ক্যাটেগরিঃ সেলুলয়েড

ভাবতে পারেন, একই মানুষ সিআইএ সংস্থার হয়ে কাজ করছে, আবার পাবলো এস্কোবারের হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে কোকেন পাচার করছে!

নাকের ডগায় এমন অঘটন যিনি ঘটিয়েছেন তার নাম ব্যারি সিল। ছিলেন একজন চৌকষ পাইলট। চাকরি ছেড়ে সত্তরের দশকে সিআইএর  জন্য কাজ করা শুরু করেন। সে সময় ছিল স্নায়ুযুদ্ধের টান টান উত্তেজনার সময়। মধ্য আমেরিকার দেশ যেমন গুয়েতেমালা, নিকারাগুয়ায় সোভিয়েতপন্থী, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলন শুরু হয়। বিমানে করে সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবীদের বিভিন্ন গোপন স্থাপনার ছবি তোলার কাজ করতেন ব্যারি সিল।

এ সময় ব্যারি সিলের উপর নজর পড়ে কলম্বিয়ার মেডিলিন কার্টেলের। মেডিলিন কার্টেল মানে হোর্হে ওচোয়া, পাবলো এস্কোবারদের গড়ে তোলা কোকেন পাচার চক্র। যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসনের কড়াকাড়ির জন্য কোকেন পাচার করা দুরূহ হয়ে পড়েছিল। তাই মেডেলিন কার্টেল কোকেন পাচারের নতুন নতুন উপায় খুঁজে বের করে।

ওচোয়া, এস্কোবাররা ব্যারি সিলকে কলম্বিয়া থেকে বিমানে করে যুক্তরাষ্ট্রে কোকেন পৌঁছে দেওয়ার প্রস্তাব দেয়। আর সেজন্য যে টাকা দেওয়া হবে তার অংকটাও অবিশ্বাস্য হাঁকে তারা।

কলোম্বিয়ান ড্রাগ লর্ডদের হয়েও কাজ শুরু করে ব্যারি সিল। এই কাজ করতে গিয়ে কলম্বিয়ার পুলিশের হাতেও আটক হয় সে। আবার তাকে ছাড়িয়ে নেয় সিআইএ।

এবার আসে আরও বড় কাজের সুযোগ। আরকানসাসের ছোট শহর মেনায় নিয়ে যাওয়া হয় ব্যারি সিলকে। তাকে দেওয়া হয় আস্ত একটা এয়ারপোর্ট। কাজ হলো নিকারাগুয়ার বিদ্রোহীদের কাছে অস্ত্র সরবরাহ করা। এসব বিদ্রোহী গ্রুপ পরিচিত ছিল কন্ট্রা নামে। নিকারাগুয়ার সমাজতান্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে সশস্ত্র যুদ্ধ করছিল তারা। মূলত এরা ছিল যুক্তরাষ্ট্রের মদদে তৈরি সশস্ত্র সংগঠন। সিআইএ এদেরকে টাকা-পয়সা আর অস্ত্র দিতো।

সিআইএর হয়ে অস্ত্র নিয়ে যেত ব্যারি সিল। আবার সেই একই বিমানে কলম্বিয়ান কোকেন নিয়ে ফিরে আসতো যুক্তরাষ্ট্রে। এভাবে  টাকার পাহাড় গড়ে তোলে সে। ঘরে টাকা রাখার জায়গা নেই এমন অবস্থা। শুধুমাত্র ব্যারি সিলের টাকা রাখার জন্য ব্যাংকে আলাদা ভল্ট খোলা হয়। বাড়ির উঠোনের বিভিন্ন জায়গায় টাকা পুতে রাখে ব্যারি সিল।

তবে সুখের দিন শেষ হয়ে আসে তার। সিআইএ, ডিইএ, এফবিআই, স্টেট পুলিশ সবাই তার অর্থের উৎস খুঁজতে নেমে পড়ে। আটক করা হয় তাকে। এরপর যথারীতি  উপরমহলের নির্দেশে ছেড়েও দিতে হয়। আরেকটা অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হয়। এই অ্যাসাইনমেন্ট দেয় ডিইএ।

সেটা হল মেডিলিন কার্টেলের কোকেন পাচারের ছবি তোলা। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কলম্বিয়া যায় ব্যারি সিল। ছবি তুলে আনে এস্কোবারদের কোকেন পাচারের। ছবিগুলো গণমাধ্যমে প্রকাশ করে রিগ্যান প্রশাসন। সেটা নিয়ে তুমুল হৈচৈ বাঁধে। ব্যারি সিল বুঝতে পারে এস্কোবাররা বাঁচতে দেবে না তাকে। সরকার তার সব সম্পদ বাজেয়াপ্ত করে। পালিয়ে বেড়াতে থাকে সে। শেষমেশ আততায়ীর গুলিতেই মারা পড়ে ব্যারি সিল।

পরে আরো মজার এক কাহিনী বের হয়। ব্যারি সিল যেসব অস্ত্র নিকারগুয়ায় দিয়েছিল, সেসব অস্ত্র তারা বিক্রি করে দিয়েছিল ইরানের কাছে। এ নিয়েও বেশ সমালোচনায় পড়েছিল আমেরিকার রিগ্যান প্রশাসন।

এই সিমেনা দেখলে স্নায়ুযুদ্ধের সময় আমেরিকান প্রশাসনের বিভিন্ন কুকর্ম সম্পর্কে জানতে পারবেন। যতই জানবেন ততই অবাক হবেন।

সিনেমার নাম ‘আমেরিকান মেড’। টম ক্রুজ যথারীতি অসাধারণ অভিনয় করেছেন ব্যারি সিলের চরিত্রে। স্ক্রিপ্ট লিখেছেন গ্যারি স্পাইনেলি এবং পরিচালনা করেছেন ডগ লিমান। থ্রিলার টাইপের ছবি যারা পছন্দ করেন তাদের জন্য এই সিমেনা একটি ‘মাস্ট ওয়াচ’।

ট্যাগঃ:

মন্তব্য ০ পঠিত