ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক

 
সিএনজি ও ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা চলাচল প্রসঙ্গ মন্ত্রনালয়ের সাম্প্রতিক সিদ্ধান্ত হলো মহাসড়কে এই শ্রেনীর সকল যান বন্ধ থাকবে। সিএনজি মহাসড়কে চলবে অথবা চলবে না, কিংবা এই পেশার লোকেদের বিকল্প জীবিকার সন্ধান না করা অবধি এই সিদ্ধান্ত অবানবিক কিনা, সেসব নিয়ে মাসের পর মাস আলোচনা আর যুক্তি তক্কো করা যায়, এমন রসদ এই ইস্যুর মধ্যে আছে, সন্দেহ নাই। তবে এই ধীরগতির যানগুলো যে আমাদের মহাসড়কে স্বাভাবিক গতিময়তার ক্ষেত্রে বাঁধা সেবিষয়ে ভিন্নমত হয়তো খুব একটা বেশি নেই। অনেক ক্ষেত্রেই এইযানগুলোর কারণেই দুর্ঘটনায় পরে বড় যানগুলো, প্রাণ যায় অধিকাংশ ধীরগতির এইযানের যাত্রীদের তো বটেই, দুরপাল্লার বাসযাত্রীদেরও বাঁচার উপায় থাকেনা কখনও কখনও, সে বিষয়গুলোও আমাদের সকলের জানা।
সৌজন্যে : ওয়েব

সড়ক যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব ওবায়দুল কাদের দৃঢ়তার সাথে ঘোষণা করেছেন, তিনি বরং চাকরি ছেড়ে দিবেন তবু সিদ্ধান্তে অটল থাকবেন। সত্যি হাজারো দোষে দুষ্ট আমাদের রাজনীতিবিদদের মধ্যে খুব কম নেতাই আমরা পেয়েছি যারা শেষ অবধি নিজের অবস্থানে অটুট থাকেন। অধিকাংশ নেতাই চাপের মুখে পরাস্ত হন। জানিনা জনাব ওবায়দুল কাদের শেষ পর্যন্ত কোন অবস্থানে নিজেকে পরিচিত করবেন, তবে মন্ত্রী হওয়া থেকে তার এযাবতকাল অবধি বাতচিতে আশাহত হওয়ার মতো খুব একটা কারণ আছে বলে মনে হয় না।

 

কিছু লোক আছে সমাজে, যারা নিজেই বরের বাপ, আবার নিজেই কনের বাপ সাজার ভান করে। আদতে তারা কোনটাই হতে পারেন না। এই শ্রেনীর লোকেদের মহাসড়কে সিএনজি বন্ধের সিদ্ধান্তে এখন দরদ আর শরীরে ধরে না। আজ যারা মহাসড়কে সিএনজি বন্ধের ঘোষণায় এত দরদ দেখাচ্ছে, কাল তারাই তাদের কোনো লতায় পাতায় জড়ানো আত্মীয় যখন দুর্ঘটনার শিকার হবেন, আহত হবে কিংবা প্রাণ হারাবেন, তখন এই মন্ত্রীর চৌদ্দ গোষ্ঠী উদ্ধার করতে বিলম্ব করবেন না।

 

আবার এইসব হামদর্দিরাও মিটার রিডিং দুরে থাক, সম্ভাব্য ভাড়ার দুইগুণ তিনগুণ ভাড়া দিতে চেয়েও জরুরি প্রয়োজনে সিএনজি ড্রাইভারদের কাছ থেকে সেবাটি পান না, কিংবা যত্রতত্র আর এলোমেলো পার্কিংয়ের ফলে যানজটে ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থেকে নাকাল হন, অথবা ড্রাইভারদের যোগসাজসে যখন ছিনতাইয়ের শিকারসহ আহত হন, তখনও আবার এই মন্ত্রীকে বা সরকারকেই তুলোধনা করতে কাল বিলম্ব করেন না। এটা বাঙালির চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের দ্বৈত নীতিরই বহিপ্রকাশ, আসলে যা একধরনের মানসিক অস্থিরতা ছাড়া অন্য কিছু নয়।

 

সমাজের দৃঢ় চরিত্রের আর স্থির সিদ্ধান্তের মানুষগুলোর উচিত এইসব অস্থির চরিত্রের মানুষগুলোর লোকদেখানো মায়াকান্নায় আপ্লুত না হয়ে সঠিক আর অধিকতর জনহিতকর সিদ্ধান্তটি গ্রহণ করা আর তা সুষ্ঠুভাবে প্রয়োগ করা। আর কিছু সিদ্ধান্ত অমানবিক হলেই বৃহত্তর স্বার্থের কথা মাথায় নিয়েই গ্রহণ করতে হয়। এতে তাত্ক্ষণিক কিছু অসুবিধা তৈরী হলেও আখেরে লাভ হয় বৃহত্তর জনগোষ্ঠিরই। কারণ মানবিকতার কারণে কেউ নিজের আর পরিবারের লোকজনের জিবনঝুঁকি মেনে নেবেন, এমন ‘মহানুভবতা’ হয়তো খুব বেশি নেই সারা দুনিয়ায়।

 

আর এ প্রসঙ্গে মাননীয় মন্ত্রীকে সবিনয়ে আরও একটু বলতে হয়, তা হলো, শুধু মহাসড়কের দিকে তাকালেই হবে না, সিএনজি আর ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা সহ নসিমন-করিমন আর আলমসাধু শুধুমাত্র মহাসড়কে বন্ধ করলেই চলবেনা, শহরাভ্যন্তরে সিএনজি ড্রাইভারগণ যাতে নিয়মনীতি প্রতিপালন করে গাড়ি চালায়, ভাড়া নেয় সরকার ঘোষিত মাইল মিটার হিসেবে নির্ধারিত হারে, যাত্রীসেবা ঠিকঠাকমত প্রদান করে, সেটাও দেখতে হবে। বৃহত্তর স্বার্থে তাকাতে হবে শহরের দিকেও। সুশৃঙ্খল করতে হবে সমগ্র নগর পরিবহন ব্যবস্থাও।