ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 

অন্যসব লেখাগুলোর মত বর্তমান ব্লগটিও শুরু করবো একটি উদৃতি দিয়ে। উক্তিটি হল, একজন বয়স্ক মানুষের, যিনি রিটায়ার্ড আর্মি অফিসার, মহান মুক্তিযুদ্ধ বাংলার সাধারণ মানুষের হয়ে স্বাধীনতার পক্ষে লড়েছিলেনও। তিনি একদিন প্রসঙ্গবশত বলে বসলেন মেয়েরা খুব খারাপ, যথাসম্ভব হেদের থিকা দূরে থাকবা। তিনি গুরুজন, তার সঙ্গে তর্কে যেতে পারি না। তবে আমার মনপ্রাণ সেই কথা অস্বীকার করেছে, তার কথার বিরোধিতা করেছে।

মানুষ কেন এমন করে? কেন কোন রকম যাচাই-বাচাই, গভীর নিরীক্ষা ও চিন্তা-ভাবনা ছাড়াই উটকো সব মন্তব্য করে বসে? সেটা তারাই ভালো জানে। নারী-পুরুষ একই প্রকৃতির দুটি রূপ। এদের মধ্যে ভিন্নতা যেমন আছে তেমনি মিলও আছে। মৌলিক প্রয়োজন, চিন্তাধারা ও উপলব্ধি দুজনেরই এক। এখন কোন ভুল-ত্রুটি যদি প্রাকৃতিক ভাবে থেকে থাকে তবে তা দু’জনের মধ্যেই আছে। এর জন্যে কাউকে পৃথকভাবে দায়ী করা নিতান্ত অযৌক্তিক। ঐ কাকু যদি কথাটা বলার সময় একবার ভাবতেন মন্তব্যটা তার মেয়ের ব্যাপারে করছেন, মায়ের ব্যাপারেও করছেন; তবে অবশ্যই ভেবে নিতেন বলার আগে। কথা বলে ফেলার ব্যাপারে আমাদের তারাহুরা থাকে।

আরেকটা শ্রেণি আছে যাদের মস্তিষ্ক অন্য বিষয় দিয়ে অধ্যুষিত থাকে। তারা নিরপেক্ষভাবে মানুষকে ভাল-মন্দের মাপকাঠিতে মাপে না, মাপতে পারে না। তারা বিচার করে পক্ষ-বিপক্ষের মানদণ্ডে। এমন লোকেরা কখনো ধর্মগ্রস্থ হতে পারে, যাদের কাছে মেয়েরা কালো কাপড়ে আবৃত না হলেই খারাপ, নোংরা ও অরুচিকর। আবার রাজনীতিগ্রস্থও হতে পারে যারা স্বার্থের জন্য সত্যকে মিথ্যা আর মিথ্যাকে সত্য করে তোলে।

স্কুল জীবনে যেসব মেয়েরা আমার সাথে কথা না বলতো ওদের আমি নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখতাম। ওদের ওমন ব্যবহারের কারণ ছিল। আমি চাপা স্বভাবের নির্লিপ্ত মানুষ, ওরা আমার সাথে কেন যেচে কথা বলতে যাবে? আবার অদূর অতীতে নিজে যখন কোন মেয়ের সাথে প্রীতিকর সম্পর্ক গড়ে তুলতে না পারতাম তখন তাকে কারো সাথে ক্লোজ হতে দেখলে গা জলতো। ও খারাপ মেয়ে এটা ভাবলে সস্থি পেত মন। কারো সাথে কথা প্রসঙ্গে সে মেয়ের কথা উঠলে বকাও দিতাম, সেসব এখানে অনুল্লেখিতই থাক।

বয়সের অপরিপক্কতা বশত এসব কথা ভাবতাম। তবে এগুলো মনে শেকর গাড়েনি। আমি ব্যাক্তিগত ভাবে মেয়েদের ব্যাপারে খুব শ্রদ্ধাশীল। মানুষ হিসেবে কেউ ভুল করতেই পারে সে ভুল সুদরে নেয়ার অধিকারও তার আছে। আমি অবশ্য মন্তব্য খুব কম করি। আমি জানি আমার কত ভুল হয়, কথায় এমনকি নিরবতায়ও। তাই সচেতন থাকি।

আমার চেনা মেয়েগুলো, বিশেষত যারা আমার খুব ঘনিষ্ঠ, মানুষ হিসেবে অসাধারণ ওরা। সেই জন্যেই আমি এতটা আত্মবিশ্বাস নিয়ে মেয়েদের পক্ষে বলছি। অবশ্য ওদের বজ্জাত বা হারামীও বলা যায়, তবে অবশ্যই ভালবেসে বলতে হবে।