ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

চারদলের ২৯ জানুযারির গণমিছিলের দিন আওয়ামীগ জনসভা ডেকে নিজেদের রাজনৈতিক পুরনো অভ্যাসের জানান দিলো। বতর্মান প্রেক্ষাপটে এর পিছনে তাদের এই রাজনৈতিক হীন আচরণের কী উদ্দেশ্য ছিল বুঝা মুশকিল। এই খেলা অন্য কেউ খেলতে উদ্ধুদ্ধ করেছে কিনা। সেই আলোচনাও চলছে।

গণমিছিলে ১৪৪ ধারা জারির পর হয়তো চারদলীয় জোটের পক্ষ থেকে কোন কড়া প্রতিক্রয়া কিংবা ধবংসাত্মক কিছু কামনা করছিল আওয়ামীলীগ বা গুটি চালকরা। বিএনপি আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানানোর আগে অনেকে মন্তব্য করেছিলেন হরতাল বা কঠোর কমসূচী আসতে পারে। এই দিকেই বিরোধী দলকে ঠেল দিয়ে অরাজতা-অস্থিরতা সৃষ্ট করে কারো কোন ফায়দার লুটার পথ খোঁজার চেষ্টা আছে কিনা কে জানে।

কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া তার স্থায়ী কমিটির সাথে বসে যে সিদ্ধান্ত নিলেন তাকে এক কথায় রাজনৈতিক বিজ্ঞতা বলতে হবে। ঠান্ডা মাথায় গণমিছিল একদিন পিছিয়ে দিলেন। এতে খালেদাই জিতলেন। হারলো আওয়ামীলীগের কুট রাজনীতি। এ জন্য অবশ্যই শান্তিকামী মানুষ খালেদাকে সাধুবাদ জানাবে। এই জায়গায় আওয়ামীলীগ হলে কী করতো-একটু ভাবুন তো।