হোসেন খোকা বলেন ইউনিভার্সিটির হল দখল করতে হবে আর হল দখল করতে গেলে ছাত্র দের লাশ পড়বে তখন আন্দোলন আরও বেগবান হবে আরও বলেন ইউনিভাসিটি বন্ধ করে দিতে হবে। তিনি কি জানেন না বিশ্ববিদ্যালয় কারা পড়ে। আসলে মান্ন কি চায় টকশোতে বলে সংহিসতা বন্দ করতে হবে আর গোপনে বলে লাশ ফেলতে হবে।এ পযন্ত ৭ টি দলগড়া ও দলছুট মান্না গনতন্ত্রের ভাষা ভূলে গেলেন নাকি, এবং বর্তমান সরকারকে সামরিক অভূর্থান মাধ্যমে ক্ষমতা থেকে সড়াতে চায়।মান্না হয়তো ভূলে গেছেন সামরিক অভূর্থান মাধ্যমে ক্ষমতা গ্রহন করলে সংবিধানে লেখা আছে তাদের কি বিচার হবে। মান্না ভূলে গেলেও কামাল হোসেনের তো ভূলার কথা নয়। মান্না্ কামাল একই চরিত্র অধিকারী আমাদের তো মনে হয় কামাল হোসেনের ফোন আলাপন ফাস করা উচিত তাহলে তার চরিত্র ফাস হয়ে যাবে । আমাদের কাছে মনে বাংলাদেশের কিছু নাগরিক সমাজ বর্তমান গনতন্ত্রী পন্থী সরকারকে সড়িয়ে সামরিক শাসন আনতে চায় তাদের বিরুদ্ধে সজাগ থাকতে হবে আমাদের দেশের সাধারন সমাজকে। মান্না ও তার সহযোগীরা মিলে টকশোর মাধ্যমে সরকার বিরোধী আন্দোলন করতে চায়।তাহলে কি টকশো কে সরকার বিরোধীরা জনগনকে সম্পৃক্ত না করতে পেড়ে টকশোকে ব্যবহার করছে। বাংলাদেশের ছোট সমস্যাকে বড় করে তোলে টকশোতে যারা কথা বলে আমার তো মনে হয় টক শো বন্ধ করা উচিত।
ভারতের আন্না হাজারী আন্দোলন করে ছিলেন নাগরিক সমাজকে দূর্নীতির বিরুদ্ধে আর আন্নার আন্দোলন ছিল অহিংস সংহিস নয়। আর মান্ন চেয়েছিলেন নাগরিক ঐক্যর নামে লাশ ও সামরিক অভূর্থানের মাধ্যমে কোন বিশেষ মহল কে সহায়তা করা। তাই মান্না আর কখন আন্না হতে পারলেন না।
পরিশেষে বলা যায় যদি কর্নেল তাহেরের কোর্ট মার্শালে বিচার হয় তাহলে কেন এই কুখ্যাত মান্নার কোর্ট মার্শালে বিচার করা যাবে না। সংবিধান অনুযায়ী কোন ব্যক্তি যদি সামরিক অভূর্থানের মাধ্যমে ক্ষমতায় যেতে চায় তাহলে তার কোর্ট মার্শালে বিচার হবে। তাহলে তার কোর্ট মার্শালে বিচার হওয়া দরকার
আর তার বিচার দেখে যেন কেউ সাহস নায় সামরিক অভূর্থানের মাধ্যমে ক্ষমাতায় যেতে।