ক্যাটেগরিঃ নাগরিক সমস্যা

বেশি করি আলু খান ভাতের উপর চাপ কমান। সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ শুধুমাত্র বাংলাদেশ এর জন্য প্রযোজ্য। বাংলাদেশ এমন একটি দেশ যেখানে মানুষকে সহজেই মিথ্যা কথা বলে ভোট নেয়া যায় । আমাদের সরকার বলেছিল আমি ক্ষমতায় এলে ১০ টাকা কেজি ধরে চাউল দেব কিন্তু নায্যমূল্যে ট্রাকে করে যে চাউল বিক্রি করা হচ্ছে তার দাম ২৫ টাকা কেজি । এই নায্যমূলে চাউল পেতে মানুষকে লাইনে দাড়াতে হয় ভোর বেলা থেকে অনেকে না পেয়ে ফিরে যায় এই আমাদের দেশ ।

যাই হোক যে কথা বলছিলাম বেশি করে আলু খান ভাতের উপর চাপ কমান। এই কথাটি অবশ্য অবৈধ তত্ববাধায়ক ফখরুদ্দিন সরকারের কথা। কিন্তু এখন মনে হয় বাংলাদেশের জনগনের জন্য কথাটি বাস্তব। কারন যে হারে চাউলের দাম বাড়ছে তাতে আলু খাওয়া উত্তম।

এক রিকসা চালক বলছিলেন মামা বলেন কিভাবে ভাড়া কম নেব দুই কেজি চাউল কিনতে লাগে ১০০ টাকা। তার পর বাজার তো আছে। রিকসা চালক মিথ্যা বলেনি বাজারে মোটা চাউল এর দাম ৪২ টাকা নিচে নেই। আমরা কোথায় যাবো মধ্যবিত্ত ঘরের মেয়ে পিংকি বলছিল আমি যে চাকরি করি তাতে চলা খুই কষ্ট। আমাদের দেশে মানুষদের কি এই হতাশা কোন দিন যাবে না!

আমাদের বাণিজ্যমন্ত্রী খুলনায় সম্প্রতি বলেছেন আন্তজার্তিক বাজারে বৃদ্ধি পাওয়ায় পণ্যমূল্য বেড়েছে। তিনি তার কথা বলেছেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্ত মরেছে সব এদেশের গরীবলোক । তারা তো বিশ্বাস করে ভোট দিয়েছিল এ সরকারকে। এই বিশ্বাস এর দাম রাখেনি এ সরকার। তাই আমি বলি আলু দাম এখন খুব কম ঢাকা শহরে ৮ টাকা থেকে ১০ টাকা । বেশি করে আলু খেতে পারেন বেচেঁ থাকার জন্য কারন আপনাদের বিশ্বাস এর দাম এ সরকারকে ভোটের মাধ্যমে দিতে হবে ।

স্বাধীনতার কথা ৪০ বছর যেখানে পেরিয়ে গেল সেখানে উন্নয়ন হলে না গরীর মানুষদের তাহলে আর কবে উন্নয়ন হবে ! একটু ভেবে দেখবেন কি আমাদের সরকার।