ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

দেশে একের পর এক একই কায়দায় লেখক, মুক্তমনাদের হ্ত্যা পর আইএস এর দ্বায় স্বীকার করছে। অন্যদিকে প্রধান মন্ত্রী থেকে শুরু করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকতা বিভিন্ন সময় মিডিয়াতে বিভিন্ন বক্তব্য দিয়ে এসব হ্ত্যাকান্ডকে বৈধতা দেওয়ার চেষ্টা করছে। এদিকে যুক্তরাষ্ট্র এসব খুনের ঘটনায় বাংলাদেশকে সহায়তার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

যদিও কিছু হত্যাকান্ডের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের গোযেন্দা সংস্থা কাজ করলেও তেমন সন্তোষজন কোন ফলাফল এখনও আসেনি।তারপরও সন্ত্রাস মোকাবেলায় দুই দেশের একযোগে কাজ করতে সম্মত হওয়ার কথা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএস আছে দাবি করে আবারও বিষয়টি আলোচনায় আনলেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট। যদিও আইএস সহ ধর্মীয় জঙ্গিবাদ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সৃষ্টি বলে বিভিন্ন সময় কথা উঠেছে।

তাহলে কি ধরে নিব মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মুখে সন্ত্রাস মোকাবেলায় সহায়তার আশ্বাস আর তলে জঙ্গীবাদের উত্থান ঘটিয়ে দেশকে অস্থীতিশীল করে তাদের স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা করছে।