ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

শবে বরাতের আতশবাজিকে কেন্দ্র করে ভয়াবহ সংঘর্ষ হয়েছে মিরপুরে। এ পর্যন্ত বিভিন্ন টিভি নিউজে ৩ থেকে ৮ জন পর্যন্ত নিহত হবার সংবাদ দেখাচ্ছে। সংঘর্ষের সময় কয়েকটা বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিলে হতাহতের ঘটনা ঘটে বলে টিভি সংবাদে উল্লেখ করা হচ্ছে। সংঘর্ষে লিপ্ত দুই পক্ষকে নিবৃত্ত করার জন্য পুলিশ লাঠিপেটা করলেও তা পরে ত্রিমুখী সংঘর্ষে রূপ নেয়।

শবে বরাতে আতশবাজি ফোটানোর সংস্কৃতি বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে জাতিভেদে নানারকম হয়। শহর ও গ্রামেও তারতম্য রয়েছে। অভিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে আতশবাজি ফোটানোর সংস্কৃতি বেশী পরিলক্ষিত হলেও সেসব নিয়ে এমন প্রাণঘাতী সংঘর্ষ আগে ঘটেনি।

আতশবাজি নামে যে পটকাগুলো বাজারে বিক্রি হয় বিগত কয়েকদশকে সেসবের গুণগত মান পরিবর্তন হয়েছে। আগের তুলনায় অধিক শক্তিশালী এবং বিকট আওয়াজ তৈরী হয় এমন আতশবাজি ও পটকা এখন বেশী তৈরী হচ্ছে এবং উৎসবে তার ব্যবহারও অত্যধিক। ফলে মানুষের মধ্যে এসব আওয়াজ ভীতির উদ্রেক ঘটাতে পারে এবং অন্যান্য অপরাধ সংগঠনের সুযোগ উসকে দিতে পারে।

মিরপুরে আতশবাজি নিয়ে সৃষ্ট সংঘাত চোখে আঙুল দিয়ে সেটাই দেখিয়ে দিলো।