ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

শিক্ষার উন্নয়নে সরকার যখন বিভিন্ন প্রদক্ষেপ নিচ্ছে, ঠিক তখন জাতীয় বিশ্বাবিদ্যালয়ের সন্মান চতুর্থ বর্ষ পরীক্ষায় নকলের উত্সব চলছে। নোয়াখালী সরকারী মহিলা কলেজ কেন্দ্র এ বেপক আকারে নকল চলে। পূর্ণ বই সহ ধরা খেলেও পরীক্ষক কোন ধরনের শাস্তি তো দেননি । অন্তত তার কাগজ ও আটক করেননি। নোয়াখালী সরকারী কলেজ ছাত্র লীগের এক নেতা তার পরিচিত ছাত্র এর দিকে নজর রাখার জন্য বলেন। তাই ব্যাবস্থাপনা বিভাগের ওই ছাত্র বই খুলে লিখলেও পরীক্ষক তাকে দেখে ও না দেখার বান করেন, যা ছিল খুব ই দৃষ্টিকটু । অপর পরীক্ষক তার কাগজ আটক করলে ওই ছাত্র হল থেকে মোবাইল ফোনে নেতার কাছে ফোন করেন। যা অপরাধ বটে। পরে ওই নেতা আসলে ছাত্রের কাগজ দিয়ে দেওয়া হয়। অথচ পরীক্ষা চলাকালীন বাহিরের লোক হলে প্রবেশ নিষেদ। প্রতিটি পরীক্ষায় এই অবস্থা চলে। প্রতিদিন ছাত্রছাত্রীদের কাছে নকল পাওয়া গেলেও কিছুই বলা হয়নি। তবে 01 ডিসেম্বর এর পরীক্ষায় এক ছাত্র কে বহিষ্কার করা হয়। ওই ছাত্রের রাজনৈতিক পরিচয় না থাকা ই কী এর কারণ? হায়রে দেশ, কোথায় চলছো তুমি। কোথায় গেল শিক্ষকের নৈতিকতা। শিক্ষার এই অরাজকতা কী চলতেই থাকবে ? যেখানে নকলের কথা চিন্তা ই করা যাই না সেখানে এই অবস্থা ? সরকার কী এই দিকে একটু নজর দিবে? নাকি এসব চলবে? মাননীয় মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।