ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 

বিশ্ববাটপারদের জুয়ার আসরে যখন বাংলাদেশের গণমানুষের শ্রমে ঘামে অর্জিত টাকায় ফূর্তি হয়, তখন আমাদের লজ্জার নাসারন্ধ্ররা মাটির ধূলায় লুটায়ে গড়াগড়ি খায়। নিজেকে স্থির রাখবার অবিরাম প্রচেষ্টারা মাঠে মারা যায়। আমাদের রিজার্ভ এসময় সত্যিকার অর্থেই যাদের রক্ষা করবার কথা তাদের প্রতি এক ধরনের ঘৃণার বিবমিষা উগ্রে আসে। আমরা দেশটা আসলে কাদের কাছে গচ্ছিত রাখছি, এমন প্রশ্নরা উত্তরের খুঁজে গুমরে মরে।

তাও ভালো আপনি এখন ডিজিটাল বাংলাদেশের সব সুবিধা ভোগ করছেন এবং আপনার কাছে সব তথ্য থাকে বলে অনেক ঘুমের পরে, অনেক রাজকীয় রজনীর হিসেব নিকাশ শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফেসবুক পেইজ থেকে জানতে পারছেন, সাইবার আক্রমণে ৩৫টি ভুয়া পরিশোধ নির্দেশের ৯৫ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলারের মধ্যে ৩০টি নির্দেশের ৮৫ কোটি ডলার বেহাত হওয়া শুরুতেই প্রতিহত করা গেছে। অবশিষ্ট ১০ কোটি ১০ লাখ ডলারের মধ্যে দুই কোটি ডলার এরই মধ্যে ফেরত আনা গেছে। বাকি ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার (প্রায় ৬৩৫ কোটি টাকা) ফেরত আনার প্রয়োজনীয় প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

casino1

অর্থাৎ বাংলাদেশ ব্যাংকের দাবি, তারা তাদের ডিজিটাল কলকাঠি নাড়ায়ে আমাদের আমজনতার শ্রমে ঘামে অর্জিত রিজার্ভের ৮৫ কোটি ডলার চুরি ঠেকাতে পেরেছেন।

এই খবর শোনার পর মানি লুটের দুর্যোগ ঘনঘটারকালে ভারত ভ্রমনীয়া ও এশিয়ার শ্রেষ্ঠ গভর্ণর ড. আতিউর রহমান জিন্দাবাদ বলে যারা শ্লোগান দেবে না তারা আমাদের চির নিস্তব্ধ সুশীল সমাজের কাছে অতিশয় হীনমন্য বলেই চিহ্নিত হতে থাকবে।

যেই চীন দেশ থেকে আমরা বিলিয়ন ডলারের অস্ত্র এনে নিজেদের সার্বভৌমত্ব পাহারা দেই, নিজেদের সবচে’ বড় প্রজেক্ট পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে দেই, সেই চীন দেশের হ্যাকাররাই বাংলাদেশ ব্যাংকের সিস্টেম হ্যাক করে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউ ইয়র্কের অ্যাকাউন্ট থেকে ৮ কোটি ডলার অর্থ সরিয়ে নিয়ে এর অর্ধেকই ফিলিপাইন্সের জুয়ার আড্ডায় উড়ায়ে দিয়েছে। এই ঘটনা ফিলিপাইন্সের মিডিয়ায় বহুল প্রচার পেয়ে মাসখানেক ধরে বিশ্বব্যাপী তোলপাড় চললেও আমরা জানছি বা অনুধাবন করছি কেবল।

এরই মধ্যে খুব সঙ্গত কারণেই হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় অর্থমন্ত্রী ও গভর্ণরকে দায়ী করে তাদের পদত্যাগ চেয়েছে বিএনপি। অর্থ লোপাটের ঘটনায় গভর্নরের ব্যাখ্যাও দাবি করেছে তারা। বিশ্বে এযাবৎকালের সকল মানি কেলেঙ্কারির মধ্যে আমাদের রিজার্ভের টাকা জালিয়াতির ঘটনা যেখানে অন্যতম বিরাট চাঞ্চল্যকর ঘটনা হিসেবেই অর্থ বিশ্লেষকরা মানছেন, সেখানে আমাদের অর্থমন্ত্রী বা অর্থ সংশ্লিষ্টদের চরম নিরবতায় হতাশ না হয়ে পারা যায় না। নীতিনির্ধারকদের সকল পক্ষই যেন এই ঘটনা নিয়ে মুখে কুলুপ এটেছেন। কাজেই নিজেদের সিকিউরিটির দরজা হাট করে খোলা রাখার সুযোগে মানি লোপাটের মতো ঘটনায় বিএনপি’র দাবির সাথে দেশবাসীও নিঃসন্দেহে একাত্ম।
BB-Statement-abt-Money (1)
এখন কী জবাব দেবেন স্বাধীনতা প্রাইজ জয়ী অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত? কী জবাব দেবেন একুশে পদক জয়ী গভর্ণর ড. আতিউর রহমান?

অবশ্য আপনাদের কাছে কোনোকালেই দেশের বড় বড় অর্থ লোপাটের বিষয়েও মোক্ষম জবাব থাকে না! হলমার্কেও চেনা ভূতেরা যখন সোনালী ব্যাংকের ৩,৫০০ কোটি টাকা খেয়ে ফেলেন, এটা বড় কোনো বিষয় না বলে গলাবাজি করেন। শেয়ার বাজারের ২০ লাখ ক্ষুদ্র আমানতকারীর কয়েক হাজার কোটি টাকা চিহ্নিত কিছু মানুষের পকেটে গেলেও তাদের কেশাগ্র স্পর্শ করবার ইচ্ছাটাও আপনাদের মনে জাগ্রত হয় না! বেসিক ব্যাংকের শত কোটি টাকা হাওয়ায় মিলায়ে গেলে আপনারা দাবি করেন, এমন ছোটখাটো ঘটনা ব্যাংকিং ব্যবস্থাপনায় খুব বেশি প্রভাব ফেলবে না। আপনাদের এমন উদাসীনতা ও দায়িত্বজ্ঞানহীনতার ফসল আজকের রিজার্ভ চুরি। তো আপনারা যদি রাষ্ট্রীয় কোষাগারই পাহারা দিতে না পারেন, তবে আপনাদেরকে কেন পদপদবি দিয়ে আমাদের পয়সায় রাষ্ট্রীয় পাহারা দেয়া হবে?

আমরা নাকি মধ্যম আয়ের দেশে পৌছে গিয়ে বিরাটকিছু অর্জন করে ফেলেছি। অথচ সেই মধ্যম আয়ের দেশ নিয়ে এখন বিশ্ব মিডিয়া সংবাদ শিরোনাম হচ্ছে রোজ, বাংলাদেশের টাকা চুরির তদন্তে আমেরিকান ফায়ারআই, বানান ভুলে রক্ষা পেল বাংলাদেশের ২ কোটি ডলার, হ্যাকে হারানো অর্থের একাংশের হদিস নেই বিশ্বের কোনো ব্যাংকেই।

প্রখ্যাত আমেরিকান সাংবাদিক সিডনি জে. হ্যারিস বলতেন, Men make counterfeit money; in many cases, money makes counterfeit men. আমরা দেশের মানুষের পুকুর চুরি দেখতে দেখতেই অভ্যস্ত হয়ে উঠেছি! কাজেই এমন অতিঅভ্যস্ত মধ্যম আয়ের দেশ থেকে এই ছিটেফোঁটা টাকা পয়সা চুরি গেলে হয়ত কিছুই আসবে যাবে না! কিন্তু একদিন আমাদের ভুলে পুরো রিজার্ভই যদি দুর্ধর্ষ চোরেরা গলধঃকরণ করে ফেলে, সেদিন আমাদের পোশাককর্মী, আমাদের রেমিট্যান্সের যোগানদাতা, আমাদের একজন রিকশাওয়ালা এমনকি আমাদের একজন ভিক্ষুকেরও কী গতি হবে তা কি ভেবে দেখবেন, তথ্যের ভান্ডার ও প্রযুক্তির কারিগর উপদেষ্টারা? আমাদের রিজার্ভের লকটা শক্তপোক্ত করতে কথায় চিড়ে না ভিজিয়ে এবার অন্ততঃ কাজের কাজটা করে দেখান।

আমাদেরকে বুঝতে দিন যে, দেশের চাবিকাঠি আপনাদের মতো জেগে জেগে ঘুমিয়ে থাকা মানুষের কাছে গচ্ছিত রেখে আমরা নিশ্চিন্ত নির্ভার থাকতে পারি! দেশটাকে দয়া করে ফিলিপাইন্স বা লাসভেগাসের ক্যাসিনোর জুয়ার আসরে আর তুলবেন না। আমাদের মাথাটা হেট করে দিবেন না প্লিজ। আমরা পরাভব না মানা বাংলাদেশি এই গর্ব নিয়ে বাঁচার অধিকারটুকু আমাদের নিশ্চয় আছে, তাই না!

লেখকঃ সংবাদকর্মী, মাছরাঙা টেলিভিশন
১২ মার্চ ২০১৬
facebook.com/fardeen.ferdous.bd
twitter.com/fardeenferdous