ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

ব্লগে আমার লেখার অভিজ্ঞতা বলতে গেলে শূন্যের কোঠায়। বিভিন্ন মতের ব্লগারদের ভিন্ন ভিন্ন মতামত পড়তে সব সময়ই ভালো লাগতো তবে ইদানিং বিডি ব্লগের কিছু কিছু পোস্টে আলোচনা বা সমালোচনা করার লোভ সামাল দিতে পারিনা। ভেবেছিলাম জয়ন্তসাহার “সাউথ-ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়: সার্টিফিকেট নয়, পরিপূর্ণ শিক্ষা চাই” পোস্টেও যথারীতি কিছু মন্তব্য করবো, কিন্তু মন্তব্য হয়তো অনেকের নজরে পড়বে না তাই একটা পোস্টই করে ফেললাম। অনভিজ্ঞ ব্লগার মনে করে ভুল-ত্রুটি মার্জনা করবেন আশা রাখি।

জয়ন্তসাহার পোস্টের উত্তরে বলছি:

“পরিপূর্ণ শিক্ষা” ! তাও আবার এইসব বিশ্ববিদ্যালয় নামের সার্টিফিকেট কারখানা গুলোতে। এইসব সার্টিফিকেটখানা গুলোতে যেসব বিষয়ের সার্টিফিকেট দেয়া হয় সেই সব বিষয় গুলো পড়ার মত ছাত্র বা পড়ানোর মত শিক্ষক কি ওখানে আছে ? শিক্ষা নিয়ে কারবারি ছাড়া আর কিছু কি হয় ওখানে ? পত্রিকায় দেখলাম আরো ১০ খানা সার্টিফিকেট মেশিন বসানোর অনুমতি দিয়েছে সরকার। কোথায় বিকলাঙ্গ মেশিন গুলো বন্ধ করবে তা না আরো বসানোর অনুমতি। আমাদের কি আসলেই সার্টিফিকেটধারী অজ্ঞ লোকের খুব দরকার ? উদাহরণ হিসেবে দেখুন, যাদের পলিট্যাকনিকে ডিপ্লোমা পড়ার যোগ্যতাও নাই তারা বাবা মায়ের টাকার শ্রাধ্য করে পড়ছে ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং / টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং / টেলি-কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং / ফার্মেসী / মাইক্রোবায়োলজির মতো বিষয়। আর তাদের পিতা-মাতাও গর্ব করে বলে থাকেন তাদের সন্তান এই পড়ছে ঐ পড়ছে, কিন্তু তাদের কষ্টের টাকা কোথায় যাচ্ছে সেই খবরও রাখেন না। যাদের অগাধ কালো টাকা আছে তাদের কথা না হয় বাদ থাকলো !

সত্য কথাটি অনেকের কাছেই একটু তেঁতো মনে হতে পারে কিন্তু এটাই ওখানকার আসল চেহারা। যারা পড়াচ্ছেন তারাও ভাল করেই জানেন ওনারা ছাত্রদের কি দিচ্ছেন আর যারা পড়ছেন তাদের অনেকের তো ধারণাই নাই যে তারা যেসব বিষয়ে পড়ছেন সেসব বিষয়ে সত্যিকারের গ্রাজুয়েশান ডিগ্রী পেতে হলে কি শিখতে হয় বা কতটুকু জানতে হয়। আমাদের দেশের পঁচা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় সম্পূর্ণ অনৈতিক উদ্দেশ্যে যেসব সার্টিফিকেট মেশিন বসানো হয়েছে, দেশের সকল সৎ রাজনীতিবিদের উচিত ঐক্যবদ্ধ হয়ে ওই সব বোগাস বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধে একমতে আশা যাতে অন্তত শিক্ষার নামে সার্টিফিকেট ব্যবসা বন্ধ হয়। অন্তত এই ইস্যুটায় কি আমাদের সরকার ও বিরোধী দল এক মতে আসতে পারে না?

কাউকে ব্যক্তিগত ভাবে আঘাত বা হেয় করার জন্য আমার এই মন্তব্য নয়, বরং শিক্ষার নামে যারা সার্টিফিকেটের মুদিখানা খুলে বসেছে তাদের বিরুদ্ধে, হয়তো ব্যর্থ, একটা প্রতিবাদ।