ক্যাটেগরিঃ স্যাটায়ার

 
latif-siddique-and-taslima-nasrin

ছবি: আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী এবং তসলিমা নাসরিন।

 

সিটিজেন জার্নালিজম এর সাথে আরও একটি সাক্ষাৎকার দিলেন সদ্য অবসরে যাওয়া ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি (আইসিটি) মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী। এই সাক্ষাৎকারে উঠে এসেছে তার দল আওয়ামী লীগ এবং বাংলাদেশ সরকারের ভিশন টুয়েন্টি ওয়ান এর পরিকল্পনাসমুহের একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিকল্পনা। নিউইয়র্ক এবং মেক্সিকো ঘুরে এখন তিনি ইন্ডিয়ার কলকাতায় আছেন। বাংলাদেশের নাগরিক সাংবাদিকতার অন্যতম একটি পৃথ্বিকৃত সিটিজেন জার্নালিজমকে এই সাক্ষাৎকারটি দিয়েছেন গুগল হ্যাঙ্গআউট এর মাধ্যমে।

 

সিটিজেন জার্নালিজমঃ স্যার, কেমন আছেন?
লতিফ সিদ্দিকীঃ আমি ভাল আছি। আপনার প্রশ্নটি বলুন আমার তাড়া আছে।
সিটিজেন জার্নালিজমঃ আমরা কি ধরে নিতে পারি আপনি অবসরে গিয়েছেন?
লতিফ সিদ্দিকীঃ আমি মনে করছি না।
সিটিজেন জার্নালিজমঃ কিন্তু আগের সাক্ষাৎকারে আপনি বলেছিলেন যে দল থেকে  বহিষ্কার করলে আর রাজনীতি করবেন না। আপনাকে তো দলের সভাপতি ফোরাম  ও মন্ত্রিত্ব থেকে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে।
লতিফ সিদ্দিকীঃ দেখুন, বিবিসি কে আমি এটাও বলেছি দল আমাকে মন্ত্রী বানিয়েছে সুতরাং দলই সব। রাজনীতিতে ভুলত্রুটি আছে। দল আমাকে যদি অন্য কোন দায়িত্ব দেয় তবে আমাকে বহিষ্কার করেছে বলে আমি সেই দায়িত্ব ফেলে দিতে পারি না। হতে পারে নতুন কোন কাজ আমার মন্ত্রনালয়ের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ।
সিটিজেন জার্নালিজমঃ কিন্তু, লোক মুখে যেটা শোনা যাচ্ছে, আপনি নির্বাসিত লেখক তাস্লিমা নাস্রিনের সাথে জুটি বাধতে যাচ্ছেন। এটা কি আপনাকে দেওয়া নতুন দায়িত্বের অংশ? এবং আমরা শুনেছি আপনিও একাকি জীবন যাপন করছেন।
লতিফ সিদ্দিকীঃ তসলিমা নাসরিনের উদ্দেশে আমি ইন্ডিয়া আসি নি। তবে আমি আমার সাথে ব্যাক্তিগত এবং প্রফেশনাল জীবনে তাকে সাথে নিতে আগ্রহী থাকবো। আমিও এটা আগ্রহের সাথেই করবো কারন সে অনেক অভিজ্ঞ, এবং প্রজ্ঞাবান একজন নারী। ভাল লেখকও বটে।
সিটিজেন জার্নালিজমঃ আপনি কি তাহলে লেখক তসলিমা নাসরিনের যশ, খ্যাতি, এবং গ্ল্যামারকে পছন্দ করছেন?
লতিফ সিদ্দিকীঃ তসলিমা নাসরিনের উদ্দেশে আমি ইন্ডিয়া আসি নি। আমি বিশেষ এসাইনমেন্ট নিয়ে এখানে এসেছি। আপনারা জানেন বাংলাদেশ সরকার নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট নির্মাণ এবং বঙ্গবন্ধু নামে একটি মহাকাশ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের ব্যাপারে আগ্রহী। আমি  দীর্ঘ সময় এখানে থেকে ইন্ডিয়া সরকারের এই জাতীয় প্রকল্পগুলি পরিদর্শন করতে আগ্রহী।
সিটিজেন জার্নালিজমঃ কিন্তু আপনিতো সায়েন্টিস্ট নন, মিঃ সিদ্দিকী।
লতিফ সিদ্দিকীঃ তা নই। কিন্তু পলিটিশিয়ানরা হচ্ছে ডিসিশান মেকার। একজন পলিটিশিয়ান মিনিস্টার যতো দ্রুত একটি সিদ্ধান্ত দিতে পারবে, দশ জন সায়েন্টিস্ট তাদের সর্ব চেষ্টা দিয়েও একবছরে সেই সিদ্ধান্ত দিতে পারবে না।
সিটিজেন জার্নালিজমঃ কিন্তু, একজন সায়েন্টিস্ট যা করতে পারবে পলিটিশিয়ানরা সেটা কি একশত বছরেও করতে পারবে?
লতিফ সিদ্দিকীঃ পারবে না। আমি মেনে নিচ্ছি। আমি বলছিলাম বাংলাদেশ সরকার নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট নির্মাণ এবং একটি মহাকাশ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের ব্যাপারে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে এখানে এসেছি, এই বিষয়ে বিষয়ে। ডিবেট করতে জ্ঞান সঞ্চয়ের জন্য নয়।
সিটিজেন জার্নালিজমঃ এবং আপনার এই কাজে আপনি তসলিমা নাসরিন কে সাথে নিচ্ছেন?
লতিফ সিদ্দিকীঃ আমি এতে খারাপ কিছু দেখছি না।
সিটিজেন জার্নালিজমঃ আপনি কখন বাংলাদেশে ফিরবেন?
লতিফ সিদ্দিকীঃ এটা বলা যাচ্ছে না। সময় সুযোগ হলে আমি অবশ্যই ফিরবো। সময়ই সব বলে দেবে।
সিটিজেন জার্নালিজমঃ পৃথিবীর ইতিহাসে দেখা গিয়েছে পলিটিক্যাল রেভুল্যুশন এক রাতের মাঝেই হয়ে যেতে পারে। যদি আপনার কাজ শেষ হবার আগে আপনার দলের সরকার থেকে পতন হয়ে যায়?
লতিফ সিদ্দিকীঃ সে ক্ষেত্রে নতুন যে সরকার আসবে, এমন কি সামরিক জান্তাও যদি ক্ষমতায় আসে তবুও নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট এবং মহাকাশ স্যাটেলাইট প্রকল্প চলবে। আমি এই বিষয়ে আর কিছু বলতে চাই না। আপনাকে ধন্যবাদ।

 

52_Latif+Siddique_040214_0001

ব্দুল তিফ সিদ্দিকী ১৯৪৩ সালে টাঙ্গাইলে জন্মগ্রহন করেন। তিনি ১৯৬৭ সালে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের উপরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন এবং ১৯৬৯ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ১৯৭০, ১৯৭৩, ১৯৯৬, ২০০৮ এবং ২০১৪ সালে টাঙ্গাইল থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বিগত সরকারের মেয়াদে তিনি পাট ও বস্ত্র মন্ত্রী ছিলেন এবং এই মেয়াদে তিনি ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি (আইসিটি) মন্ত্রী হিসিবে দায়িত্ব পালন করেছেন।