ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

রোযা ইফতারের পুর্বে বা রোযা ইফতারের কোন সহীহ দু’আ নেই; ‘বিসমিল্লাহ’ বলে রোযাদারকে রোযা ইফতার করতে হবে। উমার ইবনু সালমা (রা) থেকে বর্নিত হাদিসে আছে নবী (সা) খাবার পুর্বে বিসমিল্লাহ বলতে আদেশ করেছেন (বুখারী/৫৩৭৬,৫৩৭৭,৫৩৭৮; মুসলিম/২০২২)

‘আল্লাহুম্মা লাকাসুমতু ওয়া আলা রিযকিকা আফতারতু’ রোযা ইফতারের দু’আ বলে প্রচলিত আছে তা সহীহ নয় (যইফ ও মুরসাল আবু দাউদ/২৩৫৮; সুনানে সগীর/১৪২৮; মিশকাত/১৭৫ পৃষ্ঠা) । উপরোক্ত হাদিস মুরসাল ও যইফ; এ হাদিসের রাবি মুয়ায বিন যহুরা রাসুল (সা) ’কে কোনো দিন দেখেননি । অথচ তিনি বর্ণনা করেছেন যে তিনি রাসুল (সা) কে উক্ত দু’আ পাঠ করতে দেখেছেন । তিনি মাযহুল অর্থাৎ অপরিচিত রাবী । এই হাদিসের অপর এক রাবী দাউদ বিন যাহারকান যইফ বা দুর্বল । আযকী (রহ) তাকে মিথ্যাবাদী বলেছেন । আলবানী (রহ) এই মুরসাল হাদিসটিকে যইফ বলেছেন । (ইরওয়াউল গলীল,হা/৯১৯)

তাছাড়া এ হাদিসের দু’আর অর্থগত দিক থেকেও সমস্যা আছে । অর্থ-‘হে আল্লাহ! আমি তোমার জন্য রোযা রেখেছিলাম এবং তোমার দেওয়া রুযি দিয়ে ইফতার করলাম’। দু’আর অর্থের দিক থেকে মনে হচ্ছে এটা ইফতার করার পরের দু’আ । যেমন বলা হয়েছে ‘ইফতার করলাম’ । তাহলে এদিক থেকেও এটি ঠিক নয় । আর তাছাড়া এই দু’আর মাধ্যমে রোযা অবস্থায় ইফতারের পুর্বে প্রত্যেক দিন আল্লাহকে মিথ্যা কথা বলা হয় । হে আল্লাহ! আমি রোযা ইফতার করলাম অথচ তখনও সে রোযা ইফতার করেনি । তাহলে বুঝা যাচ্ছে, রোযা ইফতার করার পুর্বে এই দু’আ পাঠ করলে প্রতিদিন রোযা মুখে মিথ্যা কথা বলা হয় । আল্লাহ আমাদের হক বুঝার শক্তি দিন । আমীন!

ইফতারের শেষে দু’আ
রোযাদারের ইফতার বা খাওয়া শেষ হলে আলহামদুলিল্লাহ বলতে হয় । যেহেতু পানাহার করার পরে বান্দা আল্লাহর প্রশংসা করুক এটা তিনি পছন্দ করেন (মুসলিম/২৭৩৪; তিরমিযী/১৮১৬) । এরপর নিম্নের দু’আ পাঠ করা সুন্নত । ইবনু উমার (রা) কর্তৃক বর্নিত, রাসুল (সা) ইফতার করলে এই দু’আ পাঠ করতেনঃ “যাহাবায যামা-উ অবতাল্লাতিল উরুকু আষাবাতাল আজরু ইনশাল্লাহ” অর্থাৎ পিপাসা দূরিভুত হল, শিরা উপশিরা সতেজ হল এবং ইনশাল্লাহ প্রতিদানও নির্ধারিত হল । (সহীহ আবু দাউদ/২৩৫৭; বাইহাকী সুনানে কুবরা, ৪/২৩৯; সুনানে সগীর/১৩৯০) ।

যে ইফতার করায় তার জন্য দু’আ
আব্দুল্লাহ ইবনু যুবাইর (রা) বলেন একদা নবী (সা) সা’দ বিন মুয়াযের নিকট ইফতার করে পাঠ করলেনঃ ‘আফতারা ইন্দাকুমুস সায়িমূন আকালা আ-মাকুমুল আবরা-র অসল্লাত আলাইকুমুল মালা-য়িকাহ’ (সহীহ আবু দাউদ/৩২৬৩; বাইহাকী সুনানে সগীর/১৪২৯;সুনানে কুবরা/৮১৩৫,৮১৩৬) ।