ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 
??????????????

মালিক শ্রমিক একতা উন্নয়নের মূল কথা -এমন কথা ধনতান্ত্রিক সমাজে হরহামেশাই শুনতে পাওয়া যায়। কিন্তু শ্রমিকের অকাল বা অসময় পরিণতি কেমন তা আমাদের দেশের চেয়ে আর কে বেশী জানে? এখানে রোজ ভয়ংকর কর্ম পরিবেশে নিশ্চুপ মানবেতর কর্মজীবন যাপন করে যায় শ্রমিকেরা। যে শ্রমিকের শ্রম ও ঘামের নির্যাসে গড়ে উঠে মালিকদের স্বপ্ন-সৌধ।

অথচ নিদারুণ বিপর্যয় আর বেদনাদায়ক দুর্বিপাকে যুগে যুগে প্রান্তিক শ্রমজীবী ক্লীশে মানুষের মর্মান্তিক মুক্তি ঘটে। যাদের জীবনে আনন্দ উৎসব বলে কিছু কোনোকালেই থাকে না, তাদেরকে আগেভাবেই নানা দুর্বিপাকে ফেলে মহান ঈশ্বর তাঁর কাছে নিয়ে নেন। লোভী মালিকের হেফাজতে থেকে ধুকে ধুকে শ্রমিকের অঙ্গার হওয়ার চেয়ে এক নিমিষে কয়লা হওয়াই ঈশ্বরের কাছে হয়ত অভিপ্রেত। তবু মুনাফালোভী অর্থপিপাসু মালিকেরা শান সৌকতে ভালো থাকুক রাষ্ট্রীয় ঈশ্বরের পৃষ্ঠপোষকতায়। বাংলাদেশে এর সর্বশেষ উদাহরণ টঙ্গির বিসিক শিল্পনগরীর টাম্পাকো ফয়েলস লিমিটেড কারখানা।

১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখ শনিবার সকালে ওই কারাখানার গ্যাসলাইনের প্রধান নিয়ন্ত্রণকক্ষে ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর আগুন লেগে বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রাণহানি ও দগ্ধের ঘটনা ঘটে। বিস্ফোরণে পাঁচতলা কারখানা ভবন ও পাশের দুটি তিনতলা ভবন ধসে পড়ে। আরেকটি ছয়তলা ভবন মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

ঈদ উপলক্ষে পরদিন রোববার থেকে কারখানায় ছুটি শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু অসহায় শ্রমিকদের ভাগ্যে ঈদের ছুটি আর জোটেনি। কয়েক ডজন শ্রমিক পুড়ে মারা যাওয়ার পর ধারণা করা হচ্ছে ভিতরে বিপুল সংখ্যক শ্রমিক আটকা পড়েছে, তাদের ভাগ্যে কী ঘটেছে তা সহজেই অনুমেয়। কারণ ইতোমধ্যে কারখানাটি ভস্মিভূত হয়ে ধ্বসে পড়েছে। এমন মানবিক বিপর্যয়ে নিঁখোজ শ্রমিকদের স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠছে কারখানা এলাকা।

ঐ কারখানার বয়লার অপারেটর ইমাম উদ্দিন দাবি করেছেন, বেশ কিছুদিন ধরেই গ্যাস নিয়ন্ত্রণ কক্ষসহ কারখানার বিভিন্ন পয়েন্টে গ্যাস লিক হচ্ছিল। কারখানার মালিক ড. মকবুল ও কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানানোর পরও তারা এতে গা করেননি। যার ফল এই মানবিক বিপর্যয়।

এভাবেই মালিক বা আধিকারিদের অবহেলায় বারবার পুড়ে যায় শ্রমিকের কপাল, দেহ, মন, স্বজন, সন্তান সব। আর পুড়ে যাওয়া শ্রমিকের ফসিলে বিনির্মাণ হয় মালিকদের সুবর্ণ ভাগ্য। শ্রমিক যে বড়ই ফেলনা! তাকে দেখলেই রাজ্যের ক্ষিধে পায় মালিকের বশংবদ আগুনের। তবে তাই হোক শ্রমিক খাবারই হতে থাক। আগুন মিইয়ে গেলে রাষ্ট্রও লেলিহান আগুনকে বাতাস বরাদ্ধ করবে! শ্রমিক যাতে ভালো করে পুড়ে। ফ্রাই হয়। মনুষ্য ফ্রাই কি তবে লাট সাহেবের প্রিয় খাবার?

??????????????
বারবার এমন আগুনে মানুষের চোখে জল আসে। দু:খ ভারাক্রান্ত হন তারা। কিন্তু অমানুষের কি কিছু আসে যায়? বিগত কয়েক বছরে গাজীপুরের গরীব অ্যান্ড গরীব সোয়েটার কারখানা, পুরান ঢাকার নবাব কাটারার নিমতলী, রাজধানীর ধোলাইপাড় এলাকায় বেবি সলিউশান কেমিক্যাল কারখানা, আশুলিয়ার নরসিংহপুরে হা-মীম গ্রুপের দ্যাটস ইট নামের পোশাক কারখানা ও আশুলিয়ার তাজরিন ফ্যাশন্স এ টাম্পাকো ফয়েলস এর মতো এমনধারার ভয়াবহ কিছু অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা যেমন ছিল বিপুল, তেমনি ক্ষয়ক্ষতির মাত্রাও ছিল ব্যাপক। ঘটনা ঘটলেই বরাবরে মত গঠিত হয় তদন্ত কমিটি। কমিটিগুলো তাদের প্রতিবেদনও পেশ করে। কিন্তু এ পর্যন্তই। তারপর কি হয় তা কেউ জানে না। যারা তদন্ত করেন তাদের ইচ্ছাকৃত ভুলে যাওয়া বাতিকে সবকিছু চলে আগের মতোই।

কারণ এইদেশে ইতিহাস থেকে কেউ শিক্ষা নেয় না। তাজরিন, রানা প্লাজা বা সর্বশেষ টাম্পাকোও সেই শিক্ষা দেবে এমনটা ভাববার কোনো কারণ নেই। দেশের ধনতান্ত্রিকদের কাছে এখনো শ্রমিকের জীবন পোকা মাকড়ের চেয়ে খুব বেশি কিছু নয়। সস্থায় শ্রম পাওয়া যায় বলে অমানবিক, অনিরাপদ ও অসহায়জাতীয় সস্তার তিন অবস্থার যাতাকলে নিপতিত করে মেনবেতর জীবন যাপনে বাধ্য করা হয় শ্রমিকদের। বিপুল বিস্তারী রক্তপিপাসু পুঁজিবাদ শ্রমিককে সংগঠন, সংগ্রাম ও বিপ্লবের পথকে নিরন্তর বাঁধাগ্রস্ত করে চলে যার যার আপন স্বার্থে। কাজেই বারংবার ঘটে চলা হৃদয় বিদীর্ণ ট্রাজিক মৃত্যুর মিছিল আর নিরন্তর অঙ্গার হওয়াই বুঝি শ্রমিকের নিদারুণ নিয়তি।

আমাদের এখানকার পুঁজিবাদী অবতাররা চাল-চলনে ও কথায়-বলনে খুব সিদ্ধিপ্রাপ্ত ধর্মপুরুষ হিসেবে নিজেদের জাহির করবার প্রয়াস পান। কিন্তু সাম্যবাদের প্রাণপুরুষ মহানবী(সা.)’র এই কথাটি কি তারা জানেন অথবা মানেন, ‘মজুর, শ্রমিক ও অধীনস্থ বেতনভোগী কর্মচারীরা তোমাদের ভাই। আল্লাহ তাদের দায়িত্ব তোমাদের ওপর অর্পণ করেছেন। অতএব, যার কোনো ভাইকে তার অধীন করে দেওয়া হয়েছে, সে যেন তাকে তা-ই আহার করতে দেয়, যা সে নিজে আহার করে। যেন সেই পরিধেয় পরিধান করতে দেয়, যা সে নিজে পরিধান করে থাকে। আর তাকে যেন এমন কাজ করতে বাধ্য না করে, যা করলে সে পর্যুদস্তু হবে। আর যদি এমন কাজ করতে তাকে বাধ্য করে, তাহলে যেন সে তাকে সহযোগিতা করে।’

আমাদের এখানে অধীনস্তদের নিজের ভাই সাব্যস্ত বা সহযোগিতা করা দূরে থাক, দিনের দিন এন্তার অভিযোগ থাকলেও সেসবে কর্ণপাত করবার প্রয়োজন মনে করেন না মালিক মহাশয়েরা।

23_tongifire_amo_100916_0008
দেশের শিল্প কারখানাগুলোতে অগ্নি-নিরাপত্তা বিধানে কোনো কার্যকর উদ্যোগ নেই। ফায়ার সার্ভিসকে দুর্যোগ মোকাবেলায় সক্ষম করে তুলতেও কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয় না। টাম্পাকো কারখানার তিন চারটে ভবনে ২৫টি ইউনিট ২৪ ঘণ্টা কাজ করেও আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেনি। এমনকি আগুন লাগার কারণ জানাতে গিয়ে গোলমাল পাকিয়ে ফেলে তারা। ফায়ার সার্ভিস বলেছে বয়লার বিস্ফোরণে আগুন, আর শিল্প মন্ত্রণালয়ের বয়লার পরিদর্শন টিম বলেছে গ্যাস কন্ট্রোল রুম বিস্ফোরণে আগুন। এই যদি হয় আমাদের ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্টের বাস্তবতা তবে দেশের হাজার কোটি টাকার সম্পদ বিনাশ ও শ্রমিকের বেঘোর প্রাণহানীতে আগুনকে দায় না দিয়ে মালিকের অবহেলা বা সরকারী প্রতিষ্ঠানের অক্ষমতাকে দায়ী করাটা সমীচিন হবে।

যে কোনো ঘটনা ঘটলেই দিনরাত মিডিয়ার লাইভে হাহুতাশ হয়, পত্রিকার কলাম ভর্তি হয়ে ওঠে বিদগ্ধ চিন্তায়, টিভি স্টেশনে রাতভর চলে অবুদ্ধির ক্যাচাল। ঘটনাস্থলে খানিক পরপর এই মন্ত্রী, সেই মন্ত্রী টেলিভিশন ক্যামেরায় মুখ তাক করে এই করা হবে সেই করা হবে বলে ঘোষণার পর ঘোষণা দিয়ে যান। কিন্তু তারা যা দেন না তা হলো, সদিচ্ছা, ভালোবাসা ও কর্মনিষ্ঠা। বলার জন্য কিছু কথা বলে, মারা যাওয়া শ্রমিকদের জন্য সামান্য টাকা বরাদ্ধ করে রাজনীতির ঐতিহাসিক দায়িত্ব শেষ করেন।

তারপর আবার শ্রমিকের কারখানায় বয়লার বিস্ফোরণ হয়, গ্যাস লাইন বা শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লাগে। কারখানা বিধ্বস্ত হয়। আগুনের চিতায় শ্রমিকের শবদেহের শ্মশান রচিত হয়। শত পরিবার পথে বসে আহাজারি করে, মায়েরা কাঁদেন, সন্তান একসময় ভুলে যায় তার জনক বা জননীকে। আর মালিক বা রাষ্ট্রের সাজিয়ে রাখা নরকের পথ ধরে আমরাও পৌঁছে যাই এক গভীর ভুলের আবর্তে।

শ্রমিক সব শেষ হয়ে যাক, টাম্পাকোর নিখোঁজেরা আজীবন নিখোঁঁজ থাকুক, তাজরীনের ১১১ আত্মা অভিশাপ দিক, তবু জানবেন কোনোদিন তাজরীনের দেলোয়ার বা টাম্পাকোর মকবুলের বিচার হবে না। হাজার বছরের শোষণের মহাকাব্য একদিনে বদলাবেও না। দয়াহীন মায়াহীন এই সংসারে রবি ঠাকুরের মতোই তো সবাই দেখে চলেছে, প্রতিকারহীন শক্তের অপরাধে/ বিচারের বাণী নীরবে নিভৃতে কাঁদে!

লেখক: সংবাদকর্মী, মাছরাঙা টেলিভিশন
১১ সেপ্টেম্বর ২০১৬
twitter.com/fardeenferdous
facebook.com/fardeen.ferdous