ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 

জাবি ভিসি অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবিরকে কেক খাওয়াচ্ছেন ভিসিলীগের নেতাকর্মীরা

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অনির্বাচিত ভিসিকে অপসারণ করে নির্বাচনের মাধ্যমে ভিসি নিয়োগের দাবিতে আন্দোলন শুরু করেছেন শিক্ষকরা। এদিকে বরাবরের মতো এবারও ভিসি অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবির তার নিজস্ব ছাত্রলীগ বাহিনী ভিসিলীগকে আন্দোলনে থামাতে সক্রিয় হবার আহ্বান জানিয়েছেন। গতকাল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯২তম জন্মবার্ষিকীতে কেক কাটার পর সমাবেশ এ আহ্বান জানান ভিসি। ২০০৯ সালের ২৪ ফেব্র“য়ারি গোপালগঞ্জের অধিবাসী ও তৎকালীন বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবিরকে ভিসি হিসেবে নিয়োগ দেন রাষ্ট্রপতি। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭৩ অধ্যাদেশ অনুসারে নির্বাচনের মাধ্যমে ভিসি নিয়োগের বিধান থাকলেও বিগত ৩ বছরেও নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হয়নি। শিক্ষকরা অভিযোগ করেন, নির্বাচন না দিয়ে ক্ষমতা দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য ৩ বছরে মেধাকে অগ্রাহ্য করে ছাত্রলীগ, আওয়ামীলীগ, আত্মীয় ও গোপালগঞ্জ কোটায় রেকর্ড সংখ্যক ২ শতাধিক শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন বর্তমান ভিসি। আর ছাত্রলীগকে ক্যাম্পাস থেকে বিতাড়িত করে গোপালগঞ্জের অধিবাসী ছাত্রদের একত্রিত করে ছাত্রলীগের পরিচয় দিয়ে গঠন করেছেন ভিসিলীগ। এই ভিসিলীগের কর্মীদের হাতেই খুন হন ছাত্রলীগ কর্মী জুবায়ের। ৯ জানুয়ারি জুবায়ের খুনের দিনই খুনীদের বিচারের দাবিতে ভিসিকে অবরুদ্ধ করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। কিন্তু সাধারণ শিক্ষার্থীদের দাবি উপেক্ষা করে এই ভিসিলীগ কর্মীদের দ্বারাই মুক্ত হন গডফাদার ভিসি। এরপর জুবায়ের হত্যার বিচারসহ কয়েক দফা দাবিতে সাধারণ শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করলে শিক্ষার্থীদের ভয় দেখাতে ভিসিলীগ দিয়ে পাল্টা আন্দোলন গড়ে তোলেন ভিসি। জুবায়ের হত্যাকারীদের বিচার, গননিয়োগ বন্ধ, গণতান্ত্রিক চর্চা অব্যাহত রাখা ও ভিসি নির্বাচনসহ বিভিন্ন দাবিতে ২ মাস ধারাবাহিক আন্দোলনের পর ভিসির পতনের দাবিতে আজ থেকে ১০ দিনব্যাপী কর্মসূপি পালন শুরু করেছেন আন্দোলনরত শিক্ষকরা। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি এ আন্দোলনকে প্রতিহত করতে সেই ভিসিলীগের নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯২তম জন্মবার্ষিকীতে আয়োজিত সমাবেশে ভিসি অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবির বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ ও উন্নয়নের ধারাকে ব্যাহত করতে একটি অশুভ মহল ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। এ সময় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের সতর্ক থাকতে হবে, ঠিকমত ক্লাসে হাজির হতে হবে।’ সমাবেশে ভিসিপন্থি শিক্ষকদের মধ্যে কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক নাসির উদ্দিন, অধ্যাপক আরজু মিয়া, অধ্যাপক অসিত বরণ পাল, ভিসিলীগের নেতা শেখ শরিফুল ইসলাম, লিটন, সকাল, সম্রাট, শামিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৯ জানুয়ারি ভিসিলীগের কর্মীদের হাতে ছাত্রলীগ কর্মী জুবায়ের খুন হওয়ার পর ক্যাম্পাসে কোন ছাত্রলীগ নেই বলে দাবি করে বিবৃতি দেন জাবি ভিসি ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি।