ক্যাটেগরিঃ দিনলিপি

সারাদিন অফিস করে অনেক ক্লান্ত শরীর নিয়ে বাড়ি ফিরলাম।বাড়ি ফিরতেই বসার ঘরের ফটো কর্ণারের দিকে চোখ পড়ল । অনেকদিন ধরে কোনো ছবি রাখা হয় না ওখান টায় । নতুন কিছু ছবি বেছে রেখেছি ল্যাপটপে । কিন্তু ওয়াশ করবো করবো করে আর করা হয়ে উঠে না কাজটা ।সামান্য একটা কাজ হলেও সারাদিন ব্যস্ততার পর ছোট্ট এই কাজগুলো আর করা হয়ে উঠে না।রাস্তায় বেরোলেই জ্যাম , সন্ধ্যে ৮টা না বাজতেই স্টুডিওর শার্টার বন্ধ এইসব ঝামেলা সামলে ছবিগুলো আর প্রিন্ট করা হয় না।

পরদিন অফিস করছিলাম ।দুপুরের দিকে আমার বস রূপান সাহেবের নামে একটা পার্শেল আসে ।পার্সেল্ টি রিসিভ করে বসের রুমে নিয়ে গেলাম ।বস প্যাকেট খুলতেই দেখি , ঝাঁ চকচকে ফ্রেমে বাঁধানো বসের বিয়ের একটি স্মতিমধুর ছবি।তা দেখে আমি আর বস দুজনেই অবাক । বস ভাবিকে ফোন করে এই অবাক ঘটনার কথা জানাতেই ভাবি জানালেন , এটা তিনি ঘরে বসেই অর্ডার দিয়েছেন ।

প্যাকেটের উপরে “jemonkhushi.com” লেখা একটা ওয়েব অ্যাড্রেস পেলাম । পরে ওই ওয়েব সাইটে ঢুকে দেখি এলাহী কান্ড ! ঘরে বসেই নিমিষেই ছবি প্রিন্টের অর্ডার দেওয়া যায় এই সাইটে ।এছাড়া ও আছে বিভিন্ন উপহার সামগ্রীর এবং দৈনন্দিন অনেক আয়োজন ।এর মাঝে আমার কাছে অনন্য লেগেছে, যেমন খুশি (পছন্দমত) ছবি দিয়ে প্রিন্ট করা মগের আয়োজনটি।

এখনকার সময়ে পারিবারিক কিংবা সামাজিক যেকোনো অনুষ্ঠানে পেশাদার আলোকচিত্রী যেন এক আবশ্যিক অনুষংগ। “jemonkhushi.com” –এর অনন্য এক সার্ভিস হলোঃ পেশাদার আলোকচিত্রীদের বিস্তারিত তথ্যের সম্ভার।সেখান থেকেই অনেক চিন্তাভাবনা করে দেশবরেণ্য আলোকচিত্রী মীর স্বয়ম সৌহ্রদ কে আমার শুভ বিবাহের জন্য আলোকচিত্রী হিসেবে ঠিক করলাম ।