ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা


উদ্যোগটি মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের । টেস্টিমনি অব সিক্সটির ৪০ বর্ষপূর্তি পালিত হলো । বিগত তিন বছর ধরে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর টেস্টিমনি অব সিক্সটি স্মরণ করে চলেছে । ৫ অক্টোবর ২০১১ “ষাটের সাক্ষ্য“ তৃতীয়বারের মতো স্মরণ করল ‍মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর । টেস্টিমনির স্মারক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হয়ে এসেছিলেন মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী জনাব এ কে খোন্দকার । বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্রিটিশ পার্লামেন্ট সদস্য রুশনারা আলি এবং অক্সফামের এশিয়া আঞ্চলিক পরিচালক Sarah Ireland ।

১৯৭১ সালের ২১ অক্টোবর আন্তর্জাতিক ত্রাণ সংস্হা অক্সফামের মাধ্যমে বিশ্বের খ্যাতনামা ৬০ জন ব্যক্তিত্ত্ব বিশ্বের দরবারে উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছিলেন । আবেদনটি তখনই জানানো হয়েছিল যখন ১৯৭১ এ বাংলাদেশে নির্বিচারে গণহত্যা চলছে । কোটি মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে আশ্রয় নিয়েছে ভারতের উদ্বাস্তু শিবিরে ।তারা রাজনীতির কূটনামি বাদ দিয়ে অবিলম্বে এদের সাহায়্যের দাবি জানিয়েছিলেন । তাঁরা যুদ্ধবিদ্ধ্স্ত দেশ, উদ্বাস্তু শিবির ঘুরে দেখেছেন শুধু মানুষের লাশ, ম্যানহোলের পাইপে আশ্রয় নেয়া অসহায় ক্রন্দনরত শিশু-কিশোর, অগ্নিকান্ডে ভস্মীভূত গ্রাম, ক্ষুধার্ত অসহায় মানুষের আর্তনাদ ।

যারা বিশ্ববিবেকের কাছে এই আবেদন তুলেছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম মাদার তেরেসা, ব্রিটিশ এমপি জন স্টোনহাউজ, সিনেটর এডওয়ার্ড কেনেডি, সাংবাদিক জন পিলজারসহ ষাট জন ব্যক্তিত্ত্ব । মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর শুরুর দিকে ঢাকায় দূতাবাসগুলোতে একটি করে কপি দিয়েছেন । উদ্দেশ্য হলো তাদেরকে জানানো যে একাত্তরের দিনগুলোতে কী বিভীষিকাময় পরিস্হিতিতে বাংলার জনগণকে পড়তে হয়েছিল ।

মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার শুরু হয়েছে । যারা অপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত তাদের বিচারের কাঠগড়ায় তোলা হচ্ছে । বাংলাদেশের জনগণ আশা করে দুনিয়ার তাবৎ সভ্য মানুষ বাংলাদেশের মানুষের সাথে আছে এবং থাকবে । অবশ্যই থাকবে ।

ছবি- দ্য টেস্টিমনি অব সিক্সটি থেকে