ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

বাংলাদেশের ওয়েব স্পেসে কমিউনিটি গড়ে ওঠার বিষয়টি সর্বাগ্রে চোখে পড়ে। এই কমিউনিটি মূলত প্রথম দিকে ছিলো অলনারটিভ চিন্তার ক্ষেত্র। পূর্ব পরিচয়হীন অনেকগুলো মানুষ নিজেদের মধ্যে ক্রমশ যখন পরিচিত হতে থাকলো তখন তাদের আরো নানা মতাদর্শ স্পষ্ট হতে শুরু করে। সেই সময়টাকে যদি আমরা চিহ্নিত করি, মানে সেই শুরুর দিকটা, তখন অলটারনেটিভ কনটেন্ট যা ধর্মকে ভিন্নভাবে দেখার, রাজনীতিকে ভিন্নভাবে দেখার মত ছিলো।

মেইনস্ট্রিম মিডিয়া – মেইনস্ট্রিম পলিটিক্সের মতই দুইভাবে বিভক্ত। ধর্ম ও মৌলবাদ নিয়ে সাইবার স্পেসে সেই একই কথা বলার মধ্যে কোনো অলটারনেটিভ ভিউজ নেই, তেমনি নাই মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষ শক্তি হিসাবে পরিগনিত দলের একটিভিজমেও।

ফলে প্রথম আমরা অলটারনেটিভ ভিউজ দেখলাম মূলত এই সমীরকরণ ভেঙে যাওয়াতে। ওয়েবে দেখা গেলো মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষ শক্তি কিন্তু সমালোচনা করছে আওয়ামী লীগকে, আবার প্রচন্ড ধর্মভীরু মানুষ, প্রকারন্তরে মৌলবাদীই – কিন্তু কথা বলছে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে। ব্লগে ছাগু নামে একটা গোষ্ঠী আছে যাদেরকে চিহ্নিত করা হয় রাজাকার বা জামাত শিবির হিসাবে – তাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার।

ভারত ও পাকিস্থান বিরোধীতা একই সাথে দেখা গেলো ব্লগে। এসব স্পেস মুলত ব্লগেই দেখা গেলো।

প্রতিষ্ঠিত নিউজের বিরোধিতাও দেখা গেলো। সংবাদের সাথে কর্পোরেট সংযোগের প্রমাণ হাজির হতে দেখা গেলো ব্লগে।

সাইবার স্পেসে এখন বিকল্প মিডিয়া নামে মূলত সমাজের পরিচিত বা ডমিনেন্স চিন্তারই প্রসার দেখা যাচ্ছে বেশী। যেমন অলটারনেটিভ মিডিয়ার অস্তিত্ব বেশীদিন থাকতে পারে না, তেমনটিই ঘটছে। কিন্তু নতুন নতুন প্লাটফর্ম আবার আবির্ভূতও হচ্ছে।

সেই সাথে ইন্টারনেট ছড়িয়ে যাচ্ছে এলিট থেকে নিম্নমধ্যবিত্ত-দরিদ্র শ্রেণীর মাঝেও। এই শ্রেণীর কাছে প্রযুক্তি সহজলভ্য হওয়ায় অচিরেই তাদের ইন্টারনেট ব্যবহারের নানারকম প্রোগ্রাম নিয়ে হাজির হবে ব্যবসায়িক কোম্পানীগুলো যা তাদের বোধগম্যতার মধ্যে ইন্টারনেটকে হাজির করবে। সে সময়টাতে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন দেখা যাবে প্রায় ভোজবাজির মতই।

তবে সাইবার স্পেসের দ্রুত কমিউনিকেশন ক্ষমতার সুযোগে প্রকাশিত ভিউজ তা যদি প্রো-পিপল হয় ছড়িয়ে যাচ্ছে দ্রুত। এই শক্তির জায়গা থেকে মানুষ সংগঠিত করতে পারঙ্গম কোনো নেতৃত্ব সহসাই মেইনস্ট্রিম পলিটিক্সেও আবির্ভূত হবে বলে আগাম কল্পনা করে নেয়া যায়। কারণ সামনের দিনে বাংলাদেশে তিনিই হয়তো যোগ্য নেতা হিসাবে আবির্ভূত হবেন যিনি তার সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারে সবচেয়ে বেশী দক্ষ এবং তার ভিউজ ও নিউজ দিয়ে সবচেয়ে বেশী মানুষকে আন্দোলিত করার ক্ষমতা রাখেন। সময় সমাগত।