ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক

 

জিহাদ খুন হবার পর আগারগাওয়ের স্কুল শিক্ষিকা শামসুন নাহার খুন হলেন।প্রথম খুনের জন্য রাষ্ট্র সরাসরি দায়ী, কারণ জড়িত রেল-ওয়াসা-দমকল এ ত্রয়ী রাষ্ট্রে্রই প্রতিষ্ঠািন। দ্বিতীয় খুনের দায়ও রাষ্ট্র এড়াতে পারে না। প্রবলপ্রতাপান্বিত দুটি রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ego-centric রেষারেষিতে হরতালের একটা অযুহাত তৈরি হবে আর এ অযুহাতটিকে ব্যাবহার করে এক পক্ষ হরতাল ডাকবে আর সে হরতালে রাস্তায় বের হওয়ার বেয়াদবির শাস্তি হিসাবে হতভাগ্য স্কুল শিক্ষিকা শামসুন নাহাররা পাথরের আঘাতে খুন হবেন।রাষ্ট্র পারছেনা বাঁচাতে তার অসহায় নাগরিকদের।জিহাদের বিদায়টা এত বেশি দুঃখের, এত বেশি বেদনার ছিল যে, প্রায়শ চোখে পানি এসে যায়। এমনি অবস্থায় গতকাল সংবাদে শুনলাম ফায়ার সার্ভিসকে ১৯৯ কোটি টাকা দেয়া হবে। সংবাদটা শোনার পর নিজেকে খুব বিবশ লাগছিল।ভয়াল সাইজের একটা ট্রাক বিকট আওয়াজে হাইড্রলিক হর্ন মেরে ঘ্যাঁচ করে পিছনে এসে দাঁড়ালে অনুভূতিটা যেমন ভোতা লাগে, দমকলকে টাকা দেয়া হবে সংবাদটা শুনে অনুভূতিটা ঠিক তেমনই লাগছিল।রাষ্ট্র তার একটি প্রতিষ্ঠািনকে শক্তিশালী করার জন্য টাকা বরাদ্দ করেছে এটা খুবই আশাব্যঞ্জক একটা ভাল সংবাদ।কিন্ত সংবাদটি এমন সময়ে এসেছে যখন উক্ত প্রতিষ্ঠানটি তার চরম ব্যর্থতার জন্য তিরস্কৃত হবার কথা। রাষ্ট্রের তার কাছে জিগ্যেস করার কথা –

ত ৪৩ বছর ধরে যে বরাদ্দ তোমাকে দেয়া হয়েছে তা খরচ করে কি শক্তি তুমি অর্জন করেছ? সে শক্তি ব্যাবহার করে রাষ্ট্রের কতজন বিপন্ন মানুষকে তুমি বাঁচাতে পেরেছ? অ্যামেচার কজন তরুণ তাৎক্ষণিক চিন্তাশক্তি দ্বারা স্বউদ্ভাবিত যন্ত্রপাতি দিয়ে সে কূপের তলা থেকে শিশুটিকে তুলে আনতে পারল। অথচ তোমার বয়স এখন ৪৩। তারুণ্য-যৌবন পেরিয়ে তুমি এখন পৌড়। একটা পেশাদার সংগঠন তুমি। অথচ সেদিন পেশাদারিত্বের কোন নমুনাই তুমি দেখাতে পারলে না, বাঁচাতে পারলেনা সে বিপন্ন শিশুটিকে। তোমার জন্য আরও বরাদ্দ তৈরি আছে, তা পাবে তুমি, কিন্ত তার আগে সেদিনের ভয়াবহ ব্যর্থতার জন্য  একটা পরিষ্কার ব্যাখ্যা  দাও তুমি।

কিন্ত এসব কিছুই না করে ঘটনার মাত্র তিনদিনের মাথায় রাষ্ট্র দমকলের জন্য বরাদ্দ করল আরও নতুন টাকা। এ যেন ব্যর্থতায় খুশি হয়ে তাৎক্ষণিক পুরস্কার প্রদান ! এক্ষেত্রে রাষ্ট্র দমকলকে বরাদ্দটি দেয়ার আগে কটা দিন দেরি করে তার কাছ থেকে জবাবদিহিটা চেয়ে নিত পারত। এটুকু কুশলতার পরিচয় দিতে পারত রাষ্ট্র।  চরম দুর্ভাগ্য, ৪৩ বছরে রাষ্ট্র নিজেই সাবালক হতে পারল না। এবার বোধহয় জনগণেরই রাষ্ট্রের কাছে জবাবদিহি চাওয়ার পালা।

“জাগো বাহে কুণ্ঠে সবাই”