ক্যাটেগরিঃ ব্লগালোচনা

 

রীতা রায় মিঠু তথা রীতাদির নেতাজী আর আমাদের প্রিয় বাসন্ত বিষুব, ম, সাহিদ ভাই এর মত আমিও দাদাই বলি, আশাকরি গ্রহণ করবেন। এসএসসি তে ভূগোলের প্রতি একটা বিশেষ টান সব সময়েই ছিল। স্কুলের ভূগোল স্যারের ভূমিকাই ছিল যার পিছনে মূল কারণ, এতো সুন্দর ছিল তার উপস্হাপনা, ক্লাসে সন্মোহিত হয়ে যেতাম মাঝে মধ্যেই, যেমন- বিষুব রেখা, কর্কট ক্রান্তি বা মকর ক্রান্তি নিয়ে যখন পড়াতেন মনে হতো যেন কল্পিত রেখা গুলো চোখের সামনে ভেসে উঠছে। সেই বিশেষ আগ্রহের কারণেই হয়তো আজো মনে আছে “বসন্ত বিষুব ও শরৎ বিষুব” শব্দ দুটো। তবে শব্দ দুটো ভুল ভাবে মনে রাখাটা আজ একটু সংশোধন করে নিলাম আপনার লেখা পড়ে, অনেক কৃতজ্ঞতা। “বসন্ত বিষুব ও শরৎ বিষুব” নয়, সঠিক শব্দ দুটো হল “বাসন্ত বিষুব ও শারদ বিষুব”।

দাদা আপনার চমৎকার লেখনি আর প্রকাশভঙ্গিতে মুগ্ধ হবার পাশাপাশি বিডি ব্লগে আমার নাম নিবন্ধন নিয়ে একটু বলতে চাই, ব্লগে আমি খুব একটা অ্যাক্টিভ কখনোই ছিলাম না। তবে “সোনার বাংলাদেশ ব্লগে” অল্প কয়েকদিন, নিউজ পেপারের বিশেষ বিশেষ খবরের নিচে মন্তব্য, আর এই বিডি ব্লগে অ-নিবন্ধিত অতিথি হিসেবে সত্যিকারের নাম পরিচয়ে মন্তব্য করার মধ্যেই সীমিত ছিল আমার ব্লগ একটিভিটিস। একটা রাজনৈতিক বলয়ের প্রতি সমর্থন থাকার কারণে সঙ্গত কারণেই ১০০ ভাগ নিরপেক্ষ কখনোই হতে পারতাম না, আর সেখানেই বাধতো বিপত্তি, অজস্র গালিধারা বর্ষিত হতো প্রতিনিয়ত। সেই অভিজ্ঞতা থেকেই বিডি ব্লগে প্রকৃত নাম লুকিয়ে ছদ্ম নামে নিবন্ধিত হলাম। এবার আমার ছদ্ম নাম নিয়েই বাধলো বিপত্তি, “কালের কণ্ঠ” পত্রিকার নামের সাথে মিলে যাওয়াতে গালি শুনতে হয়েছে অনেকবার, নাম চোর খেতাবও দেয়া হয়েছে। সত্যি কথা কি, দীর্ঘদিন দেশের বাইরে থাকার কারণে “কালের কণ্ঠ” পত্রিকা সম্পর্কে আমার ধারনা খুব একটা ছিলনা বা কখনো পড়তামও না। তাছাড়া ওই পত্রিকার প্রকাশনা সম্ভবত শুরু হয় আমি প্রবাসী হবার পর এবং তাই বিডি ব্লগে নিবন্ধনের সময় ওই পত্রিকার নাম আমার মগজেই ছিল না। নিছক আপনার মত আসল নাম লুকিয়ে সুন্দর একটা নাম নিতে গিয়েই একটা অনাকাংখিত কনফিউশন তৈরি হল। এখন না পারছি ফেলতে, মাঝে মধ্যেই না পারছি গিলতেও। তাই সকল সম্মানিত ব্লগারদের প্রতি অনুরোধ রইলো “আংশিক নয় পুরো সত্য- কালের কণ্ঠ” আর এই নগন্য ব্লগার “কালেরকণ্ঠ”কে কেউ এক করবেন না বা বিভ্রান্ত হবেন না, এটা আমার ইচ্ছাকৃত ভুল নয়।

অশেষ ধন্যবাদ দাদা, আপনার লেখা আমার নিজের কিছু কথা শেয়ার করতে অনুপ্রাণিত করলো যা একটু হলেও কনফিউশন দূর করবে আশা রাখি।