ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

সংসদে সংবিধান বিলটি পাসের মাধ্যমে উঠে গেল বাংলাদেশ থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা। যা আজ সংসদে পাসের মাধ্যমে আওয়ামীলীগ সরকার আনুষ্ঠানিক বিলুপ্ত ঘোষণা করলো। সংসদের সবাই অবশ্য বিএনপি জামায়াত বাদে অন্য সব সংসদ সদস্যরা এর পক্ষে ভোট দেয় অবশ্য একজন বিপক্ষে ভোট দিয়েছে। বিলটির পক্ষে ভোট পড়েছে ২৯১ আর বিপক্ষে পড়েছে ১টি। অনেক তর্কবিতর্কে পর অবশেষে পাশ করা হলো এই বিলটি।

বাংলাদেশে মানুষ রাজনৈতিক দল বললেই বুঝায় আওয়ামীলীগ বিএনপি অথচ বিএনপি এই তত্ত্বাবধায়ক বিলুপ্তি করার পক্ষে নেই। কারন তারা জানে কোন সরকারের অধীনে নিবার্চন সুস্থ সঠিক হয় না বা কেউ সহজে ক্ষমতা ছাড়তে চায় না বিএনপি হয়ত তাদের অভিজ্ঞতা থেকেই বলেছে আর তারা হয়তো সেই অবস্থা ছিল কারন যখন যে পেশায় যে খাকে পরে সে সেই পেশায় লোকদের ভাব স্বভাব বুঝতে পারে। বাংলাদেশে মানুষ কি এর পক্ষে রয়েছে। এটার উত্তর দেওয়া যাবে না কারন সরকার এর উপর কোন জরিপ করেনি। বা এর উত্তর ড.কামাল হোসেন প্রথম আলোতে দিয়েছে এই ভাবে সংবিধান সংশোধনী তড়িঘড়ি কাজ নয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থার ক্রটির বিকল্প এ ব্যবস্থা বাদ দোওয়া নয় । তার মতে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিলের ব্যাপারে জনমতকে উপেক্ষা করা হয়েছে। আমাদের নিরপক্ষে আদালত ও কি এর পক্ষে এর উত্তর আদালত নিজেই সঠিক করে দিতে পারেনি কারন আদালত এইও বলেছিল আরও দুই মেয়াদ তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা রাখা যায়। এত কিছুর পরও কেন এত তড়িঘড়ি করা হলে তত্ত্বাবধায়ক উঠে দিতে।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ভিশন ছিল ২০২১ তাহলে কি ধরে নেব তারা ক্ষমতায় ২০২১ সাল পযন্ত থাকতে চায়। আর এর জন্যই কি তত্ত্বাধায়ক উঠে দোওয়া হলে! যারা এই লেখা পড়ছে তারা কি বলবেন আমাদের দেশে স্বাধীন নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে নিবার্চন হয় সেই নির্বাচন কেউ মেনে নেই না কারন কারচুপির কারনে আর একটি দল ক্ষমতায় থাকা কালীন নির্বাচন হলে সেখানে নিরপেক্ষ কিভাবে হবে ! আর এর উদাহরন দেওয়া যায় বর্তমানে ইউপি নির্বাচনগুলো।

যাই হোক একটি সুখবর হলে সংখ্যা গরিষ্ঠ মুসলমানের দেশে সংবিধানে বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ও ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক করার সুযোগ থাকছে হয়তো সরকার ভোট হারানো কথা ভেবে এগুলো বাদ দেয়নি। সেই জন্য সুরঞ্জিত সেন বলেছেন অনেক কিছুতেই কম্প্রোমাইজ করা হয়েছে তবে একথা ঠিক সামনের দিনগুলোতে আরও কত কি যে এর জন্য কম্প্রোমাইজ করতে হবে তা মনে হয় আমি আপনি এমনকি সরকারও জানে না।