ক্যাটেগরিঃ অন্যান্য

 

এই যে আরব বিশ্বে এক একটি রাষ্ট্র গণতন্ত্রের জন্যে যে ভাবে একের পর এক তেড়ে-ফুঁড়ে উঠছে তা দেখে সঙ্গত কারণেই মনে হওয়াটা স্বাভাবিক- কোনদিন না আবার সউদি আরবে শুরু হয়ে যায় শাহী-তন্ত্রের তখত নিয়ে টানাটানি। আর এ কথা যারা মনে মনে ভাবছেন আর দিবা স্বপ্ন দেখছেন, তাদের জন্যে হতাশার বাণী ভিন্ন আর কিছু আছে বলে মনে করি না। যদিও আপাত দৃষ্টিতে মনে হতে পারে সউদি আরবের মানুষ আসপাশের দেশগুলোর অবস্থা দেখে অনুপ্রাণিত হতে পারে। রাজতন্ত্রর বদলে গণতন্ত্র দাবি করতেও পারে। শুরুতেও আমার এমন একটি ধারণা মনের ভেতর জেঁকে বসেছিলো। এ নিয়ে স্থানীয় দু-চারজনের সঙ্গে কথা বললে বরং হতভাগা হিসেবে আমার ভেতরকার দুঃখবোধ ফেনিয়ে উঠলো আরো।

আমি যখন জানতে পেলাম, সউদি সরকার তার প্রজাদের জন্যে এমন কতগুলো সুযোগ-সুবিধা দিয়ে রেখেছেন যে জন্যে প্রজারা শাসনতন্ত্র নিয়ে তেমন একটা মাথা ঘামাবে বলে মনে হয় না। পর্দা, বিবাহ, নারী অধিকার নিয়ে পত্র-পত্রিকায় যে সব হালকা-পাতলা বাক্য-বয়ানের কথা জানতে পাই তা সে দেশের সিংহভাগ মানুষের ভাবনার কথা নয়।

দেশটির কেউ যদি কৃষিখামার (মাজরা), বাড়ি নির্মাণ বা গাড়ি ক্রয় করতে চায় তাহলে সরকারের তরফ থেকে নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা রাখা আছে। লেখাপড়ার ক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রীর শিক্ষা যাতে কোনোরকম বাধার মুখে না পড়ে সে জন্যে শিক্ষাকালীন ভাতার ব্যবস্থা আছে। যে সউদি নাগরিক সরকারি কোনো ছোট পোস্টে চাকরি করছে তারও বেতন কাঠামো বেশ সুবিধা জনক।

দেশের মানুষ তার সরকারের বিরুদ্ধে কখন সোচ্চার হয়ে ওঠে? বঞ্চনা-শোষন-অভাব-দুর্নীতি ইত্যাদি যখন চরমাকার ধারণ করে তখনই মানুষ শাসন ব্যবস্থা পাল্টানোর কথা ভাবে। বর্তমানের অন্যান্য আরব দেশগুলোর দিকে তাকালে তাদের অস্থিরতার করণগুলোও স্পষ্ট বোঝা যায়, যা সউদি আরবের জনগণের কাছে অপরিচিত।

পুরুষের একাধিক বিয়ে, মেয়েদের পর্দাপ্রথা, সহশিক্ষা, সর্বত্র নারী-পুরুষের সহাবস্থান, নারীদের গাড়ি চালনার অধিকার নিয়ে আন্দোলন হতে পারে নিঃসন্দেহে। কিন্তু তিউনিসিয়া, মিশর, ইয়েমেনের মত এমন ব্যাপক আন্দোলনে সউদি নাগরিকদের কেউ উৎসাহি হওয়ার মত তেমন কোনো সম্ভাবনা দেখি না। মানুষের মৌলিক চাহিদাগুলোতে যখন ঘাটতি থাকে না তখন সে আশপাশের ছোটখাট বিষয় নিয়ে মাথা ঘামাতে হয়তো তেমন একটা উৎসাহ বোধ করে না। সুতরাং সউদি আরব যেমন চলছে এমনও যদি চলতে থাকে তাহলে পরবর্তী একশ বছর পর্যন্ত সউদি আরব এমনই নির্ঝঞ্ঝাট থেকে যাবে মনে হয়।