ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 
Tarek

বিএনপি সম্পূর্ণ দিশেহারা! লন্ডনে বসে বাংলাদেশে বিএনপির রাজনীতির পরিচালক তারেক জিয়া বঙ্গবন্ধুকে গালাগালি করে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। একাত্তুর পরবর্তী প্রজন্ম যাদের গৌরব ও অহংকারের বিষয় মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু তাদের কাছে তারেকের এই কর্মকাণ্ড স্পর্ধিত এবং ঘৃণ্য মনে হয়েছে। কারণ তারেকের এসব অযৌক্তিক বক্তব্য এই প্রজন্মের আত্মপরিচয়কে বিভ্রান্ত করেছে, সংকটে ফেলেছে।

এটা তরুণরা কখনই মেনে নেয় না – তাদের মুক্তিযুদ্ধ, তাদের কাছে স্বাধীনতা যুদ্ধের হিরোইজম, একজন কারিশমাটিক নেতা থাকার প্রয়োজনীয়তা, তার জ্বালাময়ী বক্তৃতা, শত্রুর উপরে বিজয় ইত্যাদি জনপ্রিয় জাতিয়তাবাদের উপকরণ, স্মৃতিচারণ, অ্যাডভেঞ্চার, অহংকার এবং আভিজাত্য তরুনদের মনন তৈরী করেছে, অস্তিত্ব তৈরী করেছে। ফলে মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী এই প্রজন্ম যারা সংখ্যাগরিষ্ঠ – এবং এরাই এখন সমাজের সর্বস্তরে প্রভাব বিস্তারকারী তাদের কাছে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে তারেক জিয়ার যুক্তিহীন বক্তব্য উপস্থাপন হাস্যকর ও বাতিল বলে চিহ্নিত হয়েছে। তারেক জিয়ার এমন দৃষ্টিভঙ্গির সম্পূর্ণ বিপরীত তার শ্রোতা ও কর্মীদের দৃষ্টিভঙ্গি – বিষয়টা খুবই দু:খজনক।

এখন তারেকের যেকোনো বিএনপিময় কর্মকাণ্ড বিএনপিকে আরো এই প্রজন্মের কাছে ঘৃণিত ও কালিমালিপ্ত করছে। মুক্তিযুদ্ধের হিরোইজম নিয়ে এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রধান নেতা হিসাবে বঙ্গবন্ধুর অবস্থানকে স্বীকার করেই নিজেদের আত্মপরিচয় তৈরি হওয়া মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী প্রতিটা মানুষের স্বাভাবিক নির্মাণ – যাকে আক্রমণ করে কোনো নেতা টিকতে পারার স্বপ্ন দেখা তো দূরের কথা – পৃথিবীতে বেঁচে থাকার স্বপ্নও দেখতে পারে না। জাতীয়তাবাদ তো ভয়ঙ্করই – আর তার সবচেয়ে বড় যে পিলার – দেশ তৈরির – দেশ স্বাধীনতার গর্বের জায়গাকে যারা নির্মমভাবে আঘাত করে তাদের প্রতি জাতি হিসাবে আত্মপ্রকাশ করা একটা জনগোষ্ঠীর মানুষ খুবই নির্দয় হয়। তারেকের জন্য কোনো ভালো পরিণতি আশা করা যাচ্ছে না। খুবই দু:খজনক।