ক্যাটেগরিঃ পাঠাগার, হুমায়ূন আহমেদ স্মরণে

হুমায়ুন আহমেদ বাংলা সাহিত্যের একটি বহুমাত্রিক প্রতিভার নাম। বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতির সবক্ষেত্রেই তার অবদান রয়েছে। হুমায়ুন সাহিত্যে খুব বেশি বিচরণ করার সৌভাগ্য আমার হয়নি। এজন্য তার সৃষ্টি কিংবা লেখনী সংক্রান্ত উচ্চমাত্রার আলোচনায় গিয়ে সমালোচক হওয়ার মত ধৃষ্টতা দেখাব না। তবে তার লেখা যতটুকু পড়েছি তাতে অন্তত এতটুকু বুঝতে পেড়েছি যে তিনি অত্যন্ত সহজ ও স্বতঃস্ফূর্ত মানুষ ছিলেন বিধায় অত্যন্ত সূক্ষ ও নিগূঢ় সত্য কথা তিনি অত্যন্ত সহজ সরল ও স্বতঃস্ফূর্ত ভাষায় ব্যক্ত করতেন। তাছাড়া লেখায় হাস্যরসও সমভাবে ছিল বলে সবশ্রেণীর পাঠকদের কাছে তিনি সমান জনপ্রিয় ছিলেন।তার সৃষ্ট দুটি ভিন্ন চরিত্র হিমু ও মিশির আলীর মাধ্যমে তিনি সকল শ্রেনী পেশার পাঠকদের একসূত্রে গাঁথতে পেরেছিলেন। ক্ষণজন্মা এ প্রবাদপুরুষ পূনরায় বাংলার মাটিতে জন্মাবে কিনা সে ব্যপারে আমার সন্দেহ রয়ে গেছে।সারাদিন কোন কাজেই মন ডুবাতে পারিনি। শুধু একটা বিষাদ গীতি মনের মধ্যে বাজছে। হুমায়ুন আহমেদ স্যার আজ আর আমাদের মাঝে নেই।