ক্যাটেগরিঃ ফটো

তবু তাহা ভুল জানি — রাজবল্লভের কীর্তি ভাঙে কীর্তিনাশা: তবুও পদ্মার রূপ একুশরত্নের চেয়ে আরো ঢের গাঢ় — আরো ঢের প্রাণ তার, বেগ তার, আরো ঢের জল, জল আরো; তোমারো পৃথিবী পথ; নক্ষত্রের সাথে তুমি খেলিতেছ পাশা: শঙ্খমালা নয় শুধু: অনুরাধা রোহিনীর ও চাও ভালোবাসা, না জানি সে কতো আশা — কতো ভালোবাসা তুমি বাসিতে যে পার! এখানে নদীর ধারে বাসমতী ধানগুলো ঝরিছে আবাো; প্রান্তরের কুয়াশায় এখানে বাদুড়ের যাওয়া আর আসা — এসেছে সন্ধ্যার কাক ঘরে ফিরে, — দাঁড়ায়ে রয়েছে জীর্ণ মঠ, মাঠের আঁধার পথে শিশু কাঁদে — লালপেড়ে পুরানো শাড়ির ছবিটি মুছিয়া যায় ধীরে ধীরে — কে এসেছে আমার নিকট? কার শিশু? বলো তুমি: শুধালাম, উত্তর দিলো না কিছু বটে; কেউ নাই কোনোদিকে — মাঠে পথে কুয়াশার ভিড়; তোমারে শুধাই কবি: তুমিও কি জানো কিছু এই শিশুটির।