ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 
Khaleda-Jamaat-ed

ভাবখানা এমন নয় যে…
যুদ্ধাপরাধী জামায়াতের সাথে বিএনপির জন্ম জন্মান্তরের দোস্তি ভেঙ্গে গেলে প্রকৃত মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারীদের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়বে। তবু সেই আকাশ ভাঙ্গা ভাবনা থেকেই রাজনৈতিক মহলে চাওর হয়েছিল নানামুখী চাপের মধ্যে জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে বিএনপির দোস্তিতে ভাঙ্গন ধরেছে। এমনধারার ব্যাপক আলোচনার মধ্যেই গেল ২৫ জুন সোনারগাঁও হোটেলে জামায়াতের ইফতার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে সহাস্যে যোগ দিয়েছেন খালেদা জিয়া।

যুদ্ধাপরাধে দণ্ডিত জামায়াত সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ছেলে আলী আহমদ তাহকীক ও আলী আহসান মাবরুর, দণ্ডিত দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছেলে শামীম বিন সাঈদী, মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত এম কামারুজ্জামানের ছেলে হাসান ইকবাল ওয়ামী ও হাসান ইমাম, মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত আবদুল কাদের মোল্লার ছেলে হাসান জামীল এবং যুদ্ধাপরাধের মামলার আসামি পক্ষের আইনজীবী তাজুল ইসলাম ও শিশির মুহাম্মদ মনির এই ইফতার অনুষ্ঠানে এক টেবিলে সঙ্গ দিয়েছেন।

আর খালেদা জিয়াকে পাশে রেখে বৃহস্পতিবার ওই ইফতার অনুষ্ঠানে জামায়াতের নেতারা আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের বিরুদ্ধে ‘সীসাঢালা প্রাচীরের মতো’ ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানিয়েছেন।
ইফতারের আগে বক্তব্যে জামায়াতের নেতারা অভিযোগও করেন, ‘প্রশ্নবিদ্ধ বিতর্কিত বিচারপ্রক্রিয়ায় মিথ্যা অপবাদ দিয়ে জামায়াতের নেতাদের ‘ষড়যন্ত্র’ করে হত্যা করা হচ্ছে।

এসব কথায় সম্পূর্ণ একমত হয়ে মাথা নুইয়ে জামায়াতের ভাষায় কথিত সেইসব শহীদ কাদের বা কামারুর জন্য অশ্রুপাত করে প্রার্থনার বন্যা ভাসিয়েছেন বাধ্যগত কবি, অধ্যাপক, সাংবাদিক, রাজনীতিক ও অনুগত মুক্তিযোদ্ধারা।

তবে একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদের প্রাণ, ২ লাখ মা বোনের সম্ভ্রম ও বহু ত্যাগ তিতীক্ষায় জন্মলাভ করা স্বাধীন বাঙালি জাতির সামনে এখন মোরালটা কি দাঁড়াল?
It’s a Concrete Singnal that Jamat and BNP made for each other.
They are of a kind…!

এই মোরালের শীর্ষ কুশীলব যারাঃ
ক. বীর উপাধিক মুক্তিযোদ্ধা কর্ণেল অলি, সৈয়দ ইব্রাহিম, এম কে আনোয়ার, নজরুল ইসলাম খান!
খ. বর্ষিয়ান স্বভাব কবি আল মাহমুদ!
গ. সাংবাদিক সাদেক খান, শওকত মাহমুদ, আবদাল আহমদ, মাহফুজুল্লাহ!
ঘ. আদিবাসী অধ্যাপক সুকোমল বড়ুয়া, সদরুল আমিন, মাহবুবউল্লাহ!
ঙ. সাবেক বিচারপতি এফ এম আলী আসগর!
চ. কওমী মাদ্রাসাভিত্তিক মৌলভীগণ!
ছ. মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী খালেদা জিয়া!
জ. সর্বোপরি এদের সকলের দূরপ্রবাসী আধ্যাত্মিক লিডার তারেক রহমান!

এরা সকলেই জামায়াতী ছায়াতলে আশ্রয় গ্রহণ করে একাত্তরের গণহত্যা ও দেশবিরোধিতার প্রতীক মানবতাবিরোধী অপরাধীদের সাঙ্গপাঙ্গ এবং ছানাপোনাদের সাথে এক টেবিলে বসে ইফতারী ভুঁড়িভোজ শেষে কায়মনোবাক্যে নরক গুলজার করা ক্রিমিনাল কাদের মোল্লা ও কামারুজ্জামানের আত্মার ভয়াবহ যন্ত্রণা কমাতে দোয়া খায়ের করেছেন!

মহান রাব্বুল আলামিন চাহেনতো, এরাই হবেন ভবিষ্যতে দেশের কাণ্ডারি!

সেদিন নানাবেশি মৌলবাদী জঙ্গি বা ভেকধারী পেশাজীবি ক্রিমিনাল ধরতে আরক্ষা বাহিনীকে আর গলধগর্ম হতে হবে না! গোলাম আযম ছিল বাঙালি পিতা এবং তার বানানো রাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান, এই ইতিহাস পাঠ্যপুস্তকে লিপিবদ্ধ তথা সংবিধানে প্রতিষ্ঠিত হবেই হবে! আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে ভেকহীন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের ধরে ধরে পেয়ারা পাকিস্তান ও গোলাম আযম বিরোধিতার জন্য সর্বোচ্চ দন্ডে দন্ডিত করা হবে। অনুগত বা বাধ্যগত মুক্তিযোদ্ধা, কবি, রাজনীতিবিদ, অধ্যাপক ও সাংবাদিকরা বন্দুকের ট্রিগার টেনে বা পাটাতনের লিভার টেনে সেই দন্ড কার্যকরও করবেন। তালেবান বা আইএস টাইপ খেলাফতও কায়েম হবে!

এবং খালেদা ও তারেক গংরা সেদিন বায়তুল মোকাররম মসজিদ গেটে লাখো মুসুল্লির সামনে লাউড স্পিকারে ঘোষণা দেবেন, জামায়াতের সাথে বিএনপি কেবল ভোটের রাজনীতির জন্য একসাথে পথ চলে না, আমাদের আদর্শিক সম্পর্ক কষ্টিপাথরে যাচাই করা নিরেট, এক ও অভিন্ন। আমাদের মটো এক, ধর্ম এক! আমরা একই মায়ের দু’টি সন্তান!

পাদটিকাঃ তাই হোক। তবে অভিধান থেকে দেশপ্রেম, ন্যায়নিষ্ঠা, বিবেক, বোধ ও লজ্জাশরম নামের শব্দবন্ধ মুছে ফেলার জোর দাবি জানাই!

ফারদিন ফেরদৌসঃ লেখক ও সাংবাদিক
২৬ জুন ২০১৫
facebook/fardeen.ferdous
twitter/fardeenferdous