ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

বিএনপির পারিবারিক হরতাল আর খালেদ জিয়ার আপোষ হীনমন্যতার রাজনীতিতে সংসদে জনগণের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে কথা বলার মত শক্তির অভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। বক্তব্যে, যুক্তিতে সারবত্তা থাকলে তুমুল প্রতিরোধের মধ্যেও সংসদে কথা বলা যায়। সংসদে প্রতিপক্ষ থাকে, যারা অংশত জনগণের কথাই বলে এবং সারা দেশের মানুষ মূলত সেই বক্তব্য-প্রতিবক্তব্য শুনেই কোন দলকে বা কোন নেতাকে সমর্থন করবে সে সিদ্ধান্ত নিতে পারে। প্রতিপক্ষের যুক্তি-পাল্টা যুক্তি এড়িয়ে নির্বিঘ্নে উপস্থাপিত বক্তব্য যা সাধারণত এখন সংবাদ সম্মেলন আর দলীয় জনসভায় করা হচ্ছে তার বিন্দুমাত্র মূল্য নেই। নিজের ঘরে সবাই রাজা – জনতার মুখোমুখি হতে হলে বিপক্ষ দলীয় সাংসদদের মুখোমুখি কথা বলার মত সৎসাহসটুকু থাকা চাই।

দুই দুর্নীতিবাজ সন্তানকে রক্ষায় একতরফা হরতাল দিয়ে কিছুই প্রমাণ করা যায় না। অপরিকল্পিত শহর হিসাবে গড়ে ওঠা ঢাকা নগরে মাত্র দশ/পনের হাজার দলীয় কর্মী থাকলেই যে কোনো হরতাল সফল করা সম্ভব, কিন্তু দেশের ষোলো কোটি মানুষের কাছে নিজের জোড়ালো বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য সংসদ ছাড়া বিকল্প নাই।

বিএনপির সেই শক্তি ও সাহস নেই বলেই জনগণের মুখোমুখি হচ্ছে না এবং হরতাল ছুড়ে ক্রমশ জনগণের প্রতিপক্ষ হিসাবে নিজেদের পরিচিত করছে। হচ্ছে।