ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, পহেলা মে ২০১২

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে তেরো হাজার শিক্ষার্থী বর্তমান। তার মধ্যে যদি মাত্র ৩০/৩৫ জন বাম মশাল মিছিল করে শ্লোগান দেয়, ভিসি তুই কবে যাবি? সেটা সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলন বা কন্ঠ হতে পারে না। আর এটা মূলত শিক্ষকদের রাজনীতি। এখানে ছাত্রলীগ কিংবা সাংস্কৃতিক জোট কারোরই আসা উচিত না। শরীফ এনামুল কবিরের পা যেমন পরিষ্কার না খন্দকার মুস্তাহিদ কিংবা নাসিম আখতার হোসাইনের পা ও পরিষ্কার না। যার পাই চাটুক, ময়লা সবার মুখেই লেগে আছে। তাই সাংস্কৃতিক জোট কিংবা ছাত্রলীগ কেউই ধোয়া তুলসি পাতা না। ছাত্রলীগ মারলেও মার খাওয়ার জন্য উস্কানিটা সংস্কৃতি কর্মীরাই দিছে। খোলা কিংবা মিডিয়ার চোখে আমরা বাইরে থেকে রাজনৈতিক অভিনয় দেখে হায় হায় করছি, ভেতরের রাজনীতিটা সচেতনভাবে এড়িয়ে যাওয়া হচ্ছে। আর ক্যাম্পাসের বাইরে যারা আছেন, বিতাড়িত কিংবা সাবেক শিক্ষার্থী। তাদের লম্বা নাকটা এ যাত্রায় না বুঝে না বাড়ানোটাই সুখকর হবে। কারণ অধিকার ছাড়িয়ে দিয়া, অধিকার রাখিতে যাইবার মতো বিড়ম্বনা আর নাই।

*ছবি বাংলানিউজ২৪ডটকম থেকে নেয়া।