ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

 

ভারতের অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি যখন বাংলাদেশের পেসার মুস্তাফিজুর রহমানকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে রান নিতে এগুচ্ছিলেন, তখন হেসে উঠেছিলাম একজন অধিনায়কের এহেন অপরিপক্কতায়। পরক্ষণেই চিন্তিত  হয়েছিলাম, সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ে ‘ভারত বিদ্বেষ ট্রাম্পকার্ড’ ঝলসে ওঠার সম্ভাবনা দেখে। তবে আশঙ্কাটি বলতে গেলে অমূলক রূপে দেখা দিল। ধোনির ‘ফাউল প্লেয়িং’ অথবা অ্যারোগেন্ট আচরণের রেকর্ড ক্রিকেট বোদ্ধাদের নিকট তেমন নেই। এ কারণেই খোদ ভারতীয় মিডিয়াই ধোনির আচরণে বিস্ময় প্রকাশ করেছে। অনেকেই ধোনির এই বডি ল্যাংঙ্গুয়েজ মেলাতে পারেননি এতদিনের ধোনির সঙ্গে। ধোনির এই আচরণ ক্রিকেটের নয় এমনটাই স্পষ্ট হচ্ছে বাংলাদেশ-ভারতের আলাপে।

বাংলাদেশের পত্রিকাগুলোকে অনেক ক্ষেত্রেই ছাপিয়ে গিয়ে আলোচনায় রেফারেন্স হয়ে উঠেছে কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকার শিরোনাম, যাতে অকুণ্ঠচিত্তে বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমের প্রশংসার ফুলঝুরি উড়ছে। ভারতীয় এনডিটিভি চ্যানেলের স্ক্রলিং–এ ধোনির ৭৫শতাংশ জরিমানার স্ক্রলিং বারবার আসছে-যাচ্ছে। সব মিলিয়ে খেলায় হার নয়, অধিনায়ক ধোনির অ-ক্রিকেটীয় আচরণই ভারতীয় ক্রিকেট টিমকে হারিয়ে দিল।

স্ক্রিনে তাৎক্ষণিক রিপ্লে’তে ধোনির কনুইগুতোয় ছিটকে পড়া মুস্তাফিজুরকে দেখতে দেখতে এ-ও ভাবছিলাম, উনিশ বছরের পেসার ক্রিজের ঠিক ওইখানে কেন দাঁড়িয়েছিলেন? খচ খচ করা চিন্তাটা পরিষ্কার হলো আইসিসির জরিমানা সংবাদে। ধোনিকে জরিমানা করা ছাড়াও, ম্যাচ ফির ৫০শতাংশ জরিমানা  করা হয় মুস্তাফিজকে। অবসরপ্রাপ্ত ভারতীয় খেলোয়াড় সঞ্জয় মাঞ্জরেকার ধোনির জরিমানাকে স্বাগত জানাননি এবং তিনি একই সঙ্গে রানারের পথে মুস্তাফিজের দাঁড়ানোকে প্রতিবন্ধকতা বোঝাতে চেয়ে টুইট করেন।  মূলত মুস্তাফিজের জরিমানার কারণও ছিল এটা, যা আইসিসি বোর্ডে মুস্তাফিজ মেনেও নেয়। ধোনির কনুই নিয়ে বাংলাদেশিরা যতটা আলোচনা করছে, মুস্তাফিজের দুবার রানারের পথ আগলে দাঁড়ানোকে ততটাই এড়িয়ে যাচ্ছে।

মুস্তাফিজ ধোনির দৌড় পথের ওপর উঠে এলেও ধোনির মতো অভিজ্ঞ খেলোয়াড় তাকে কিছুটা পাশ কেটে যেতে পারতেন অথবা বড়জোর একটি স্বাভাবিক অনিবার্য সংঘর্ষ হতো দুজনের। খেলার ধারণকৃত দৃশ্য দেখলে সাদা চোখে বোঝা যাচ্ছে, ধোনির ধাক্কা উপায়হীন হয়ে নয়। অন্যদিকে ভারতীয় ক্রিকেটার রোহিত শর্মা রান নেওয়ার পথে দাঁড়িয়ে থাকার জন্য তাৎক্ষণিক ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন মুস্তাফিজকে নিয়ে। তারপরেও মুস্তাফিজকে এরপর ধোনির পথের মাঝে দাঁড়াতে দেখা গেল। স্লো-মোশনে দেখলে, সহজে বোঝা যাবে, ধোনি যে দৌড়ে আসছেন, সেটা মুস্তাফিজ ঘাড় ঘুরিয়ে দেখেছিলেনও, তথাপি তিনি তার অবস্থান থেকে সরে যাননি, বরং দাঁড়িয়ে ছিলেন। বল করার পর কিছুটা এগিয়ে এসে তার শারীরিক গতি এতটাও ছিল না যাতে মনে হতে পারে মুস্তাফিজ নিজের গতির ভারসাম্য রাখতে না পেরে ওই অবস্থানে, অর্থাৎ ধোনির দৌড়পথের মাঝে গিয়ে দাঁড়ান। যেমন করে ভারতীয় মিডিয়া স্ক্রলবারে প্রশ্ন রাখছে  ‘Did MS Dhoni intentionally push Bangladesh bowler Mustafizur Rahman?’, আমরাও কি একইভাবে প্রশ্ন রাখতে পারি না, ’মুস্তাফিজ কি ইচ্ছাকৃতভাবেই দু’বার রানারের পথের মাঝে দাঁড়িয়ে গিয়েছিল?’

মহেন্দ্র সিং ধোনি অধিনায়ক হিসেবে সেদিন ঠাণ্ডা মাথায় কৌশলি হলে, তিনি মুস্তাফিজকে সামান্য এড়িয়ে রান নিতেন এবং অফিসিয়ালি কমপ্লেইন করতেন মুস্তাফিজের নামে। সেক্ষেত্রে  আলোচনা আর এখনকার মতো থাকত না এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমের জন্য বিষয়টা বিব্রতকর হতো।  বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ উত্তেজনা পরিস্থিতিকে খেলোয়াড়সূলভভাবে সামলাতে দেয়নি বলেই ধোনি নিজের ‘ত্রুটি’তে বিপাকে পড়েছেন এবং ঢাকা পড়ে গেছে মুস্তাফিজের ‘ভুল’।

এর আগে বাংলা ট্রিবিউনের একটা কলামে লিখেছিলাম, ‘আগামীতে বাংলাদেশ-ভারতের যেকোনও ম্যাচ ‘ইগোসেন্ট্রিক’ ম্যাচ হবে। বোঝা যাচ্ছে আগামীতে বাংলাদেশ-ভারতের যেকোনও ম্যাচের হার ও জিত কঠোর ‘প্রেস্টিজিয়াস’ হয়ে উঠবে। বোঝা যাচ্ছে আগামীতে বাংলাদেশ-ভারতের যেকোনও ম্যাচকে ঘিরে বিজ্ঞাপন ব্যবসা জমজমাট হবে।’  এই ম্যাচটি সেই ধারণাকে সত্য করল।

উপমহাদেশীয় রাজনীতি খেলাতেও প্রভাব রাখে এতে কোনও সন্দেহ নেই। এ কারণে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচগুলোর উত্তেজনা অ্যাকশন মুভির মতো হয়। ভারত-বাংলাদেশের রাজনৈতিক ট্রাম্পকার্ড  চালে  আমরা ক্রিকেটে জয়ের স্বাদ নিয়ে আত্মতৃপ্তি খুঁজতে উদ্যত হয়েছি বহুবার। সর্বশেষ বিশ্বকাপে পাকিস্তানি আম্পায়ার আলিমদারের ভুল সিদ্ধান্তে আমাদের ভাগ্য বৈরী হওয়ায় ভারতকে এক হাত দেখে নেওয়ার প্রস্তুতি কেবল খেলোয়াড়দেরই ছিল তা নয়, ক্রিকেট ভক্ত আর সোশ্যাল নেটওয়ার্কাররাও উত্তেজিত ছিল ভারতবধের প্রত্যাশায়। অর্থ্যাৎ কেবল জেতা নয়, ‘বদলা’ নেওয়ার চাপও ছিল আমাদের খেলোয়াড়দের ভেতরে।

বাংলাদেশের আত্মবিশ্বাস আরও আগেই মজবুত হয়ে উঠেছিল, পাকিস্তানকে ধবল ধোলাই করে র‌্যাঙ্কিং নামিয়ে দেওয়ার পর বিশ্বের ক্রিকেট বোদ্ধারা  মাঠে বাংলাদেশ টিমের পোক্ত আসনকে বুঝে গিয়েছিল।  ভারত-পাকিস্তানের ক্রিকেট অবকাঠামো, অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের চেয়ে পুরনো। এ কারণে তুলনামূলকভাবে পরের টিম বাংলাদেশের ধারাবাহিকভাবে অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠা ভারত-পাকিস্তানের একছত্র মাঠ দখলের ইতিহাসকে যখন কোণঠাসা করে দিতে থাকে, তখন তা মেনে নেওয়া সহজ হয় না অভিজ্ঞ দুটো দলের পক্ষে। ফলে শুরু হয় ইগো আর প্রেস্টিজের  খেলা। ইগো আর প্রেস্টিজের খেলা মাঠের মূল খেলাকে ছাপিয়ে ওঠে। এই খেলায় খেলোয়াড়  এবং দর্শক সকলেই চাপের মধ্যে থাকে। মুস্তাফিজ এবং ধোনির আচরণ কি তবে সেই ইগো ও প্রেস্টিজ উদ্ধার ‘চাপের’ পরিণতি?

বাংলাদেশের পক্ষে ভারতের মিডিয়ার ঝুঁকে থাকা অবস্থানের কারণে এবার বিশেষ কোনও হল্লা সৃষ্টির সুযোগ না হলেও, শেষ পর্যন্ত উপমহাদেশীয় রাজনীতির কাছে ক্রিকেট পরাস্ত হলই। পাকিস্তানের সাবেক ফাস্ট বেলার সরফরাজ নওয়াজ বোধকরি  মাঠ-গ্যালারি-ফেসবুক উত্তপ্ত করতেই  বাংলাদেশের জয়কে ভারতের ষড়যন্ত্র হিসেবে উল্লেখ করলেন। বাংলাদেশ ক্রিকেট ভক্তরা যেমন করে অভিযোগ করে যে ভারত চায়না বাংলাদেশ ক্রিকেটে আগে বাড়ুক, তেমন করে সরফরাজ নওয়াজও বলেন ভারত চায়না পাকিস্তান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলুক। সুতরাং, আগামির বাংলাদেশ-ভারত-পাকিস্তানের যে কোনও খেলা খেলার মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বিতার চেয়েও আরও বেশি কিছু অর্থ বহন করবে, এটা আবারও স্পষ্ট। আর মাঠ যত উত্তপ্ত থাকবে, বাণিজ্য হবে তত।

ক্রিকেট পুরোদস্তুর একটি কর্পোরেট হাউজ । এখানে ‘উত্তেজনা’ই  বিজ্ঞাপনের আবেদন। ক্রিকেট উত্তেজনাকে কাজে লাগিয়ে ‘ডাইরেক্ট ভাইঙ্গা দিমু’ অথবা ‘ব্যাম্বু ইজ অন’ এর মতো আরবান স্ল্যাং -ও  মুখে মুখে জনপ্রিয় স্লোগান হয়ে উঠছে। ওদিকে ‘মওকা মওকা’ আর এদিকে ‘ব্যাম্বু…’, মাঝে কেবল নিপাট বাণিজ্য।

শেষ পর্যন্ত যদি টিম স্পিরিট আর স্পোর্টিং স্পিরিটকে বাঁচিয়ে রাখতে হয়, তাহলে প্রত্যেক টিমকে ‘সাদা’ খেলা খেলতে হবে মাঠে। তাতে হার হোক অথবা জিত। ‘ক্যাপটেন কুল’ হিসেবে পরিচিত ধোনি  অভিজ্ঞ খেলোয়াড় বলেই এখন সমালোচনরার মুখে পড়ছেন বেশি। মুস্তাফিজ তরুণ ও নবাগত বলে তার আচরণগত ভুল কম আসছে আলোচনায়। কিন্তু শুদ্ধি কেবল ধোনির জন্যই প্রযোজ্য হবে তা নয়। নিশ্চয়ই আমরা বারবার অন্য দিকে দোষারোপের আঙুল তুলব না। কারণ আত্মসমালোচনার দায়িত্ববোধ এড়িয়ে যাওয়াটা আমাদের ক্রিকেটের ইমেইজের জন্য ইতিবাচক হবে না। নিশ্চয়ই আমরা যে কোনওভাবে জিততে অনিচ্ছুক। আমরা সকল খেলোয়াড়ের কাছে, প্রত্যেক ক্রিকেট টিমের কাছে, আম্পায়ারের কাছে, এমনকি আইসিসির কাছেও, শতভাগ খেলা প্রত্যাশা রাখি।

 

***
প্রকাশিত: বাংলা ট্রিবিউন, জুন ২১, ২০১৫