ক্যাটেগরিঃ ফিচার পোস্ট আর্কাইভ, স্বাধিকার চেতনা

শুধু পাকিপ্রেমী রাজাকাররাই হাসিনা বিরোধী নয়, কিছু মুখোশধারী সুবিধাবাদীও শেখ হাসিনার বিরোধিতা করতে দেরি করে না। তারা ভেবেছিলো শেখ হাসিনা রাজাকারদের বিচার করবেন না। আজ কুখ্যাত নরঘাতক রাজাকার নিজামীর ফাঁসির রায় হয়েছে।

যে হাসিনা নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে, নিজের দল ও কর্মীদের বিপদে ফেলেও রাজাকারদের বিচার করছেন সেই হাসিনার সমালোচনা করে কিছু কাপুরুষ পরজীবীরা।কী করেছিলো এই মেরুদণ্ডহীনরা যখন দুর্নীতির রানী খালেদা এই রাজাকারদের মন্ত্রী বানিয়েছিলো? রাজাকারদের হামলায় যখন আওয়ামী লীগাররা প্রান দিচ্ছিলো তখন কোন গর্তে ছিলো এই সমালোচকরা?

রাজাকাররা নিজামীর বিচারকে অন্যায় বলছে। রাজাকার নিজামী ৭১ এ কোথায় ছিলো আর কি করছিলো সেই খবর আছে জামাতী পত্রিকা সংগ্রামের ৭১ এর সংখ্যাগুলিতে। ঘাতক আল বদর বাহিনীর প্রধান হিসেবে নিজামী তার অনুসারীদের নির্দেশ দিয়েছিলো মুক্তিযোদ্ধাদের খুন করতে, তাদের বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে দিতে।এই সেই নিজামী যাকে ১৯৮৮ সালে ছাত্ররা ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে গনপিটুনি দিয়ে কাপড় খুলে নিয়েছিলো ৭১ এ তার কুকর্মের জন্য। তখন কি হাসিনা ক্ষমতায় ছিলেন?

৭১ এ নিজামী ছিলো স্বাধীনতা বিরোধী জামাতের ছাত্র সংগঠন ছাত্র সংঘের সভাপতি। এটাই তো তার ৭১ এর অপকর্মের মাত্রা নির্দেশ করে দেয়। যারা জেনেশুনে এই ঘাতকের বিচারে ইসলামকে টেনে আনে তারা নিশ্চিতভাবেই ইসলামকে অপমান করে। পাপী যেই হোক, তার বিচার করা ইসলামের অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য।