ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

খবরে প্রকাশ হরতালে জানমালের ক্ষতিতে সরকারী মামলার আঁচ পেয়েই মির্জা ফখরুলসহ অনেকে নিজেদের “গুম” করে ফেলেছেন, মির্জা আব্বাসের স্ত্রী সরকারের বলছেন যে তার স্বামী কোথাও বেরুননি হরতালের সময়, সরকারের কাছে চাইছেন তার স্বামীর নিরাপত্তা, “বার বার ফিরে আসা” অলি আহমেদ বলেছেন তিনিও ঢাকাতে ছিলেন না, তাই মামলাতে তিনি কেন? সবচাইতে দারুন হল এক কালের বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্র পার্টি করা ও পরে জাতীয় পার্টি থেকে ঢাকার ডেপুটি মেয়র ও বর্তমানে ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব, এক কালের বিরল বিপ্লবী আব্দুস সালামের মামলার আওয়াজ পাওয়া মাত্র মোটর সাইকেল যোগে কেন্দ্রীয় অফিস থেকে দ্রুত নির্গমন ও অগস্ত্য যাত্রা! বাড়ী তল্লাশির পর হান্নান শাহের কণ্ঠ ম্রিয়মাণ, বাবু গয়েশ্বরের ভয়েস শোনা যাচ্ছেনা!

এখন দু একটি কথা বলছেন মওদুদ আহমদ আর বিএনপির উকিল মোক্তাররা! তবে মওদুদ সাহেব নিরাপদ সময় পর্যন্তই কথা বলে থাকেন সাধারণত:! খালেদা জিয়া কোথায় তা মিডিয়ায় আসছে না, মতিয়া চৌধুরী গতকাল টঙ্গীর জনসভায় বলেছেন বেগম খালেদা জিয়ার নিখোঁজ হওয়ার অভ্যাস আছে!

এই হল বর্তমান বিএনপির হাল! আগামীকাল বৃহস্পতিবার ইলিয়াস আলীর স্ত্রীর সাথে কথা বলবেন প্রধান মন্ত্রী! হরতালে ভোগা দেশবাসী আল্লাহ আল্লাহ করছেন রাজনৈতিক সঙ্কটের কিছু একটা হিল্লে হোক, তারা অন্ততঃ জ্বালাও পোড়াও আর বোমার হাত থেকে নিরাপদ হোন কারন দেশবাসী না পারছেন নিজেরা “গুম” হতে, না পারছে নিঁখোজ হতে, না পারছেন ভোঁ দৌড় দিতে!জীবিকার প্রয়োজনে তাদের রাস্তাতে নামতেই হয় আর তাতেই তারা হরতালে জীবন ঝুঁকিতে পড়েন! আবার
এরই মধ্যে মিডিয়াতে পড়লাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র লীগ নতুন কমিটি ঘোষিত হয়েছে!

পরিশেষে অনেকেরই প্রশ্ন থেকে যায়, হরতাল ডাকা নেতারা মামলার গন্ধে তো ভোঁ দৌঁড়ে, কিন্তু হরতালে মৃত্যু আর সম্পত্তি ধংসের ক্ষতির দায় কার? দেশের বর্তমান সরকার এই বিষয়ের সামগ্রিক দ্বায় দায়িত্ব অস্বীকার করতে পারে কি? কারন প্রশাসনিক সহ সমস্ত রাস্ট্রযন্ত্রই তো তাদের হাতে! রি-কন্সিলিয়েশনের উদ্যোগের কিছুটা আভাষ মিলছে ইলিয়াস আলীর স্ত্রীর সাথে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাতের কথা শুনে, কিন্তু সব পক্ষ থেকে সেটা বা এই ধরনের উদ্যোগ আগেই কেন নেয়া হয়নি?