ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

আজ সকালেই দুঃসংবাদ শুনে দিনটা শুরু হলো। আমার এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু শাহজাদা ফারুক জানালেন তার শশুর বীর মুক্তিযোদ্ধা সামসুজ্জামান (৬০) গতকাল ৩০শে অক্টোবর বিকেল ৪টায় শ্রীনগর থানায় নিজ গ্রাম মান্দ্রা, ভাগ্যকূলে সন্ত্রাসীদের নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। সন্ত্রাসীরা তার বাম হাতের বাহু ও কবজির উপরিভাগে ধারালো চাপাতির উপর্যুপরি আঘাত করে। তিনি এখন মিটফোর্ড হাসপাতালে ক্যাজুয়ালটি ওয়ার্ডে (১৬), বেড নম্বর এমএক্স-৫ এ ভর্তি রয়েছেন।


হাসপাতালে আহত সামসুজ্জামান স্বপন

গতকাল বিকেলে সামসুজ্জামান স্বপন ব্যবসায়িক কাজে যখন তার ট্রাক নিয়ে মান্দ্রার একটা সড়ক দিয়ে যাচ্ছিলেন তখন দুর্ঘটনাবশত সড়কের পাশের একটা বৃক্ষকে আঘাত করে। এতে পার্শ্ববর্তী বাড়ীর লোকজন পূর্ব শত্রুতার জের ধরে স্বপনের উপরে সম্মিলিতভাবে আক্রমন চালায়। তিনি যাদেরকে শনাক্ত করেছেন তারা হলো মনির, মোয়াজ্জেম ও তাদের সহযোগী কতিপয় সন্ত্রাসী। উল্লেখ্য আক্রমণকারীরা দীর্ঘদিন যাবত স্বপনের ভিটেবাড়ি দখল করার জন্য নানারকম কুটকৌশল চালিয়ে আসছে এবং কোনো সুযোগ না পেয়ে অবশেষে তার উপরে সামান্য অজুহাতে পৈশাচিক আক্রমন চালায়। তদুপরি যে বৃক্ষ নষ্ট হয়েছে বলে তারা অভিযোগ করেছে তা সরকারী সম্পত্তির উপরে অবস্থিত। আজ সকালে শ্রীনগর থানায় মামলা করার প্রস্তুতি চলছে।

শাহজাদা ফারুক সূত্র জানতে পারি মুক্তিযোদ্ধা সামসুজ্জামান স্বপন ইট-বালুর ব্যবসা করেন এবং নিজের ট্রাকে মালামাল সমেত বিভিন্ন সময় যাতায়াত করেন। এলাকায় সুনামের সাথে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন এই বীর মুক্তিযোদ্ধা।

মহান মুক্তিযুদ্ধে ৯ নম্বর সেক্টর কমান্ডার মেজর এম এ জলিল-এর অধীনে সামসুজ্জামান স্বপন যুদ্ধ করেন। তার উপরে নির্মম নির্যাতনের তীব্র প্রতিবাদ জানাই। সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে অবিলম্বে শাস্তির ব্যবস্থা না করলে স্বাধীনতার চেতনাকে ভূলুণ্ঠিত করা হবে এবং মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমন করে সন্ত্রাসীরা নিরাপদে যদি ঘুরে বেড়াবার সাহস পায় তবে সাধারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তা বলতে আর কিছু অবশিষ্ট থাকবে না। বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করতে পারেন শাহজাদা ফারুকের নম্বরে ০১৭১৪০০৭৯৭৪।