ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ চুরি হয়ে যাওয়া সিএনজি টেক্সি সহ দুজন কে গ্রেপ্তার করেছে। সিএমপি সূত্রে জানা যায়, সিএনজি চালক মোঃ এরশাদ তার ভাড়া করা সিএনজি নিয়ে ভাড়া মারার জন্য চট্টগ্রাম জিইসি মোড়ে আসলে এক ব্যক্তি কালুর ঘাট যাওয়ার জন্য সিএনজি ভাড়া করে । ড্রাইভার উক্ত ব্যক্তিকে নিয়ে রওয়না দিলে পথিমধ্যে সে জানায় তার একজন স্যার হোটেল পেনিন সুলার সামনে অপেক্ষা করছে, তাকে নিয়ে যেতে হবে। যাত্রীর কথামত ড্রাইভার সিএনজি নিয়ে হোটেল পেনিনসুলা এর সামনে আসলে একজন কোট-টাই পরা ভদ্র লোক সিএনজিতে উঠেন এবং সিএনজি ভাড়া করা লোকটি সিএনজি থেকে নেমে যান। ড্রাইভার সিএনজি চালু করে রওয়ানা করলে কিছুদূর এসে সিএনজিতে থাকা ভদ্রলোক ফোন রিসিভ করে ড্রাইভারকে বলে সিএনজি ভাড়া করা লোকটির মা মারা গেছে, তাকে ডেকে আনতে হবে। ড্রাইভার সিএনজিটি থামিয়ে রেখে উক্ত ব্যক্তিকে ডাকতে গেলে কোট টাই পড়া লোকটি তার পাশে দাড়িয়ে থাকা অপর সিএনজি চোর ড্রাইভারকে দিয়ে সিএনজি চালিয়ে ঈদগাহ এলাকায় চলে যায়। ঈদগাহ এলাকায় গিয়ে তারা সিএনজি’র নাম্বার ঘষামাজা করার সময় স্থানীয় লোকজন দুই সিএনজি চোরকে আটক করে গাড়ির মালিককে ফোন করে। গাড়ির মালিক বিষয়টি গোয়েন্দা পুলিশকে অবহিত করলে টহল ডিউটিতে থাকা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই মোহাম্মদ ফজলুল কাদের চৌধুরী ও এসআই আমিনুর রসুল ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আসামী মোঃ রফিক উরফে রানা (৫০) ও সুজন মিয়া (২৫) কে স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে গ্রেফতার করেন এবং চুরি হয়ে যাওয়া সিএনজি নং-চট্টমেট্রো-থ-১১-৮২৮৬ গাড়ীটি উদ্ধার করে হেফাজতে নেন। পরবর্তীতে সিএনজি চালক এরশাদ বাদী হয়ে গ্রেপ্তারকৃতদের সহ তাদের সহযোগী পলাতক আসামীদের বিরুদ্ধে এজাহার দায়ের করলে কোতোয়ালী থানার মামলা নং-৩৫, তারিখ-১৯-০৮-২০১১ ইং ধারা-৩৭৯/৪১১ দঃবিঃ রুজু করা হয়। আসামিরা স্থানীয় লোকজনের গণপিটুনি খেয়ে বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।

রিপোর্ট : এম. নাজমুল ইসলাম, চট্টগ্রাম, ২০ আগষ্ট ১১
01673270919