ক্যাটেগরিঃ কৃষি

 

artificial flowersফুল সৃষ্টিকর্তার এক অপরূপ সৃষ্টি। তাই ফুল ও গাছ পৃথিবীকে করেছে অপরূপ সুন্দর। আপনি যদি ফুলের অপরূপ সৌন্দর্য এবং কমলতায় মুগ্ধ হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি অবশ্যই আপনার বাড়ি অথবা অফিসে তা সাজাতে চাবেন। কিন্তু পর্যাপ্ত সময় স্বল্পতা, জায়গা এবং যথাযথ রক্ষনাবেক্ষনের অভাবে হয়তো ইচ্ছা কখনো অপূর্ণ থেকে যায়। তবে, আমরা সকলেই পরিচিত বিভিন্ন প্রকারের কৃত্তিম ফুল, পাতা, ছোট-বড় গাছ, টব ইত্তাদির সাথে যা বিভিন্ন বিপণিবিতানগুলতে কিনতে পাওয়া যায়। যদিও এসকল ফুল বা গাছ কৃত্তিম হয়, সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে থাকে। আসুন আমরা আগে জেনে নেই কৃত্তিম ফুলের কিছু সুবিধাগুলোঃ

১. পছন্দমত বিভিন্ন রঙ্গের এবং আকারের ফুল সহজেই একত্রে সাজানো যায়।

২. পানি, মাটি, ঔষধ বা অন্যান্য কোনকিছু দেওয়ার ঝামেলা নেই। তবে মাঝেমধ্যে পরিস্কার করে নিলেই হয়।

৩. জীবিত গাছ/ফুল থেকে অনেক কম যত্নের দরকার হয়।

৪. জীবিত গাছ/ফুল যে আবর্জনা তৈরি হয়, কৃত্তিম গাছ/ফুল থেকে তা হয় না।

৫. একবার ক্রয় করলে দীর্ঘদিন ব্যাবহার করা যায়।

৬. বিভিন্ন ঋতুর ফুল সারা বছরই পাওয়া যায়।

৭. এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় খুব সহজেই স্থানাতর করা যায়।

শুধু তাই নয়, কৃত্তিম ফুলের উপাদান বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। তার কিছু কিছু উপাদানের কথা আমি আপনাদেরকে নিম্নে জানাচ্ছি, যেমনঃ

-সিল্কের ফুল (গোলাপ, টগর, শিমুল ইত্যাদি ফুলগুলো উজ্জল সিল্কের কাপড় বা উপাদান দিয়ে তৈরি হওয়ায় এগুলো আপনার ড্রয়িং রুমের সৌন্দর্যকে করবে আরো মনোরম।)

-সোপ বা সাবানের ফুল (রজনীগন্ধা, বেলী, লাল গোলাপ ইত্যাদি পরিশোধিত সাবান এর উপর একাধিক স্তর এর রঙের প্রলেপ দিয়ে তৈরি হয় এবং এই কারনেই তা আপনার বেডরুমকে করবে সুন্দরতম।)

– প্লাস্টিক এর ফুল (কদম, জবা, ডালিম, ধুতরা ইত্যাদি প্লাস্টিক দিয়ে তৈরি হয়। তাই, অফিস বা ড্রয়িং রুমে এগুলো সুন্দরভাবে নিজের স্থান ফুটিয়ে তুলতে পারে।)

– মখমল কাপড়ের ফুল (লাল বা হলুদ গোলাপ, জবা, জেসমিন ইত্যাদি মখমল দিয়ে তৈরি এবং তা বেডরুম, অফিস অথবা যেকোনো অনুষ্ঠানের পরিবেশকে করতে পারে আরও আকর্ষণীয়।)

– কাদামাটির ফুল (পদ্ম, শিমুল, বেলী ইত্যাদি কাদামাটি দিয়ে তৈরি হওয়ায় তা আপনার ড্রয়িংরুমকে দিবে এক অন্যরকম রুপ।)

 

এবার চলুন জেনে নেওয়া যাক বিভিন্ন কৃত্তিম গাছ সমূহঃ

-ফিনিক্স পাম (বিভিন্ন রকমের পরিশোধিত পাম গাছ এর উপাদান, নিখুঁতভাবে মিশ্রণ করে পাতাবাহার, ছোট নারিকেল গাছ, লেবু গাছ ইত্যাদি তৈরি হয় বিধায় এটি যেকোনো দরজার পাশ বা ছাঁদের পরিবেশ বদলে দিতে পারে।)

-প্লাস্টিক এর গাছ (ডালিম, পেয়ারা, ধুতরা গাছ ইত্যাদি প্লাস্টিক দিয়ে তৈরি হওয়ায় বারান্দা বা ড্রয়িং রুমের আভা পাল্টে দিতে পারে।)

-কাদামাটির গাছ (বেলে ও লালামাটির সংমিশ্রণের পর শুকিয়ে এবং বিভিন্ন রঙে রাঙিয়ে বিভিন্ন গাছের ডাল, পাতা ইত্যাদি পরিবেশনের মাধ্যমে তৈরি হয়। তাই সহজেই এসকল গাছগুলো ছোটো বাগান, বারান্দা, ড্রয়িং রুম ও অফিস এ সাজিয়ে নেওয়া যেতে পারে।)

– রাবারের গাছ (পরিশোধিত বিভিন্ন রং এর রাবার এর মাধ্যমে ৬ থেকে ১০ ফুট উচ্চতার ফিডেল লীফ বৃক্ষ তৈরি হয়ে থাকে যা সহজেই কোন হোটেল, রেস্টুরেন্ট, বাসা বা অফিসের ভেতর বা বাহিরের পরিবেশকে মনোরম করে তুলতে পারে।)

 

বিভিন্ন প্রকারের কৃত্তিম ফুল ও গাছ থেকে আপনার পছন্দের ফুল অথবা গাছ যদি আপনি ক্রয় করতে চান তাহলে আমাদের দেশের বিভিন্ন বিপনিবিতান অথবা দোকানে খোঁজ নিতে পারেন। আপনাদের সুবিদার্থে নিকথস্থ কৃত্তিম ফুল ও গাছের বিপনিবিতানগুলোর নাম, ঠিকানা এবং মোবাইল নাম্বার এর একটি লিঙ্ক দিলামঃ

www.exchangebangladesh.com/category-second.php?l=Artificial-Plants-Flowers

 

আপনাদের সুন্দর সৃজনশীলতাকে শুভকামনা জানিয়ে আজ বিদায় নিচ্ছি।